১০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করতে গার্মেন্টসকর্মীর ছিনতাই নাটক

১০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করতে গার্মেন্টসকর্মীর ছিনতাই নাটক
রিপন ও তার বন্ধু মো. সেলিম।

টাকা আত্মসাৎ করতে ছিনতাই নাটক সাজিয়েও শেষ রক্ষা হয়নি। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আসল ঘটনা বেরিয়ে এসেছে। ধরা পড়েছেন চট্টগ্রামের জুবিলি রোডের ক্লিফটন গার্মেন্টসের অফিস সহকারী মো. আব্দুর রহিম ওরফে রিপন ও তার বন্ধু মো. সেলিম। এ সময় তাদের কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়।

১২ সেপ্টেম্বর ব্র্যাক ব্যাংকের কাজীর দেউড়ি শাখা থেকে ১০ লাখ টাকা তুলে অফিসে না গিয়ে নিখোঁজ হয়ে যায়। অফিসের মহাব্যবস্থাপক ওয়াহিদ ব্যাংকে গিয়ে পিয়ন রিপনকে না পেয়ে কোতোয়ালি থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। রিপন শরীরে বিভিন্ন স্থানে ও মাথায় ব্যান্ডেজ লাগিয়ে অসুস্থতার ভ্যান করে নগরীর ন্যাশনাল হাসপাতালে ভর্তি হন। খবর পেয়ে কোতোয়ালি থানা পুলিশ হাসপাতালে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে। জিজ্ঞাসাবাদে রিপন জানায়, ১০ লাখ টাকা উত্তোলনের পর সে নুপুর মার্কেটস্থ স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকে জমা দেওয়ার জন্য নুপুর মার্কেটের সামনে গেলে ডিবি পরিচয়ধারী ২ জন ব্যক্তি তার নামে ওয়ারেন্ট আছে বলে একটি অটোরিকশায় তুলে নেয়। পরবর্তীতে বিআরটিসি মোড়ে গিয়ে তার কাছ থেকে মোবাইল, মানিব্যাগ ছিনিয়ে নেয়। এক পর্যায়ে তাকে বায়েজিদ লিংক রোডে নিয়ে গেলে সে পানি খেতে চায়। পানি খাওয়ার পরে অজ্ঞান হয়ে যায়। এরপর আর সে কিছুই জানে না। পরদিন ১৩ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা ৭টার দিকে জ্ঞান ফিরলে সে নিজেকে অলংকার এলাকার একটি ঝোপের ভিতরে পড়ে আছে দেখতে পায়। সে বুঝতে পারে তার কাছে থাকা ১০ লাখ টাকা, মোবাইল ও মানিব্যাগ ডিবি পরিচয়ধারী ২ ব্যক্তি নিয়ে গেছে। এরপর একজন বৃদ্ধের সহযোগিতায় অটোরিকশা নিয়ে সে বাসায় চলে যায়। এরপর বাসার লোকজন তাকে প্রথমে চমেক হাসপাতালে নিয়ে যায় এবং সেখান থেকে পরে ন্যাশনাল হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করায়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মো. ইকবাল হোসেন ভূঁইয়া জানান, হাসপাতালে গিয়ে তাকে বিছানায় শুয়ে থাকা অবস্থায় পাওয়া যায়। পরবর্তীতে কর্তব্যরত ডাক্তারের সঙ্গে কথা বললে শারীরিক অবস্থা ভাল বলে জানা যায়। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়। কিন্তু তার বক্তব্যের সঙ্গে বাস্তবতার মিল না পাওয়ায় তাকে বারবার জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এক পর্যায়ে ছিনতাইয়ের নাটক সাজানোর কথা স্বীকার করে রিপন।

ইত্তেফাক/ইউবি

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x