ছেলের হাতে সৎ মা খুন: আসামি হলেন ইউপি মেম্বার!

ছেলের হাতে সৎ মা খুন: আসামি হলেন ইউপি মেম্বার!
মহেশখালী থানা। ছবি: সংগৃহীত

কথা-কাটাকাটির জেরে স্বামীর প্রথম পক্ষের ছেলের কোদালের আঘাতে খুন হয়েছেন সৎ মা খুন হয়েছে। গত ২৬ এপ্রিল ভোর রাত ২ টায় মহেশখালীর কালারমারছড়া ইউনিয়নের পূর্বগোদার পাড়া গ্রামে হামলার ঘটনায় আহত সৎ মা চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার (১ মে) সকালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান।

ওইদিন সন্ধ্যায় তাকে দাফনের পরদিন রবিবার (২ মে) নিহতের ভাই বাদি হয়ে ৮ জনের বিরুদ্ধে মহেশখালী থানায় মামলা করেছেন। আর পারিবারিক কলহে নিহতের ঘটনা ঘটলেও মামলায় ভিন্ন গ্রামের ওয়ার্ড মেম্বারকেও আসামি করায় এলাকায় সমালোচনা চলছে।

স্থানীয় সুত্র জানায়, কালারমারছড়ার পূর্বগোদার পাড়া পাহাড়ি এলাকার বাসিন্দা আক্তার হোসেন এর দ্বিতীয় স্ত্রী মুশিদা বেগমের সাথে তার প্রথম পক্ষের ছেলে আব্দুল হান্নানের কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে হান্নান কোদাল নিয়ে সৎ মা মুশিদা বেগমকে আঘাত করে। এতে মুশিদা গুরুতর আহত হলে স্বামী ও সন্তানরা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল পরে চট্টগ্রাম মেডিকেলে নিয়ে ভর্তি করায়। র্দীঘ ৭ দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর শনিবার সকাল সাড়ে ৮ টায় মুশিদা বেগম মারা যায়। এদিকে এঘটনাকে কেন্দ্র করে নিহতের ভাই জহির বাদি হয়ে স্থানীয় ইউপি মেম্বার আমির হোসেনসহ ৮ জনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করে। একটি পারিবারিক বিষয় নিয়ে স্থানীয় মেম্বারকে আসামি করায় এলাকাজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

নিহতের প্রতিবেশি মিরাজু, হালিমা, বাপ্পীসহ অনেকেই জানান, তাদের একান্ত পারিবারিক কলহে হামলা ও খুনের ঘটনা ঘটে। তাদের ঘটনার মামলায় বাইরের কাউকে আসামি করা খুবই রহস্য ও দুঃখজনক।

কালারমারছড়ার ৯নং ইউপি সদস্য আমির হোসেন বলেন, আমার ওর্য়াডটি খুৃব বড়, এখানে সাড়ে ৬ হাজার ভোটার এবং বেশকিছু পাহাড়ি এলাকা রয়েছে। যেখানে মা-ছেলের সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটে তা আমার বাড়ির প্রায় দু'কিলোমিটার দূরে। রাতে সংগঠিত ঘটনার ব্যাপারে পরদিন বাজারে স্থানীয় মানুষের কাছ থেকে শুনেছি। এই মামলায় আমাকে আসামি করা রাজনৈতিক শত্রুতা ছাড়া আর কিছু নয়। নিহত পরিবারের কারো সাথে আমার আত্মীয়তা কিংবা শত্রুতা নেই। নিরপেক্ষ ও সঠিক তদন্ত হলে আমার বিষয়টি পরিস্কার হয়ে যাবে বলে আমার বিশ্বাস।

মহেশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মর্কতা আবদুল হাই জানান, এই ঘটনায় মামলা রুজুর পর ঘাতক হান্নানকে ধরতে পুলিশের অভিযান চলছে। তদন্ত ঘটনার সাথে নেই এমন কাউকে পাওয়া গেলে তাদের বাদ দেওয়া হবে বলে উল্লেখ করেন ওসি।

ইত্তেফাক/এসজেড

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x