এমপির চিঠি ও একটি খুন

এমপির চিঠি ও একটি খুন
নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা। ছবি: সংগৃহীত

সোনারগাঁওয়ের মেঘনা নদীর বালু অবৈধভাবে উত্তোলন বন্ধে জনস্বার্থে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারকে (ভারপ্রাপ্ত) গত ২৬ নভেম্বর উপানুষ্ঠানিক চিঠি দিয়েছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা। তবে এমপির এই চিঠি আমলে নেয়নি স্থানীয় প্রশাসন। এর মধ্যেই গত রবিবার রাতে প্রতিপক্ষের হাতে খুন হয়েছেন জাকির হোসেন নামের স্থানীয় এক যুবক। মেঘনা নদীর বালুমহালের নিয়ন্ত্রণকে কেন্দ্র করে এই খুনের ঘটনা এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।

এমপি খোকার ভাষ্য, ‘প্রশাসন গুরুত্ব দিয়ে আমার চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করলে হয়তো এই নির্মম ঘটনা এড়ানো সম্ভব হতো।’

জানা গেছে, নিহত জাকির হোসেন সোনারগাঁও উপজেলার বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের আমিরাবাদ (টেকপাড়া) গ্রামের বাসিন্দা। নিহতের বড়ো ভাই মনির হোসেন গত সোমবার সোনারগাঁও থানায় হত্যা মামলা করেছেন। মামলায় বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নবী হোসেনসহ ২২ জনকে আসামি করা হয়েছে। মামলার ৩ নম্বর আসামি আবু হানিফকে ইতিমধ্যে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মামলার এজাহার ও নিহতের পরিবারের অভিযোগ, কার্যত বালুমহালের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে জাকিরের সঙ্গে আসামিদের বিরোধ চলে আসছিল। এর জের ধরে রবিবার রাতে জাকিরের বাড়িতে হামলা করেন আসামিরা। এতে নেতৃত্ব দেন যুবলীগের স্থানীয় নেতা নবী হোসেন ও তার ছোটো ভাই নজরুল ইসলাম। আসামিরা দা, চাপাতি, ট্যাঁটা ও চাইনিজ কুড়াল নিয়ে বাড়িতে প্রবেশ করেন। তারা কুপিয়ে ও ট্যাঁটাবিদ্ধ করে জাকির ও তার চাচাতো ভাই আল আমিন, আমির ও মফিজুল্লাকে মারত্মকভাবে আহত করেন। আহত চার জনকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিত্সক জাকিরকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত অন্যরা এখনো চিকিত্সাধীন। তাদের মধ্যে আল-আমিনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

আরো পড়ুন: হায়দ্রাবাদের পর এবার বিহারে ধর্ষণ করে পুড়িয়ে হত্যা

ডিসি ও ভারপ্রাপ্ত এসপিকে ২৬ নভেম্বর দেওয়া চিঠিতে স্থানীয় সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা জানান, মেঘনা, ব্রহ্মপুত্র ও শীতলক্ষ্যা নদী দ্বারা বেষ্টিত সোনারগাঁও উপজেলার নূনেরটেক গ্রামঘেঁষা মেঘনা নদী অত্যন্ত খরস্রোতা ও সর্পিল বাঁকসম্পন্ন। প্রায় ১৮ হাজার জনসংখ্যা অধ্যুষিত নূনেরটেকবাসীকে প্রতিনিয়ত জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব মোকাবিলা করতে হচ্ছে। বর্ষা মৌসুমে উত্তাল মেঘনার ঢেউয়ের কারণে এলাকার বেশ কিছু অংশ প্রায় নিশ্চিহ্ন। প্রশাসনের কতিপয় অসাধু কর্মকতার যোগসাজশে দীর্ঘদিন যাবত্ বালুসন্ত্রাসী চক্র অবাধে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে যাচ্ছে। তিনটি ভাগে নূনেরটেকঘেঁষা মেঘনা নদীর বালু চুরি ও লুটপাট হয়।

এমপি খোকা গতকাল মঙ্গলবার ইত্তেফাককে বলেন, ঐতিহ্যবাহী এই নূনেরটেক গ্রামকে কবি-সাহিত্যিকেরা ‘মায়াদ্বীপ’ নামে অভিহিত করেছিলেন। যুগ যুগ ধরে উন্নয়নবঞ্চিত নূনেরটেক গ্রামটিতে গত কয়েক বছরে বহু রাস্তাঘাট ও কালভার্ট নির্মাণ এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান স্থাপিত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ‘আমার গ্রাম-আমার শহর’ প্রকল্পের আওতায় মডেল গ্রাম হিসেবে মায়াদ্বীপকে পরিকল্পিত ইকোভিলেজ বা স্মার্টভিলেজ কনসেপ্ট করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। মায়াদ্বীপকে অর্থনৈতিক অঞ্চল হিসেবে গড়ে তুলতে বেসরকারি পর্যায়ে অনেকে ইতিমধ্যে সেখানে পর্যটনকেন্দ্র গড়ে তোলারও আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

এমপি বলেন, ‘এ কারণে মায়াদ্বীপ রক্ষায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ করতে আমি প্রশাসনকে চিঠি দিয়েছিলাম। প্রশাসনের নীরবতায় জাকির হোসেনকে প্রাণ দিতে হলো।’ অবিলম্বে আসামিদের গ্রেফতার করে দ্রুত বিচারের পদক্ষেপ নিতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতি আহ্বান জানান এমপি খোকা।

ইত্তেফাক/বিএএফ

Nogod
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
close