চিকিৎসাসেবার পাশাপাশি ইয়াবার ব্যবসা করেন ডাক্তার

চিকিৎসাসেবার পাশাপাশি ইয়াবার ব্যবসা করেন ডাক্তার
নারী সহযোগীসহ আটক আরিফ মঈন উদ্দিন। ছবি: ইত্তেফাক

আরিফ মঈন উদ্দিন পেশায় একজন এমবিবিএস ডাক্তার। চিকিৎসাসেবার পাশাপাশি নিয়মিত ইয়াবা সেবন করতেন। একপর্যায়ে জড়িয়ে পড়েন খোদ ইয়াবা ব্যবসার সাথেই।

চট্টগ্রামের স্বনামধন্য বেসরকারি মেডিকেল কলেজ ইউএসটিসি হতে ২২তম ব্যাচে এমবিবিএস পাস করেছেন আরিফ মঈন উদ্দিন। বর্তমানে সেখানকার বেসরকারি চিকিৎসাসেবা প্রতিষ্ঠান রয়েল হাসপাতালে কর্মরত তিনি।

প্রথমদিকে তিনি চট্টগ্রামের খুচরা মাদক ব্যবসায়ীদের ইয়াবা সরবরাহ করতেন। পরবর্তীতে প্রতি মাসে পাঁচ থেকে ছয়বার চট্টগ্রাম থেকে ইয়াবা নিয়ে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জসহ আশপাশের এলাকার মাদক ব্যবসায়ীদের কাছে সরবরাহ ও বিক্রয় করতে শুরু করেন।

ডাক্তারি পেশার আড়ালে ইয়াবা ব্যবসার মাধ্যমে প্রচুর টাকা আয় করছেন। বিষয়টি র‌্যাবের নজরে আসে। এরপর থেকে শুরু হয় তার উপর র‌্যাবের গোয়েন্দা নজরদারি।

এরই ধারাবাহিকতায় চট্টগ্রাম থেকে ইয়াবা পাচারের উদ্দেশ্যে বের হয়ে বুধবার রাত সাড়ে নয়টায় নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল এলাকায় নারী সহযোগীসহ র‌্যাবের হাতে আটক হন ডা. আরিফ মঈন উদ্দিন। এসময় তার কাছ থেকে উদ্ধার হয় ৭ হাজার ৮শ' ৫০ পিস ইয়াবা।

বৃহস্পতিবার বিকালে র‌্যাব-১১-এর কোম্পানি কমান্ডার ও সিনিয়র সহকারি পরিচালক মো. জসিম উদ্দীন চৌধুরী (পিপিএম) স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব এসব তথ্য জানিয়েছে।

র‌্যাব জানায়, আরিফ মঈন উদ্দিন মহান ডাক্তারি পেশার আড়ালে আর্থিকভাবে দ্রুত লাভবান হওয়ার জন্য কৌশলে ইয়াবা ব্যবসার সিন্ডিকেট গড়ে তোলেন। তার এই অবৈধ মাদক ব্যবসার সিন্ডিকেটের সাথে একাধিক নারী ও পুরুষ সহযোগী হিসেবে জড়িত রয়েছে বলে জিজ্ঞাসাবাদে আরিফ স্বীকারও করেছেন।

র‌্যাব আরো জানায়, ইয়াবা ব্যবসার করতে গিয়ে সম্প্রতি জুলি আক্তার রুপা নামে এক নারীর সাথে তার পরিচয় হয় এবং ওই নারী তার সহযোগী হিসেবে কাজ করতে থাকেন। আরিফ মঈন উদ্দিন তাকে নিয়ে চট্টগ্রামের খুলশী এলাকায় একটি ফ্ল্যাট বাসা ভাড়া নিয়ে একসাথে বসবাস করার পাশাপাশি ইয়াবার ব্যবসা চালিয়ে আসছেন।

র‌্যাব জানায়, মাদক ব্যবসায়ী আরিফ মঈন উদ্দিন ১৫ অক্টোবর চট্টগ্রাম হতে ভাড়া করা একটি প্রাইভেটকারে চড়ে ঢাকায় ইয়াবা নিয়ে আসছেন এমন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১১-এর একটি দল রাতে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থানার শিমরাইল এলাকায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে চেকপোস্ট স্থাপন করে।

রাত সাড়ে তিনটার সময় চেকপোস্টে বিভিন্ন গাড়ি থামিয়ে তল্লাশিকালে চট্টগ্রাম হতে ঢাকাগামী একটি প্রাইভেটকার থেকে ৭ হাজার ৮শ' ৫০ পিস ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আরিফ মঈন উদ্দিন (৩০) ও তার সহযোগী জুলি আক্তার রুপাকে (২৮) আটক করা হয়।

গ্রেফতারকৃত আসামিদের বিরুদ্ধে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মামলার কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে র‌্যাব জানিয়েছে।

ইত্তেফাক/জেডএইচ

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত