শেরপুরের বন অধিদপ্তরে লাগেনি আধুনিকতার ছোঁয়া, খুঁড়িয়ে চলছে দাপ্তরিক কর্মকাণ্ড

শেরপুরের বন অধিদপ্তরে লাগেনি আধুনিকতার ছোঁয়া, খুঁড়িয়ে চলছে দাপ্তরিক কর্মকাণ্ড
শ্রীবর্দীর উপজেলার বালিজুরী রেঞ্জের সদর বিট অফিসের জরাজীর্ণ ভবন। ছবি: ইত্তেফাক

শেরপুরের বন অধিদপ্তরে ৫০ বছরেও লাগেনি আধুনিকতার ছোঁয়া। ফলে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে দাপ্তরিক কর্মকাণ্ড। লোকবলের অভাবে একজন কর্মকর্তাকে দিয়ে একাধিক দপ্তরের দায়িত্ব পালন করানো হচ্ছে। বনপ্রহরীর সংখ্যাও তুলনামূলকভাবে কম হওয়ায় ব্যাহত হচ্ছে বন ও বনভূমি রক্ষা। মান্ধাতা আমলের ভবনগুলোরও জরাজীর্ণ অবস্থা। ফলে দাপ্তরিক কর্মকাণ্ড ও বন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বসবাসে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

নিয়ম অনুযায়ী বন কর্মকর্তাদের দপ্তরেই অবস্থান করার কথা। কিন্তু বসবাসযোগ্য বাসভবন না থাকায় অনেক ক্ষেত্রেই তা সম্ভব হচ্ছে না। শেরপুরের সীমান্তে ৩টি উপজেলায় ৩টি ফরেস্ট রেঞ্জ অফিস রয়েছে। এসব অফিসগুলো হচ্ছে নালিতাবাড়ী উপজেলার মধুটিলা, ঝিনাইগাতী উপজেলার রাংটিয়া ও শ্রীবরদী উপজেলার বালিজুরী রেঞ্জ। এ ৩টি রেঞ্জের আওতায় ১০টি বিট অফিস রয়েছে। বিট অফিসগুলো হচ্ছে মধুটিলা রেঞ্জের সমশ্চুড়া, বাতকুচি ও সন্ধ্যাকুড়া। রাংটিয়া রেঞ্জের রাংটিয়া, গজনী ও তাওয়াকোচা। বালিজুরী রেঞ্জের বালিজুরী সদর, মালাকুচা, কর্নঝুড়া ও ডুমুরতলা বিট। এ ৩টি রেঞ্জের আওতায় প্রায় ৩০ হাজার একর বনভূমি রয়েছে। এসব বনভূমি ও বন রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে রয়েছে মাত্র ২৯জন কর্মকর্তা-কর্মচারী। যা প্রয়োজনের তুলনায় কম।

জানা গেছে,এ ৩টি রেঞ্জেই নেই রেঞ্জ কর্মকর্তা। ফলে ভারপ্রাপ্ত এবং একই কর্মকর্তাকে দিয়ে চালানো হচ্ছে একাধিক বিট ও রেঞ্জ অফিস।

বনবিভাগ সূত্রে জানা গেছে, রেঞ্জ গুলোতে ২-৪টি মোটরসাইকেল থাকলেও তা প্রায় ব্যবহারের অনুপযোগী।

মধুটিলা রেঞ্জের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল করিম, বালিজুরী রেঞ্জের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম, রাংটিয়া রেঞ্জের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইলিছুর রহমানসহ অন্যান্য কর্মকর্তাদের সাথে কথা হলে তারা জানান, বিশাল এলাকাজুড়ে বন ও বনভূমি। কিন্তু কর্মকর্তাদের জন্য নেই কোন গাড়ি বা পিকআপ ভ্যান। ফলে চোরাইকাঠ, পাথর, বালু আটক করার সময় বিপাকে পড়তে হয় কর্মকর্তাদের। অফিস থেকে দূরে গভীর বনাঞ্চলে চুরির ঘটনা ঘটলে গাড়ির অভাবে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছানো সম্ভব হয় না। লোকবলের অভাবে জবরদখলকৃত জমি উদ্ধারসহ নানা কাজে হিমশিম খেতে হয়। ঘটনা প্রতিকারের ব্যবস্থা নিতে শিকার হতে হয় নানা বিড়ম্বনার। জরাজীর্ণ ভবন থাকলেও বিট অফিসগুলোতে নেই বিশুদ্ধ খাবার পানির ব্যবস্থা। কূপের পানি পান করতে হয় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের। কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসভবনের অভাবে কেউ কেউ বাসা ভাড়া নিয়ে বন এরিয়ার বাইরে বসবাস করে থাকেন। এতে ব্যাহত হয় দাপ্তরিক কর্মকাণ্ড। জেলা সদরের সহকারী বন সংরক্ষকের কার্যালয়েরও একই দশা। তবে সহকারী বন সংরক্ষকের একটি গাড়ি থাকলেও চলার পথে মাঝেমধ্যেই তা অকেজো হয়ে পড়ে। বর্তমান সরকারের ডিজিটাল যুগে সকল দপ্তরের উন্নয়ন হলেও গত ৫০ বছরেও শেরপুরের বন অধিদপ্তরে লাগেনি উন্নয়নের ছোঁয়া। ফলে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে বনবিভাগের সকল কর্মকাণ্ড।

শেরপুরের সহকারী বন সংরক্ষক ড. প্রাণতোষ রায় শেরপুর বন অধিদপ্তরের কার্যালয়গুলো জরাজীর্ণ অবস্থা ও লোকবল সংকটের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘সমস্যাগুলো নিয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে লেখালেখির পাশাপাশি বিশদ আলোচনাও চলছে। তবে এখনও তা বাস্তবায়ন ও উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি।’

ইত্তেফাক/এএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত