ফরিদপুরে নৌবন্দর এলাকায় পদ্মার ভাঙন

ফরিদপুরে নৌবন্দর এলাকায় পদ্মার ভাঙন
ফরিদপুর: সিঅ্যান্ডবি ঘাট নৌবন্দর এলাকায় ভাঙন —ইত্তেফাক

ফরিদপুর সিএন্ডবি ঘাট নৌবন্দর এলাকার পদ্মা নদীতে হঠাৎ ভাঙন দেখা দিয়েছে। বৃহস্পতিবার জরুরি ভিত্তিতে জিও ব্যাগ ফেলে ভাঙন ঠেকানোর চেষ্টা করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। সরেজমিনে দেখা গেছে, সদর উপজেলার ডিক্রিরচর ইউনিয়নে আইজুদ্দিন মাতব্বরের ডাঙ্গি সংলগ্ন ভাঙন এলাকায় হুমকিতে রয়েছে সড়ক। এর পাশেই রয়েছে বসতবাড়ি ও গাছপালা। ফলে ভাঙন আতঙ্কে দিন কাটছে স্থানীয় বাসিন্দাদের।

স্থানীয় বাসিন্দা শামসু ব্যাপারী বলেন, সিসি ব্লকে হঠাৎ ভাঙন দেখা দিয়েছে। বুধ ও বৃহস্পতিবার ভাঙন তীব্র হয়। নৌ-বন্দর এলাকার বালু ব্যবসায়ী মিঠুন মোল্লা বলেন, সিএন্ডবি ঘাটে যেভাবে ভাঙন শুরু হয়েছে, এটা অব্যাহত থাকলে ঘাটের শ্রমিক ও বালু ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। স্থানীয়রা আরও জানান, পদ্মার তীব্র স্রোতে পানি ঘুরপাক খেয়ে ভাঙনের ঐ স্থানে সরাসরি ধাক্কা খাচ্ছে। গত তিন দিন যাবত অল্প অল্প ভাঙন দেখা দিয়েছে। বৃহস্পতিবার ভাঙন প্রতিরোধে নির্মিত সিসি বাঁধেও ভাঙন দেখা দেয়। পরে জিও ব্যাগ ফেলে প্রতিরোধ করার চেষ্টা করা হয়েছে। গত বুধবার রাত ও গতকাল বৃহস্পতিবার সিসি ব্লক বাঁধের পাশের অন্তত ৫০ মিটার এলাকা হঠাত্ ধসে নদীগর্ভে চলে যায়। সকাল থেকে তারা আতঙ্কে রয়েছেন ভাঙনের গতি প্রকৃতি নিয়ে। নৌবন্দর এলাকায় ভাঙনের খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জিও ব্যাগ ফেলার কাজ শুরু করেন।

ডিক্রিরচর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান মিন্টু জানান, গত সোমবার থেকে অল্প পরিসরে ভাঙন দেখা দেয়। মঙ্গলবার ও বুধবার ভাঙন প্রতিরোধে নির্মিত সিসি ব্লকে ধস দেখা দেয়। বৃহস্পতিবার বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ফেলে ভাঙন রোধ করা সম্ভব হয়েছে। গত বুধবার রাত ও বৃহস্পতিবার সকালে সিসি ব্লক বাঁধের পাশের প্রায় ৫০ মিটার ধসে গেছে। স্থানীয়দের কাছ থেকে জানতে পেরে জেলা প্রশাসক ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের জানিয়েছি। তারা বৃহস্পতিবার এসে পরিদর্শন করে ভাঙনের স্থানে জিও ব্যাগ ফেলার সিদ্ধান্ত নেন।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের সহকারী প্রকৌশলী মনিরুল ইসলাম জানান, ভাঙন প্রতিরোধে অস্থায়ীভাবে জরুরি ভিত্তিতে জিও ব্যাগ ফেলার কাজ শুরু করেছেন। তীব্র স্রোত ও পানির গভীরতা বেশি থাকায় এই মুহূর্তে স্থায়ীভাবে কোনো কাজ করা সম্ভব নয়। পানি কমলে নৌবন্দর রক্ষায় স্থায়ী পদক্ষেপ গ্রহণ করা যেতে পারে।

ইত্তেফাক/এসআই

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x