অপ্রীতিকর ঘটনার আশঙ্কা

টেকনাফ সড়কের বাঁকে বাঁকে রোহিঙ্গাদের দোকান

টেকনাফ সড়কের বাঁকে বাঁকে রোহিঙ্গাদের দোকান
টেকনাফ সড়কের বাঁকে বাঁকে রোহিঙ্গাদের দোকান। ছবি : ইত্তেফাক

রোহিঙ্গা অধ্যুষিত এলাকা উখিয়া টেকনাফ সড়কের বাঁকে বাঁকে হাজারেরও অধিক অপরিকল্পিত দোকানপাট গড়ে তোলা হয়েছে। পথচারীদের সংখ্যা এসব বাঁকে যেকোনো সময়ে মারাত্মক দুর্ঘটনা বা অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে পারে। যা নিয়ে প্রাণহানির আশঙ্কা করছে স্থানীয়রা

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উখিয়া সদরের এক কিলোমিটার মহুরীপাড়া থেকে পালংখালী ইউনিয়নের বালুখালী পর্যন্ত প্রায় হাজারেরও অধিক অবৈধ দোকানপাট গড়ে তোলা হয়েছে। সড়ক ও জনপদ বিভাগের জায়গা দখল করে গড়ে তোলা এসব দোকানের ছবি ধারণ করতে গেলে ১০/১২ জন রোহিঙ্গা তেড়ে আসে।

স্থানীয় বাসিন্দা ইসহাক সওদাগর অভিযোগ করে জানান, অধিকাংশ দোকানের মালিক হচ্ছে রোহিঙ্গারা। যদিওবা জমি বন বিভাগের নিয়ন্ত্রণে তথাপিও এখানে বনকর্মীদের হস্তক্ষেপ করার কোনো সুযোগ নেই।

সুশাসনের জন্য নাগরিক সুজন উখিয়া শাখার সভাপতি নুর মোহাম্মদ সিকদার বলেন, বনবিভাগ সংলগ্ন সড়ক দখল করে অবৈধভাবে গড়ে উঠা দোকান গুলোতে রাতের বেলায় জমজমাট বেচা কেনা হয়। কী ধরণের পণ্য লেনদেন হয় জানতে চাওয়া হলে ওই নেতা বলেন, নেশা জাতীয় দ্রব্য বিক্রির কারণে এখানে যুবক শ্রেণির আড্ডায় এলাকা সরগরম হয়ে উঠে। মাঝে মধ্যে নেশাখোরদের মধ্যে বিচ্ছিন্ন ঘটনাও ঘটে থাকে।

উখিয়া বনরেঞ্জ কর্মকর্তা গাজী মো. শফিউল আলম জানান, অল্প সংখ্যক লোকবল নিয়ে বিশাল জনগোষ্ঠীর দখলদারিত্ব ঠেকানো অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। তথাপিও অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হচ্ছে।

কক্সবাজার সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী খন্দকার গোলাম মোস্তফা জানান, সড়কের আশেপাশে যেসব দোকানপাট গড়ে তোলা হয়েছে তা অচিরেই উচ্ছেদ করা হবে।

ইত্তেফাক/এমএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x