উল্লাপাড়া পৌর নির্বাচন: প্রার্থীদের দৌড় ঝাঁপ ও প্রচরণা শুরু

উল্লাপাড়া পৌর নির্বাচন: প্রার্থীদের দৌড় ঝাঁপ ও প্রচরণা শুরু
ফাইল ছবি

উল্লাপাড়ায় পৌর মেয়র নির্বাচনকে সামনে রেখে ক্ষমতাসীন দলের প্রায় হাফ ডজনেরও উপরে মেয়র প্রার্থীর দৌড় ঝাপ, লবিং, মিটিং, পথ সভা, ভ্যান, মোটরসাইকেল মহড়া শুরু হয়ে গেছে। ক্ষমতাসীন দলের মধ্যে কে পাচ্ছেন দলের নমিনেশন, তা নিয়ে ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গেছে জল্পনা কল্পনা।

সামনে ডিসেম্বরে উল্লাপাড়া পৌর সভার নির্বাচন হবার কথা। এখনো নির্বাচন অফিস থেকে নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করা হয়নি। এরপরও প্রার্থীরা ঘরে বসে নেই। যার যার স্থান থেকে তারা নির্বাচনের প্রচারণা করে যাচ্ছে। প্রচারণায় চাঙ্গা হয়ে উঠছে মাঠের কর্মীরা। ইতিমধ্যেই কর্মীরা তাদের নিজস্ব পছন্দের প্রার্থী পক্ষে অবস্থান নিয়েছে।

এইসব কর্মীরা প্রতিদিন তাদের পক্ষের প্রার্থীদের জন্য পৌর এলাকার বাসিন্দাদের কাছে ভোট চাইছেন। এর মধ্যে কিছু সুবিধা ভোগীকর্মী একাধিক প্রার্থীর জন্য ভোট চাইছে।

প্রতিদিন বিভিন্ন প্রার্থীর মোটরসাইকেল মহড়া, ভ্যান ও রিক্সার মহড়া দিয়ে প্রচারণা চলছে।

জানা গেছে, এইসব প্রার্থীরা দলীয় নমিনেশন পাওয়ার জন্য সংসদ সদস্য তানভীর ইমাম ও দলের শীর্ষ নেতাদের কাছে দৌড় ঝাপ শুরু করেছে। এখন পর্যন্ত দল কাউকে প্রার্থীতা ঘোষণা না করায়, প্রার্থীরা জোরে শোরে প্রচরণায় কে কত এগিয়ে তা প্রদর্শন করার চেষ্টা করছে।

প্রার্থীরা জানান, দলের নমিনেশন নেয়েই তারা নির্বাচনে অংশ নিবেন। অপেক্ষায় রয়েছে কে পাবেন দলের নমিনেশন। যারা প্রচরণায় রয়েছে তারা হচ্ছেন।

সলপ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার শওকত ওসমান পৌর এলাকার বিভিন্ন সভা এলাকা ভিত্তিক বৈঠক করেছেন। সভায় তিনি পৌর এলাকা সংসদ সদস্যর বিভিন্ন উন্নয়নমূলক চিত্র তুলে ধরেন।

অন্যদিকে বর্তমান পৌর মেয়র এসএম নজরুল ইসলাম তার আমলে পৌর সভার উন্নয়নমূলক চিত্র তুলে ধরেন। তিনি ও প্রতিদিন সভা ও মোটরসাইকেল মহড়া দিয়ে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

আমিনুর ইসলাম আরজু প্যানেল মেয়র তিনি জোরেশোরে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। সংসদ সদস্যর উন্নয়ন ধারাকে অব্যহত রাখার জন্য তার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য তিনি ও সবার কাছে ভোট চাইছে।

জাহিদুজ্জামান কাকন একজন ভালো খেলোয়াড় হিসেবে সবার কাছে পরিচিত। ইতিপূর্বে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করেছিলেন। তিনিও প্রচরণায় বেশ এগিয়ে রয়েছে। প্রতিদিন সভা, মিটিং মোটরসাইকেল মহড়া করেছে।

মাহাবুব সরোয়ার বকুল তিনি ও দলের একজন আদর্শ ও ত্যাগী প্রার্থী হিসেবে নিজেকে আগামী দিনের মেয়র প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়েছেন। দলের শীর্ষ নেতাদের সাথে যোগাযোগ করছেন বলে জানা গেছে।

ফয়সাল কাদের রুমি, দলের একজন প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়েছেন। দল যাকে নমিনেশন দিয়ে তার পক্ষে কাজ করবেন বলে জানান। তবে তিনি একজন দলের নিবেদিত প্রাণ। দলের জন্য নিঃসার্থ ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন বলে ইত্তেফাককে তিনি জানান।

আরিফ বিন হাবিব । সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মরহুম এ্যাডঃ মারুফ বিন হাবিবের ছোট ভাই। আরিফ বিন হাবিব দলের নমিনেশন পেলে নির্বাচন করবেন বলে জানান। ইতিমধ্যে তিনি ও বিভিন্ন এলাকায় কুশল বিনিময় শুরু করে দিয়েছে। দলের নমিনেশন নিয়ে মাঠে নামতে চান। সবার কাছে দোয়া চাইছে নমিনেশন নিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে পারেন।

এব্যাপারে আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক গোলাম মোস্তফা সাথে যোগাযোগ করা হলে এবং দলের একাধিক প্রার্থীর সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি ইত্তেফাকে জানান, কেন্দ্রীয়ভাবে কোন নির্দেশনা না পাওয়া প্রর্যন্ত তিনি কিছুই বলতে পারছেন না । অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান কারা কারা দলের প্রার্থী এ তালিকা ও কেন্দ্রীয় ভাবে তাদের কাছে না চাইলে তারা পাঠাবেন না। সব নির্ভর করবে কেন্দ্রীয় কমিটির উপর। তিনিও আরো জানান কেন্দ্রীয়ভাবে যাকে প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দেবেন তার পক্ষেই আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা কাজ করবেন। ভোটাররা তাকিয়ে আছে কে পাচ্ছেন দলীয় নমিনেশন? কে হচ্ছেন পৌর মেয়র?

ইত্তেফাক/আরকেজি

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত