মাদকের ব্যাপারে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না: খাদ্যমন্ত্রী 

মাদকের ব্যাপারে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না: খাদ্যমন্ত্রী 
মাসিক আইনশৃংখলা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। ছবি : ইত্তেফাক

মাদকের পেছনে যত প্রভাবশালী ব্যক্তিই থাকুক না কেন, কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। আমার নির্বাচনী এলাকায় যেকোনো মূল্যে মাদকমুক্ত ঘোষণা করতে হবে। আমি ওসিকে বলছি, যদি কেউ মাদক ব্যবসায়ী বা মাদকসেবীদের সুপারিশের জন্য আপনার কাছে আসে তাহলে তাদের অফিসে বসিয়ে চা নাস্তা খাইয়ে সম্মানের সহিত বিদায় করে দিবেন। কিন্তু যে মাদক ব্যবসায়ী বা সেবীর পক্ষে সুপারিশ করতে এসেছিল সেই মামলায় সুপারিশকারীকেও যেন আসামি করা হয়।

বৃহস্পতিবার বেলা ১০টায় জেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে উপজেলা মাসিক আইনশৃংখলা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

তিনি আরও বলেন, পুলিশ বাহিনীর কোনো সদস্য মাদক সেবন করে কিনা, মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে যোগাযোগ আছে কিনা, মাসিক চাঁদা আদায় করে কিনা সেগুলোকে আগে খুঁজে বের করতে হবে। আমি আগামী এক মাসের মধ্যে উপজেলার আইন শৃংখলার উন্নতি দেখতে চাই।

প্রধান অতিথি বলেন, বর্তমানে দেশে নারী নির্যাতন বৃদ্ধি পেয়েছে। আমার উপজেলায় যেন নারী নির্যাতনের মত ঘটনা না ঘটে সে দিকে ওসিকে নজর রাখতে হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার জয়া মারীয়া পেরেরার সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফরিদ আহম্মেদ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আইয়ুব হোসাইন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাদিরা বেগম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) নিলুফার সরকার, অফিসার ইন চার্জ হুমায়ন কবির।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম সদস্য আবেদ হোসেন মিলন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বাবু ঈশ্বর চন্দ্র বর্মন, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসার সেলিম উদ্দিন, উপজেলা কৃষি অফিসার আমির আবদুল্লা মো. ওয়াহিদুজ্জামান, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার তরিকুল ইসলাম, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. মো. তোফাজ্জল হোসেন, সহকারী প্রকৌশলী (বিএমডিএ) মতিউর রহমান, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুস সালাম, উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার আরিফুজজামান, উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) নূর-ই-আলম সিদ্দিকী, উপ-সহকারী প্রকৌশলী (এলজিইডি) বজলুর রশিদ, উপজেলা সমবায় অফিসার রুহুল আমীন, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আমিনুল কবির, বাহাদুরপুর ইউপির চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবুল কালাম আজাদ, ভাবিচা ইউপির চেয়ারম্যান ওবাইদুল হক, হাজিনগর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, নিয়ামতপুর সদর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আলহাজ্ব বজলুর রহমান নঈম, রসুলপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, চন্দননগর ইউপি চেয়ারম্যান বদিউজ্জামান বদি, পাড়ইল ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ মুজিব গ্যান্দা, শ্রীমন্তপুর ইউপি চেয়ারম্যান আজাহারুল ইসলাম বুলু, উপজেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি মো. তোফাজ্জল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক জনি আহমেদ, সহ-সভাপতি সিরাজুল ইসলাম, সদস্য শাহজাহান সাজু, আইনুল হক, নিয়ামতপুর সদর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদ হাসান বিপ্লব, ডিষ্ট্রিক স্পেশাল ব্রাঞ্চ (ডিএসবি) সিদ্দিকুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

আইন শৃংখলা সভা শেষে মাসিক সমন্বয় সভা, সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধ কমিটির সভা, উপজেলা নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির সভা, যৌতুক, নদী রক্ষা কমিটির সভা, বাল্য বিবাহ নিরোধ এবং জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন সংক্রান্ত সভা, মানব পাচার প্রতিরোধ কমিটির সভা, উপজেলা আইসিটি বিষয়ক সভা, এবং উপজেলা ইনোভেশন কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়।

ইত্তেফাক/কেকে

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত