সিলেটে গ্রেনেড হামলার বিচার শেষ হলো না ১৬ বছরেও

সিলেটে গ্রেনেড হামলার বিচার শেষ হলো না ১৬ বছরেও
শুক্রবার ১৬ বছর পূর্ণ হয়েছে সিলেটে হোটেল গুলশান সেন্টারে মহানগর আওয়ামী লীগের সভায় গ্রেনেড হামলা ঘটনার

গতকাল শুক্রবার ১৬ বছর পূর্ণ হয়েছে সিলেট নগরীর তালতলায় হোটেল গুলশান সেন্টারে মহানগর আওয়ামী লীগের সভায় গ্রেনেড হামলা ঘটনার। বর্বরোচিত সেই হামলায় সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক মো. ইব্রাহিম আলী নিহত হন। আহত হন ২০ জন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী। আহতদের অনেকে এখনো শরীরে স্প্লিন্টার ও ক্ষত নিয়ে দুঃসহ জীবন কাটাচ্ছেন। ২০০৪ সালের ৭ আগস্ট রাতে হোটেল গুলশান সেন্টারে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ওপর গ্রেনেড হামলার ঘটনার পরদিন সিলেট কোতোয়ালি থানার এসআই মো. এনামুল হক অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দুটি মামলা দায়ের করেন। নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদের জঙ্গিরা এই হামলার দায় স্বীকার করে। কিন্তু ১৬ বছরেও মামলা দুটির নিষ্পত্তি হয়নি। মহানগর দায়রা জজ আদালতে পাবলিক প্রসিকিউটর নওশাদ আহমেদ চৌধুরী জানান, দ্রুত সময়ের মধ্যে মামলা দুটির বিচারকাজ শেষ করার চেষ্টা করছেন তারা।

সূত্র মতে, হরকাতুল জিহাদ নেতা মাওলানা তাজউদ্দিন ও মুফতি আব্দুল হান্নানের সহায়তায় কাশ্মীরি জঙ্গি আব্দুল মাজেদ ভাট ওরফে ইউসুফ ভাট পাকিস্তান থেকে গোলাবারুদ ও গ্রেনেড বাংলাদেশে নিয়ে আসে। সিলেট অঞ্চলের দায়িত্বপ্রাপ্ত শরীফ শাহেদুল আলম বিপুলের কাছে দেওয়া হয় চারটি গ্রেনেড। পরিকল্পনা অনুযায়ী জঙ্গি হুমায়ুন কবির হিমু ও ফখরুল ইসলাম ফাহিম গ্রেনেড হামলা চালায়। গুলশান সেন্টারে হামলার ব্যাপারে জঙ্গি বিপুলের জবানবন্দি রেকর্ড করেন প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট নুরে আলম সিদ্দিকী ২০০৬ সালের ৬ অক্টোবর। জবানবন্দিতে বিপুল জানায়, ঘটনার দিন হামলার পুরো পরিকল্পনা ও এর বাস্তবায়ন সম্পর্কে মুফতি হান্নানকে অবগত করা হয়। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বিস্ফোরক মামলাটি জননিরাপত্তা বিঘ্নকারী অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন রয়েছেন। মামলার ৬৪ জন সাক্ষীর মধ্যে এখনো সবার সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়নি। ২০১৫ সালের ৭ মে ৮ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত। এর মধ্যে তিন জঙ্গির অন্য মামলায় ফাঁসি হয়েছে, দুই জন পলাতক ও বর্তমানে মঈন উদ্দিন ওরফে আবু জান্দাল ওরফে মাসুম বিল্লাহ, মো. মফিজুল ইসলাম ওরফে মফিজ ওরফে অভি ও আব্দুল মাজেদ ভাট ওরফে ইউসুফ ভাট কারাগারে আটক রয়েছেন। অন্যদিকে হত্যা মামলা মহানগর দায়রা জজ আদালতে বিচারাধীন। ২০১৮ সালের ২১ অক্টোবর ট্রাইব্যুনালের বিচারক দিলীপ কুমার ভৌমিক পাঁচ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন।

আওয়ামী লীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ বলেন, খালেদা-নিজামী সরকার পরিকল্পিতভাবে জঙ্গিদের দিয়ে গ্রেনেড হামলা চালিয়েছিল। তিনি জানান, ঐ ঘটনায় দায়ের করা হত্যা মামলা প্রায় শেষ পর্যায়ে। আর বিস্ফোরক মামলাও অনেক দূর এগিয়ে গেছে।

ইব্রাহিমের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল

গ্রেনেড হামলায় নিহত মো. ইব্রাহিম আলীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে গতকাল শুক্রবার বাদ জুমা সিলেট নগরীর ঘাসিটুলা মজুমদারপাড়া ফজলুল হক জামে মসজিদে সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগ ও পরিবারের উদ্যোগে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। দোয়া মাহফিলে মো. ইব্রাহিম আলী এবং সাবেক মেয়র মরহুম বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের রূহের মাগফিরাত কামনা করা হয়। সেই সঙ্গে করোনায় আক্রান্ত মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ ও তার সহধর্মিণীর সুস্থতা কামনা করা হয়। সবশেষে দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করে করোনা ভাইরাস থেকে সবাইকে রক্ষা করতে মহান রাব্বুল আল আমিনের দরবারে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। দোয়া মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ, সাবেক সহসভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালিক প্রমুখ।

ইত্তেফাক/কেকে

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত