ঢাকা সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০১৯, ৯ বৈশাখ ১৪২৬
৩৩ °সে

৮ বছর পর যুবলীগ নেতা বিথার হত্যায় চার্জ গঠন

৮ বছর পর যুবলীগ নেতা বিথার হত্যায় চার্জ গঠন
যুবলীগ নেতা ইকবাল বিথার। ফাইল ছবি।

প্রায় ৮ বছর পর যুবলীগের কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান ও কেসিসির ২৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর শহীদ ইকবাল বিথার হত্যা মামলার চার্জ গঠন করেছেন খুলনার অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালত। বৃহস্পতিবার মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান পপলুসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়। আগামী ১৫ এপ্রিল মামলার সাক্ষ্য গ্রহণের দিন ধার্য করা হয়েছে। এর মাধ্যমে আলোচিত এই হত্যা মামলার বিচার কার্যক্রম শুরু হলো।

মামলায় অভিযুক্ত অন্য আসামিরা হলেন, জীবন ওরফে শবে কাদির, লিয়াকত আলী শিকদার, মনিরুজ্জামান মাসুদ ওরফে তোতা মাসুদ, একরাম হোসেন ওরফে সিয়াম ওরফে আকাশ এবং সুমন হোসেন ওরফে রাজু।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০০৯ সালের ১১ জুলাই রাতে নগরীর মুসলমান পাড়ার মেট্রোপলিটন ক্লিনিকের সামনে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত হন শহীদ ইকবাল বিথার। এ ঘটনায় তার শ্যালক মো. রফিউদ্দিন বাদী হয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামী করে ১২ জুলাই সদর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এ হত্যা মামলাটি প্রথমে খুলনা সদর থানা পুলিশ এরপর নগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) তদন্ত করে। এক পর্যায়ে মামলাটি ২০১০ সালে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মনিটরিং সেলের পর্যবেক্ষণ সেলে যায়।

হত্যাকাণ্ডের ৪ বছর ৩ মাস পর ২০১৩ সালের ১০ অক্টোবর খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সাংসদ মিজানুর রহমান মিজান, যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা এস, এম মেজবাহ হোসেন বুরুজ, মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক আনিসুর রহমান পপলুসহ নয়জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগ পত্র দেওয়া হয়।

কিন্তু বাদী-বিবাদীদের আবেদনের প্রেক্ষিতে অভিযোগ পত্রটি গ্রহণ না করে অধিকতর তদন্তের জন্য সিআইডিকে নির্দেশ দেন আদালত। ২০১৪ সালের ১ আগস্ট সিআইডির সম্পূরক চার্জশিটে সাংসদ মিজান ও যুবলীগ নেতা বুরুজের নাম বাদ দেওয়া হয়। এর বিরুদ্ধে নারাজি আবেদন করেন মামলার বাদী। আদালত এই আদেশ খারিজ করে দিলে বাদীপক্ষ উচ্চ আদালতে আবেদন করেন।

খুলনার অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর কাজী সাব্বির আহমেদ জানান, গত সপ্তাহে বাদীপক্ষ উচ্চ আদালতে তাদের রিভিউ আবেদন তুলে নেওয়ার কথা জানান। বৃহস্পতিবার আসামি আনিসুর রহমান পপলুর পক্ষে চার্জ গঠন থেকে নাম বাদ দেওয়ার আবেদন করেন তার আইনজীবী। দীর্ঘ শুনানি শেষে আদালত আসামির আবেদন নাকচ করে দেন এবং জীবিত ৬ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন।

আরো পড়ুন: রোহিঙ্গাদের জন্য ৫০ মিলিয়ন ডলার দেবে বিশ্ব ব্যাংক ও কানাডা

তিনি জানান, সর্বশেষ চার্জশিটে এই মামলার আসামি ছিলো সাতজন। এর মধ্যে মাসুদ রানা নামের একজনকে ২০১৪ সালের ৩০ অক্টোবর কুপিয়ে হত্যা করা হয়। বাকি ৬ জনের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন এবং আগামী ১৫ এপ্রিল সাক্ষ্য গ্রহণের দিন ধার্য করা হয়েছে।

ইত্তেফাক/অনি

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২২ এপ্রিল, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন