ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে সরকারি খাল দখলের অভিযোগ

ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে সরকারি খাল দখলের অভিযোগ
ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে সরকারি খাল দখলের অভিযোগ।ছবি: ইত্তেফাক

রাজশাহীর বাগমারায় হামিরকুৎসা ইউনিয়নের যশোর বিলের সরকারি খাল দখলের অভিযোগ উঠেছে একই ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা আনোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে। তিনি তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। ওই ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনসহ প্রভাবশালী কয়েক জনের বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর পক্ষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দপ্তরের লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার যোগীপাড়া ও হামিরকুৎসা ইউনিয়নের মধ্য দিয়ে যশোর বিলের খালটি পানি নিষ্কাশন ও কৃষকের ফসলে পানি সেচের জন্য ব্যবহৃত হয়। বিলের পানি নিষ্কাশনের জন্য গত বছরে সরকারিভাবে খালটি খনন করা হয়। ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন তার ক্যাডার বাহিনী দিয়ে হামিরকুৎসা ইউনিয়নের প্রায় দেড় কিলোমিটার এলাকা বাঁশের বানা ও জাল দিয়ে ঘিরে জেলেদের মাছ মারা বন্ধ করে দেয়। খালটি জনগণ ও জেলেদের মাছ মারার জন্য উন্মুক্ত রাখার কথা থাকলেও ইউপি চেয়ারম্যান নিজের স্বার্থের জন্য ক্যাডার বাহিনী দিয়ে মাছ ধরা বন্ধ রাখে। মাছ ধরতে না পেরে এলাকার অনেক জেলেরাই অসহায়ভাবে জীবন যাপন করছে বলে জানা গেছে। খালে বেড়া দেয়ার পর থেকেই কোন জেলে বা এলাকার কোন জনগণকে মাছ শিকার করতে দেয়নি বলে এলাকার লোকজন অভিযোগে উল্লেখ করেছেন।

নাম জানাতে অনিচ্ছুক এলাকার কয়েকজন প্রবীণ ব্যক্তি জানান, ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিভিন্ন ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, যুবলীগসহ অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে তিনি খালটি অবৈধভাবে দখল করেছেন। অবিলম্বে তারা খালটি উন্মুক্ত করে এলাকার জনগণ ও জেলেদের মাছ ধরার সুযোগ সৃষ্টি করতে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

আরো পড়ুন: গ্লোব বায়োটেকের ভ্যাকসিনকে ‘বঙ্গভ্যাক’ নাম রাখার প্রস্তাব

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে হামিরকুৎসা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা আনোয়ার হোসেন বলেন, আমি খাল দখল ও বেড়া নির্মাণের সাথে জড়িত নই। তার কিছু ব্যক্তিবর্গ জড়িত থাকায় এলাকার কিছু ব্যক্তি তাকে বেকায়দায় ফেলার জন্য এমন কর্মকাণ্ড করছেন বলে তিনি জানিয়েছেন।

যোগাযোগ করা হলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শরিফ আহম্মেদ অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, খালের বেড়া সরানোর জন্য ইউপি চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিষয়টি গুরুত্বে সাথে দেখা হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

ইত্তেফাক/এএএম

Nogod
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত