তিস্তা নদীকে ঘিরে সরকারের মহা পরিকল্পনা রয়েছে: পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী

তিস্তা নদীকে ঘিরে সরকারের মহা পরিকল্পনা রয়েছে: পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী
লালমনিরহাটের আদিতমারীতে তিস্তা নদীর ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শনকালে এক সভায় বক্তৃতা করছেন পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক এমপি। ছবি: ইত্তেফাক

পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক এমপি বলেছেন, তিস্তা পাড়ের লোকের আর কান্না থাকবে না। তিস্তা নদীকে ঘিরে সরকারের মহা পরিকল্পনা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দাতাদের সঙ্গে কথা বলেছেন, তাদের আগ্রহ রয়েছে। তবে এটি বাস্তবায়নে কিছু সময় লাগতে পারে।

শনিবার দুপুরে লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা ইউনিয়নের তিস্তা নদীর ভাঙন পরিদর্শনকালে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

এসময় তিনি বলেন, এক কিলোমিটার নদীর তীরে মাটির বাঁধ দিতে দেড় কোটি টাকা খরচ পড়ে। আর ব্লক দিয়ে করতে খরচ হবে ৩০ কোটি টাকা। তারপরেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা না বলেননি। ১১৩ কিলোমিটার তিস্তা পাড় ঘিরে রয়েছে সরকারের মহাপরিকল্পনা। প্রকল্প শুরু করতে এক থেকে দেড় বছর সময় লাগতে পারে। ভাঙন রোধে সাময়িক প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। কাজটি বাস্তবায়ন করতে ৫০ কোটি টাকার নিচে হলে পরিকল্পনা মন্ত্রী তা পাশ করতে পারবেন আর ৫০ কোটির ওপরে হলে তা একনেকে অনুমোদন করতে হয় বলে মন্ত্রী উল্লেখ করেন।

প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক এমপির বক্তব্য শেষে মোবাইল ফোনে তিস্তা পাড়ের লোকজনের উদ্দেশ্যে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ বক্তব্য রাখেন।

এসময় পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) মসহমুদুল ইসলাম, জেলা প্রশাসক মো. আবু জাফর, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম কামাল আহমেদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রফিকুল ইসলাম, ইউএনও মুহাম্মদ মনসুর উদ্দিন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফারুক ইমরুল কায়েস, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল আলম, মহিষখোচা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোসাদ্দেক হোসেন চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

শেষে প্রতিমন্ত্রী নৌকা যোগে তিস্তা নদীর ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন।

লালমনিরহাট সদর উপজেলার রাজপুর ইউননিয়নে তিস্তা নদীর বামতীরে ক্ষতিগ্রস্ত স্পার-৩ পরিদর্শন করছেন পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী।

অপরদিকে পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক শনিবার লালমনিরহাট সদর উপজেলার রাজপুর ইউননিয়নে তিস্তা নদীর বামতীরে ক্ষতিগ্রস্ত স্পার-৩ পরিদর্শন করেন। শেষে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, বাংলাদেশ আগে গরীব দেশ ছিলো, প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এখন অর্থনৈতিক ভাবে সাবলম্বী হয়েছে। বাংলাদেশ সরকার ২০৪১ সালের মধ্যে সমৃদ্ধ ও উন্নয়ণশীল দেশ গড়ার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে। সরকার তিস্তা নদীকে নিয়ে মহা পরিকল্পনা গ্রহন করছেন। পরে প্রতিমন্ত্রী আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচায় নদীভাঙ্গন এলাকা পরির্দশন করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) মাহমুদুল হাসান, লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নিবার্হী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান সুজন, স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ, সরকারি কর্মকর্তা, নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত জনগণসহ সাংবাদিক বৃন্দ।

ইত্তেফাক/এসি

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত