ঢাকা বুধবার, ২২ জানুয়ারি ২০২০, ৯ মাঘ ১৪২৭
১৯ °সে

আলোর দিশারি হয়ে স্বাস্থ্যসেবায় নৌ-এ্যাম্বুলেন্স

আলোর দিশারি হয়ে স্বাস্থ্যসেবায় নৌ-এ্যাম্বুলেন্স
এমবি ‘পায়রা বোট এ্যাম্বুলেন্সে’। ছবি: ইত্তেফাক

নৌপথ নির্ভর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন পটুয়াখালী উপজেলা রাঙ্গাবালী। তিনদিকে নদী ও একদিকে সাগর বেষ্টিত এ জনপদে দুই লক্ষ মানুষের বসবাস। কিন্তু এলাকার স্বাস্থ্যসেবার জন্য নেই কোন সরকারি কিংবা বেসরকারি হাসপাতাল। অবশেষে এলাকার মানুরে স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে আলোর দিশারি হয়ে চালু হয়েছে নৌ-এ্যাম্বুলেন্স।

জেলা সদর থেকে ৪০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এ উপজেলার মানুষের স্বাস্থ্যসেবায় চালু করা হয়েছে এমবি ‘পায়রা বোট এ্যাম্বুলেন্স’ নামক এ নৌ-এ্যাম্বুলেন্স । সোমবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে আনুষ্ঠানিকভাবে এ নৌ-এ্যাম্বুলেন্সটি উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে এটির স্বাস্থ্য সেবা কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

জানা যায়, আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের অর্থায়নে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা অভিযাত্রিক ফাউন্ডেশনের পরিচালনায় ২৯ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নৌ-এ্যাম্বুলেন্সটি নির্মাণ করা হয়েছে। এমবি ‘পায়রা বোট এ্যাম্বুলেন্সে’ নামের এ এ্যাম্বুলেন্সটি ১০জন মানুষের ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন। ২৬ ফুট দৈর্ঘ্য এবং ১১৫ হর্স পাওয়ার সম্বলিত দ্রুতগামী নৌযান এটি।

সংশ্লিষ্টরা জানান, এটি ২৪ ঘন্টা উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নের যেকোনো প্রান্ত থেকে রোগী নিয়ে ২০-৩০ মিনিটের মধ্যে পার্শ্ববর্তী উপজেলা কিংবা জেলা সদরের হাসপাতালে পোঁছাতে সক্ষম হবে। এতে থাকছে অক্সিজেন ও জরুরী ঔষধের ব্যবস্থা। থাকবে সার্বক্ষণিক স্বাস্থ্যকর্মী ও স্বাস্থ্যসেবার অন্যান্য সুযোগ সুবিধা।

স্থানীয়রা জানান, সদর থেকে ৪০ কি.মি. দূরে অবস্থিত এই উপজেলার মানুষেরা স্বাস্থ্য সেবা নিয়ে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হতো। এলাকার মানুষদের নৌপথ পাড়ি দিয়ে অন্যত্র গিয়ে স্বাস্থ্যসেবা নিতে হয়। সেই বিপত্তি কাটিয়ে আলোর দিশারি হয়ে এসব এলাকার মানুষের স্বাস্থ্য সেবা কিছুটা হলেও সহজ হবে।

অভিযাত্রিক ফাউন্ডেশনের প্রেসিডেন্ট আহমেদ ইমতিয়াজ জামি বলেন, ‘রাঙ্গাবালী উপজেলায় তিন বছর ধরে আমরা কাজ করছি। দীর্ঘদিন ধরেই বোট এ্যাম্বুলেন্স সেবা চালু করার চেষ্টা ছিল আমাদের। অবশেষে আমরা সফল হয়েছি। হাসপাতালবিহীন এ জনপদের মানুষকে দরুত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে এটি একটি বড় সহায়ক হবে বলে মনে করছি।’

আরও পড়ুন: পানিপথে মালয়েশিয়া: সাত বছরেও খোঁজ মেলেনি ওদের

আইডিএলসির এমডি ও সিইও আরিফ খান বলেন, ‘নদী ও সাগর ঘেরা দুর্গম উপজেলার মানুষের স্বাস্থ্যসেবার কথা চিন্তা করে আমরা বোট এ্যাম্বুলেন্স প্রকল্পের কাজ শুরু করেছি। মানব সেবায় আমাদের ক্ষুদ্র এই প্রয়াস সফল হবে বলে আশা করছি।’

এ ব্যাপারে পটুয়াখালী জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘জরুরি স্বাস্থ্যসেবার জন্য নৌ-এ্যাম্বুলেন্স চালু হয়েছে। তবে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নির্মাণের কাজ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।’

ইত্তেফাক/আরআই

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
icmab
facebook-recent-activity
prayer-time
২২ জানুয়ারি, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন