ইউএনও’র স্বাক্ষর জাল করে টাকা উত্তোলনকারী কলাপাড়ার পিআইও তপন সাময়িক বরখাস্ত 

ইউএনও’র স্বাক্ষর জাল করে টাকা উত্তোলনকারী কলাপাড়ার পিআইও তপন সাময়িক বরখাস্ত 
স্বাক্ষর জাল করে বরখাস্থ হওয়া কলাপাড়া উপজেলা পিআইও তপন কুমার ঘোষ। ছবি: ইত্তেফাক

ইউএনও’র স্বাক্ষর জাল করে টাকা উত্তোলন এবং ধরা পরার পর জমা দেয়ার ঘটনায় কলাপাড়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) তপন কুমার ঘোষকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে সাময়িক বরখাস্তের পাশাপাশি সরকারী কর্মচারী (শৃক্সখলা ও আপিল) বিধিমালা অনুযায়ী বিভাগীয় মামলা রুজুর বিষয়টি বলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রনালয়ের উপ-সচিব (ত্রাণ প্রশাসন) আবু সাইদ মো. কামাল স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।

সেখানে উল্লেখ করা হয়, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরাধীন পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলা বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তপন কুমার ঘোষ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার স্বাক্ষর জাল করে এক কোটিপ ১২ লাখ ৭৫ হাজার টাকা উত্তোলন করেছেন এবং ২৩ জুলাই সরকারি হিসাবে জমা প্রদান করেছেন। যা সরকারি বিধিমালা অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য অপরাধ। অপরদিকে, এ ঘটনায় বর্তমান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অভিযোগের তদন্তের জন্য দুদকের উপ-পরিচালককে চিঠি দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন, পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক মো. মতিউল ইসলাম চৌধুরী।

উল্লেখ্য, পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের ১০টি কমিউনিটি সেন্টার ও ছয়টি ঘাটলা নির্মানে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বরাদ্দকৃত এক কোটি ১১ লাখ ৭৫ হাজার তিন শ’ পয়ত্রিশ টাকা অভিনব কায়দায় ইউএনও’র স্বাক্ষর জাল করে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) তপন কুমার ঘোষ এ জালিয়াতি করে। করোনা প্রাদুর্ভাবে সরকারি অফিস সমূহ বন্ধ থাকলেও কলাপাড়ায় আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের ১০টি কমিউনিটি সেন্টার ও ছয়টি ঘাটলা নির্মাণের বিল-ভাউচার তৈরি এবং স্বাক্ষর জাল করে এ টাকা এক ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান দেখিয়ে তুলে নেয়া হয়। করোনা পরিস্থিতি এবং ইউএনও’র বদলি জনিত অনুপস্থিতির সুযোগে অভিনব কায়দায় সকল প্রকার জাল কাগজপত্র তৈরি করা হয়। প্রকল্পের কাগজপত্রে দেখা গেছে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পিআইও তপন কুমার সুচতুর ভাবে এ কার্যক্রম সম্পাদন করেছেন। কলাপাড়ার ইউএন’র সরকারী ব্যাংক হিসাব নম্বর কেটে গলাচিপা উপজেলার ব্যাংক হিসাব নম্বর বসিয়ে তাতে সত্যায়ন করেন পিআইও তপন। সম্প্রতি বদলি হওয়া কলাপাড়ার উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুনিবুর রহমান (বর্তমানে বরিশাল সদর উপজেলা ইউএনও) এবং কলাপাড়ার বর্তমান ইউএনও আবু হাসানাত মো. শহীদুল হক এ জালিয়াতির প্রমানাদি পেয়ে উর্ধ্বতনদের বিষয়টি লিখিত ভাবে জানালে বেরিয়ে আসতে থাকের একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। ঘটনা জানাজানি হলে পিআইও তপন কলাপাড়ার সাবেক এবং বর্তমান ইউএনও কে ম্যানেজ করতে নানা তৎপরতা চালাতে থাকেন। তাতে শেষ রক্ষা না হওয়ায় ২১ জুলাই সরকারি হিসাবে উক্ত অর্থ জমা দেয়া হয়। টাকা জমা দিয়ে অপরাধ ঢাকতে পিআইও তপন নানা ভাবে তদ্বির চালিয়ে আসলেও কলাপাড়া উপজেলাবাসী টাকা আত্মসাতকারীর বিচার দাবী করেন। টাকা আত্মসাতের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও সমাবেশ করে আবাসনে বসবাসরত ভুক্তভোগী কয়েকশ মানুষ। তারা সঠিক তদন্ত করে অপরাধীকে আইনের আশ্রয় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়ে আসছিলো।

ইত্তেফাক/কেকে

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত