যমুনা সার কারখানায় ৬দিন যাবত সার সরবরাহ বন্ধ, দিশেহারা কৃষকরা

যমুনা সার কারখানায় ৬দিন যাবত সার সরবরাহ বন্ধ, দিশেহারা কৃষকরা
যমুনা ফার্টিলাইজার সার কারখানা। ছবি: ইত্তেফাক

জামালপুরের সরিষাবাড়ি উপজেলার তারাকান্দি অবস্থিত যমুনা ফার্টিলাইজার কোম্পানি লিমিটেড (জেএফসিএল)-এর ডিলাররা গত ৬দিন যাবত কারখানা থেকে সার উত্তোলন বন্ধ রেখেছে। ডিলারদের অভিযোগ, আমদানীকৃত সার নিম্নমানের ও জমাটবাধা তাছাড়া ছেড়া-ফাটা বস্তায় ওজনেও কম থাকে সার। এতে ক্ষতিগ্রস্ত তারা সার উত্তোলন বন্ধ রেখেছে। অপরদিকে সার সরবরাহ বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছেন এলাকার কৃষকসহ শত শত ট্রাক পরিবহন শ্রমিকরা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আমদানীকৃত নিম্নমানের জমাটবাধা, ছেড়া-ফাটা বস্তায় ওজনে কম থাকায় ডিলাররা গত ২৩ সেপ্টেম্বর বুধবার থেকে ৬দিন ধরে কারখানা থেকে সার উত্তোলন বন্ধ রেখেছে। দেশের উত্তরবঙ্গসহ ১৯ জেলার প্রায় ২১শ' ডিলার যমুনা সার কারখানা থেকে ইউরিয়া সার উত্তোলন করে জেলায় সরবরাহ করে থাকে। কিন্ত গত ৬দিন যাবত যমুনা সার কারখানার প্রায় ২১শ নিবন্ধিত ডিলার তারা সার উত্তোলন না করে বন্ধ রেখেছেন।

অতিসম্প্রতি ঘাটে ঘটে চাঁদাবাজিসহ একই অভিযোগে ডিলাররা সার উত্তোলন বন্ধ করে দেয়। পরে ডিলারদের সাথে কারখানা কর্তৃপক্ষের আলোচনা হয়। ওই আলোচনায় প্রতি ট্রাকে ১২ মেট্রিকটন সার এর মধ্যে ১০মেঃ টন যমুনা ইউরিয়া সারের সাথে ২ মেঃ টন আমদানী করা জমাট বাধা সার দিবে ডিলারদের এই সমঝোতায় সার উত্তোলন শুরু করে ডিলাররা। কিন্তু ৩৫ দিন যেতে না যেতেই আবারোও একই অভিযোগে গত বুধবার থেকে সার উত্তোলন বন্ধ করে দেয় ডিলাররা। এতে করে বিপাকে পড়েছে এলাকার কৃষকসহ সার সংশ্লিষ্ট কাজে জড়িত শত শত ট্রাক ড্রাইভার-হেলপার, কুলি শ্রমিকসহ ট্রান্সপোর্ট এজেন্সীগুলো।

এ বিষয়ে স্থানীয় বিশিষ্ট ব্যবসায়ী জগন্নাথগঞ্জ ঘাট বণিক সমিতির সভাপতি আলহাজ মোজাম্মেল হক (মুকুল)-এর সাথে কথা হলে তিনি কারখানা কর্তৃপক্ষের দায়িত্বহীনতার অভিযোগ তোলে বলেন- কারখানা কর্তৃপক্ষ ইচ্ছাকৃতভাবে প্রতি বছর হাজার হাজার মে.টন সার খোলা আকাশের নীচে রেখে রোদে পুড়ে- বৃষ্টিতে ভিজে নষ্ট করে কোটি কোটি টাকা ক্ষতি করে থাকে কারখানা কর্তৃপক্ষ। এতে করে একদিকে সরকার ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। অপরদিকে ডিলার এবং প্রান্তিক কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

এক কথায় সার সংরক্ষণ চরম উদাসীনতার রয়েছে কারখানা কর্তৃপক্ষের। প্রতি বর্ষা মৌসুমে খোলা আকাশের নীচে রাখা সার পচে গলে নষ্ট হয়ে সারের পানিতে ভেসে কারখানা আশপাশের হাজার হাজার একর জমির ফসল নষ্ট হয়ে যায়। মরে যায় গাছপাতা পুকুর ও নদীর মাছ। কারখানা কর্তৃপক্ষের এমন উদাসীনতায় হুমকির মুখে পড়েছে এলাকার প্রকৃতি ও জীব বৈচিত্র্য। তিনি আরো বলেন,যেহেতু কারখানা এলাকায় প্রচুর খালী জায়গা রয়েছে সেইসব স্থানে গোডাউন নির্মাণ করে সার সংরক্ষণ করলে একদিকে সরকারের কোটি কোটি টাকা নষ্ট হবে না। অন্যদিকে কৃষকসহ সার বিক্রেতাগণ ক্ষতিগ্রস্ত হবে না। বাঁচবে কারখানার আশপাশের কৃষকের ফসল। বাঁচবে প্রকৃতি ও জীব বৈচিত্র্য।

এ ব্যাপারে যমুনা সার কারখানার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রকৌশলী সুদীপ মজুমদার-এর সাথে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা সার নিয়ে বসে আছি। ডিলাররা না নিলে কী করতে পারি? তিনি আরো বলেন- সার জমাট বাধলেই গুনগত মান নষ্ট হয় না। জমাট বাধা, ছেড়া-ফাটা বস্তার সার রি-ব্যাগিং করে সরবরাহের জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে। তিনি ডিলারদের কাছে দ্রুত সময়ের মধ্যে সার সরবরাহের আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।

ইত্তেফাক/এসআই

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত