বেনাপোলে ভারতে যাতায়াতকারী যাত্রীদের ঢল

প্রকাশ : ১৪ জানুয়ারি ২০২০, ২০:২৫ | অনলাইন সংস্করণ

  কাজী শাহ্জাহান সবুজ, বেনাপোল (যশোর) সংবাদদাতা

বাংলাদেশ ইমিগ্রেশনে বহির্গমন কাউন্টারে যাত্রীদের ভিড়। ছবি : ইত্তেফাক

বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে প্রতি সপ্তাহে  প্রায় ৫৬ হাজার পাসপোর্ট ধারী যাত্রী ভারত-বাংলাদেশ যাতায়াত করেছে। শিক্ষার্থীদের বার্ষিক পরীক্ষা শেষে লম্বা ছুটি এবং অভিভাবকদের ভারতে চিকিৎসা, আত্মীয় বাড়ি বেড়ানোসহ বিভিন্ন কারণে ভারত ভ্রমণ বেড়েছে।

 

বেনাপোল সীমান্তের জিরো পয়েন্ট থেকে  কলকাতার দূরত্ব মাত্র ৮৪ কিলোমিটার হওয়ায় এ পথে যাত্রীদের ভিড় লেগেছে এ মৌসুমে। তাছাড়া কম খরচে যাতায়াত সুবিধাও একটি কারণ। অন্য সময় এ পথে প্রতিদিন ৪ থেকে ৫ হাজার যাত্রী যাতায়াত করলেও তা এখন বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি। প্রতিদিন প্রায় ৯ থেকে ১০ হাজার যাত্রী ভারত যাতায়াত করছে।

 

তবে ভারতে যাতায়াতকারী যাত্রীদের অভিযোগ- বাংলাদেশ ইমিগ্রেশনে বহির্গমন ও আগমন কাজ সম্পন্ন করতে কাউন্টার স্বল্পতার কারণে বেশি ভোগান্তি হচ্ছে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়।  এতে বেশি ভোগান্তি হচ্ছে রোগী ও শিশু যাত্রীদের। এখানে  বহির্গমন কাউন্টার আছে ৮টি এবং আগমনী কাউন্টার  আছে ৮টি। যা প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম।

 

ভারতে যাতায়াতকারী লাইনে থাকা যাত্রীরা জানান, এখানে কাউন্টার  এবং ইমিগ্রেশনে জনবল বাড়ানো একান্ত প্রয়োজন। তা না হলে যাত্রীদের ভোগান্তি  থেকেই  যাবে।

 

মঙ্গলবার  সকালে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে ভারতে যাওয়া  সেবানী দাস  জানান, ছুটিতে  কলকাতা যাচ্ছি, বাচ্ছাদের ভ্রমণও হলো আর সেই সঙ্গে আমাদের কেনাকাটাতো আছেই।

 

কলকাতা থেকে চিকিৎসা শেষে ফিরে আসা বাংলাদেশি যাত্রী  কামাল হোসেন  জানান, ভারতীয় ইমিগ্রেশনের কাজের ধীর গতির কারণে বাংলাদেশি যাত্রীদের দুর্ভোগের সীমা নাই। শিশু ও রোগী যাত্রীরা সব চেয়ে বেশি দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে  ভারতের পেট্রাপোল সীমান্তে।

বেনাপোল সোনালী ব্যাংকের ম্যানেজার এ,আর,এম রকিবুল হাসান জানান, ভ্রমণকর বাবদ গত ২০১৯ সালের জুলাই মাস থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত  রাজস্ব আদায় হয়েছে প্রায় ২৯ কোটি ৮১ লাখ ২৫ হাজার টাকা আদায় হয়েছে। ৫ লাখ ৯৬ হাজার ২৫০ জন যাত্রীর কাছ থেকে ভ্রমণ কর  সংগ্রহ করা হয়েছে।

 

বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. খোরশেদ আলম  জানান, বছরের শেষে  স্কুল -কলেজ  বন্ধ   থাকায় এ পথে যাত্রীর চাপ একটু বাড়ে। এখন  প্রতি সপ্তাহে ভারত যাতায়াতকারী  পাসপোর্ট যাত্রীর সংখ্যা প্রায় ৫৬ হাজার। যাত্রীরা যাতে দ্রুত ভারতে যেতে পারে তার জন্য এখানে ১৬টি কাউন্টার রয়েছে। তা বাড়িয়ে ২৪ করা হলে যাত্রীদের ভোগান্তি  কমে যাবে।

 

ইত্তেফাক/ইউবি