করোনা উপসর্গ নিয়ে দেশে প্রথম নার্সের মৃত্যু

করোনা উপসর্গ নিয়ে দেশে প্রথম নার্সের মৃত্যু
করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন নার্সিং কর্মকর্তা শেফালী রানী দাস

করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে এবার মারা গেলেন শেফালী রানী দাস (৫০) নামের একজন নার্সিং কর্মকর্তা। তিনি ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের নার্সিং সুপারভাইজার ছিলেন। বুধবার রাত ১২টার দিকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। তবে তার মৃত্যুর পর করোনা পরীক্ষা করা হলে সেখানে রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। আগেও দুইবার পরীক্ষা করা হয়। প্রতিবারই রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছিল। তবে করোনার নানা ধরনের উপসর্গ নিয়েই তিনি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন।

নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ছিদ্দিকা আক্তার এবং পরিচালক (শিক্ষা ও প্রশাসন) মোহাম্মদ আবদুল হাই-পিএএ নার্সিং সুপারভাইজার শেফালী রানী দাশের মৃত্যুতে শোক জানিয়ে তার আত্মার শান্তি কামনা করেন। একইসঙ্গে তার পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ নার্সেস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ইসমত আরা পারভীন, মহাসচিব মোহাম্মদ জামালউদ্দিন বাদশা, বাংলাদেশ নার্সেস অ্যাসোসিয়েশন, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল শাখার সভাপতি ও বঙ্গবন্ধু নার্সেস পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ কামাল হোসেন পাটওয়ারী, মহাসচিব মোহাম্মদ আবদুল হান্নান মিয়া, বিএনএ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান জুয়েল এবং স্বাধীনতা নার্সেস পরিষদের সভাপতি মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান।

যৌথ বিবৃতিতে উল্লেখ করেন, ‘আমরা শেফালী রানী দাশের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করছি। সেই সঙ্গে শোকাহত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি। আমরা তাঁর আত্মার শান্তি কামনা করছি।’

মৃত্যুকালে শেফালী রানী দাশ এক ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গেছেন। তার মেয়ে বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং ছেলে ময়মনসিংহ ল' কলেজে আইন নিয়ে পড়াশোনা করছেন।

ইত্তেফাক/আরএ

Nogod
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত