ছোট ভাইয়ের প্রেমিকাকে ছিনিয়ে নিয়ে বড় ভাইয়ের ধর্ষণ

ছোট ভাইয়ের প্রেমিকাকে ছিনিয়ে নিয়ে বড় ভাইয়ের ধর্ষণ
গ্রেফতার তিনজন।

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলায় আবারো গণধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। বিধবা নারীর পর এবার মাদ্রাসার ছাত্রী কিশোরী (১৪) গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। ভালবাসার টানে মাদ্রাসারছাত্রী ঘর থেকে বের হয়ে ছিল প্রেমিকের সাথে। পথিমধ্যে জোর করে ছিনিয়ে নিয়ে প্রেমিকের বড় ভাইসহ একবন্ধু মিলে কিশোরীকে গণধর্ষণ করে।

বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার ব্রাহ্মন্দী এলাকায় অভিযান চালিয়ে প্রতারক প্রেমিকসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় কিশোরীর মা বাদী হয়ে আড়াইহাজার থানায় মামলা দায়ের করেছে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো আড়াইহাজার উপজেলার ব্রাহ্মন্দী এলাকায় মোতালিবের ছেলে নজরুল ইসলাম (২৫) তার বড় ভাই বাদল (৩৭) একই এলাকার মধ্যপাড়ার আবুল হোসেনের ছেলে মুছা (২৪)।

মামলার সূত্রে জানা গেছে, আড়াইহাজার উপজেলার ডহর মারুয়াদী এলাকার স্থানীয় মহিলা মাদ্রাসার ৮ম শ্রেণির ছাত্রী। সে মাদ্রাসায় আবাসিক হিসাবে থেকে মাদ্রাসায় লেখাপড়া করে। নজরুল নিজের পরিচয় গোপন করে ছদ্মনামে ‘সাগর’ পরিচয়ে কিশোরীর সাথে মোবাইলে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। গত ১২ অক্টোবর মাদ্রাসার ট্যাংকি পরিস্কার করার সুবাধে কিশোরী গোসল করতে বাসায় আসে। পরে সন্ধা ৭ টার তার মা পরীক্ষার ফি এর টাকা দিয়ে মাদ্রাসায় পাঠিয়ে দেয়। তার আধা ঘন্টা পর কিশোরীর মা মাদ্রাসায় গিয়ে জানতে পারে তার মেয়ে মাদ্রাসায় যায়নি। ঐ দিন নজরুল কিশোরীকে ফুসলিয়ে বাড়ি হতে বের করে দেখা করে। তখন নজরুলের আসল পরিচয় গোপন করে সাগর নামে প্রেমের সম্পর্ক করে। এতে করে কিশোরী চলে আসতে চাইলে তাকে আসতে দেয়নি। তাকে একটি জায়গায় নজরুল ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। পরে নজরুলের বড় ভাই বাদল ও মুছা কিশোরীকে নজরুলের সাথে দেখে তাকে জিজ্ঞেস করে তুমি কোথায় আসছো, নজরুল তো বাদল না। নজরুলকে শাসিয়ে কিশোরীকে বাড়িতে পৌঁছে দিবে বলে নজরুলকে তাড়িয়ে দেয়। ঐ দিন রাত সাড়ে ৮ টার দিকে উপজেলার ব্রাহ্মন্দী রবিন্দ্র বাবুর পুকুর পাড়ের একটি জঙ্গলে নিয়ে পালাক্রমে বাদল ও মুছা ধর্ষণ করে। পরে তারা কিশোরীকে তাড়িয়ে দেয়। লোকলজ্জার ভয়ে কিশোরী বাড়িতে না গিয়ে অন্য স্থানে চলে যায়। আর ১৫ অক্টোবর কিশোরী ঘটনার বিষয় তার বাবা মাকে বিস্তারিত জানায়। পরে মেয়েকে নিয়ে মা আড়াইহাজার থানায় গিয়ে মামলা দায়ের করে। আর মামলা দায়েরের পর বৃহস্পতিবার রাতেই তিনজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

কিশোরীর মা জানান, তার মেয়েকে নজরুল অপহরণ করে নিয়ে গিয়েছিল। আমরা প্রথমে থানায় অপহরণের অভিযোগ দায়ের করেছিলাম। বৃহস্পতিবার মেয়ে যখন যোগাযোগ হলে তাকে নিয়ে এসে জানতে পারি নজরুলের কাছ থেকে ছিনিয়ে তার বড় ভাই সহ তার সহযোগী কিশোরী মেয়েকে ধর্ষণ করে। তিনি আসামীদের কঠিন শাস্তি চাই।

আড়াইহাজার থানার ওসি নজরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আসামিদের সাতদিনের রিমান্ড চেয়ে শুক্রবার কোর্টে প্রেরণ করা হয়েছে।

ইত্তেফাক/এমআরএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত