জয়পুরহাটে আঞ্চলিক মহাসড়ক উন্নয়ন কাজে স্থবিরতায় হুইপের ক্ষোভ

জয়পুরহাটে আঞ্চলিক মহাসড়ক উন্নয়ন কাজে স্থবিরতায় হুইপের ক্ষোভ
জয়পুরহাটে এক সমন্বয় সভায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি।

জয়পুরহাটের আঞ্চলিক মহাসড়ক ও জেলার বিভিন্ন সড়কের চলমান উন্নয়ন কাজে ধীর গতি ও স্থবিরতা বিষয়ক এক সমন্বয় সভায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি।

বুধবার বিকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সমন্বয় সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মো.শরীফুল ইসলাম।

সভায় উপস্থাপনকৃত প্রতিবেদনে দেখা যায়, জয়পুরহাট-বগুড়া মহাসড়কের জয়পুরহাট-মোকামতলা অংশের উন্নয়ন কাজ দীর্ঘদিন থেকে বন্ধ রাখায় চরম দুর্ভোগে পড়েছে এলাকার হাজার হাজার মানুষ। বার বার তাগাদা দেওয়ার পরও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নাভানা কনস্ট্রাকশন কাজের গতি না বাড়িয়ে ১৮ মাসের কাজ ৩২ মাস ধরে ফেলে রেখেছেন। এখানে কাজের অগ্রগতি দেখানো হয়েছে মাত্র ১৫ শতাংশ। সড়কের উন্নয়ন কাজে সরকার কোটি কোটি টাকা বরাদ্দ দিলেও ধীর গতির কারণে সুফল পাচ্ছে না এলাকার মানুষ। উন্নয়ন কাজের জন্য জেলার বিভিন্ন সড়ক অকেজো করে মাসের পর মাস ফেলে রাখায় এলাকাবাসী গালমন্দ করছেন সরকারকে। পাশাপাশি এলাকার জনপ্রতিনিধিদেরও। এ বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে দ্রুত কাজ শেষ করার জন্য সড়ক ও জনপথ বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে নির্দেশনা প্রদান করেন হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন।

উল্লেখ্য, জেলায় সড়কের উন্নয়নে বর্তমানে তিনটি প্রকল্প চলমান রয়েছে। এ গুলোর মধ্যে রয়েছে জয়পুরহাট-আক্কেলপুর হয়ে বদলগাছী সংযোগ সড়ক পর্যন্ত উন্নয়ন কাজ। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ২৮ কোটি টাকা। জয়পুরহাট-পাঁচবিবি সড়ক ও বাইপাস ভায়া হিচমী পর্যন্ত উন্নয়ন কাজ। এ কাজে ব্যয় ধরা হয়েছে ১২০ কোটি টাকা। এ ছাড়াও জয়পুরহাট-মোকামতলা সড়কের জয়পুরহাট অংশের উন্নয়ন কাজ যাতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৯ কোটি টাকা। প্রকল্প গুলোর কাজ যথা সময়ে শুরু হলেও ধীর গতির কারণে কাজের অগ্রগতি তেমন হয়নি। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে শোকজ করেও কোন কাজ হয়নি বলে জানান, জয়পুরহাট সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী জাকির হোসেন।

অপরদিকে, জয়পুরহাট শহরকে যানজট মুক্ত করার জন্য ফোর লেনে উন্নীত করণ কাজের ভিত্তি স্থাপন করা হয় ২০১৮ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর। ভিত্তি স্থাপনের দুই বছরেও দৃশ্যমান কোন কাজ না হওয়ায় বিষয়টি দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে একটি তদারকি কমিটি গঠন করা হয়েছে সভায়।

সমন্বয় সভায় সওজের বগুড়া অঞ্চলের তত্ত্বাবধায়ক আবু এহতেশাম রাশেদ, নির্বাহী প্রকৌশলী জাকির হোসেন, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী এফ.এম খায়রুল ইসলাম, কালাই উপজেলা চেয়ারম্যান মিনফুজুর রহমান মিলন, জয়পুরহাট পৌরসভার মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান, জয়পুরহাট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক খ.ম আব্দুর রহমান রনি আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন। উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় কর্মকর্তারা সমন্বয় সভায় যোগদান করেন।

ইত্তেফাক/এমআরএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত