বরগুনায় বেড়িবাধেঁর গাছ কেটে সাবাড়

বরগুনায় বেড়িবাধেঁর গাছ কেটে সাবাড়
বরগুনার আমতলীতে কেটে সাবাড় করে ফেলা হচ্ছে বনবিভাগের গাছ। ছবি: ইত্তেফাক

বরগুনার জেলার আমতলী উপজেলার গুলিশাখালী ইউনিয়নের আঙ্গুলকাটা এলাকার তিন কিলোমিটার বেড়িবাঁধে বন বিভাগের সৃজিত সবুজ বেষ্টনির গাছ কেটে সাবাড় করে দিচ্ছে বনদস্যুরা। গত ৭ অক্টোবর আমতলী উপজেলা বনবিভাগ ৭৪ সিএফটি কাঠ জব্দ করলেও এখনও সনাক্ত করা যায়নি বন্যদস্যুদের। এমন ঘটনায় স্থানীয়রা বনবিভাগের উদাসীনতাকেই দায়ি করেছেন।

১৯৬৭ সালে পানি উন্নয়ন বোর্ড গুলিশাখালী ইউনিয়নকে বন্যা জলোচ্ছাস থেকে রক্ষার জন্য বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ নির্মাণ করে। ওই বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের দুই পাশে ১৯৮৮ সালে বন বিভাগ সবুজ বেষ্টনির প্রকল্পের আওতায় বাবলা, আকাশমনি, জেলাপীসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রোপণ করে। গত ১৫ দিন ধরে গুলিশাখালী ইউনিয়নের আঙ্গুলকাটা এলাকার তিন কিলোমিটার বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের সবুজ বেষ্টনির অন্তত দশ লাখ টাকার কেটে নিয়ে গেছে বনদস্যুরা। এদিকে খবর পেয়ে বন কর্মকর্তা ঘটনাস্থল থেকে দায়সারা বাবলা ও আকাশমনি গাছের ডাল পালার ৭৪ সিএফটি কাঠ জব্দ করেছে। কিন্তু মূল গাছের কোনো হদিস নেই।

স্থানীয় মিজানুর রহমান, জাফর খলিফা ও মামুন বলেন, গত ১৫ দিন ধরে বনদস্যুরা প্রকাশ্যে ও রাতে বড়ো বড়ো গাছ কেটে নিয়ে যাচ্ছে। বন বিভাগের লোকজনকে খবর দিলে তারা এসে দেখে যান কিন্তু কোনো পদক্ষেপ নেন না।

আমতলী উপজেলা বন কর্মকর্তা ফিরোজ কবির বলেন, এই বনদস্যুতার সঙ্গে জরিতদের সনাক্ত করতে পারিনি। এ বিষয়ে আমতলী থানায় বন্য আইনে মামলা করা হয়েছে।

আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আসাদুজ্জামান বলেন, বিষয়টি আমি জানি না। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

ইত্তেফাক/এসি

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত