যেভাবে হোক বাড়ি যেতেই হবে

যেভাবে হোক বাড়ি যেতেই হবে
শিমুলিয়া ঘাটে ফেরির জন্য অপেক্ষারত ঘরমুখী মানুষের ঢল। ছবি: আব্দুল গণি

আসন্ন ঈদকে কেন্দ্র করে দেশের দক্ষিণবঙ্গের ঘরমুখী মানুষের চাপ দেখা দিয়েছে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ফেরিঘাটে। আজ সোমবার (১০ মে) ভোর থেকেই গন্তব্যে পৌঁছাতে শিমুলিয়া ঘাট এলাকায় এসে জড়ো হচ্ছেন যাত্রীরা। বেলা বাড়ার সাথে সাথে এই ভিড়ও বাড়তে থাকে। একইভাবে রাতেও মানুষের ঢল নেমেছিলো শিমুলিয়া ঘাটে।

বিভিন্ন স্থানে বিজিবির চেকপোস্ট থাকা সত্ত্বেও নানা কৌশলে দক্ষিণাঞ্চলগামী হাজার হাজার মানুষ ঘাটে আসছেন। তাদের সবার লক্ষ্য, যেভাবে হোক বাড়ি যেতেই হবে।

এছাড়া ফেরিঘাটের আশপাশে থেকে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই জেলে নৌকাসহ ট্রলারে যাত্রীরা পদ্মা পার হওয়ার চেষ্টা করে।

ফেরিঘাটে দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তা মো. জিয়া বলেন, রবিবার দিবাগত রাত ২টার দিকে শিমুলিয়া ঘাটে পারাপারের অক্ষোয় ছিল ছোট আকারের প্রায় ২০০ যান। একই সময়ে অপেক্ষায় ছিলো চার শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান। দিনভর ফেরি প্রায় বন্ধ থাকার পর এর আগে রাত সাড়ে ৭টার দিকে ফেরি চলাচল শুরু হয়। প্রথমেই পারাপার করা হয় অ্যাম্বুলেন্স।

রবিবার সকাল ১০টা পর্যন্ত মাত্র ২টি ফেরি শিমুলিয়া ঘাট থেকে ছেড়ে যায়। এরপর দীর্ঘ সময় ফেরি বন্ধ থাকায় ঘাটে ও চেক পোস্টে আটকে ছিলো অন্তত ৪০টি অ্যাম্বুলেন্স ও লাশবাহী গাড়ি। পদ্মা পাড়ি দেওয়ার জন্য আকুতি করছিলেন তারা। তবে দিনের বেলায় কোনোভাবেই আর ফেরি চলাচল করবে না বলে জানায় বিআইডব্লিউটিসি।

ইত্তেফাক/কেকে

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x