ডুমুরিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী নির্বাচিত

প্রকাশ : ১৯ জুন ২০১৯, ০৪:৩৫ | অনলাইন সংস্করণ

  খুলনা অফিস ও ডুমুরিয়া সংবাদদাতা

গাজী এজাজ আহমেদ

ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) প্রার্থী গাজী এজাজ আহমেদ (ঘোড়া) ৮২ হাজার ৮১০ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামী লীগ মনোনীত, গুটুদিয়া ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান মোস্তফা সরোয়ার (নৌকা) প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪৩ হাজার ৬২০ ভোট । এর আগে মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত কঠোর নিরাপত্তায় বিরতিহীনভাবে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান গাজী এজাজ আহমেদ ডুমুরিয়া উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মরহুম গাজী আব্দুল হাদীর ছেলে।

অপরদিকে, ভাইস চেয়ারম্যান পদে গাজী আব্দুল হালিম (টিয়া পাখি) ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে শারমিন পারভীন রুমা (কলস) বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

ডুমুরিয়া উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে ৭ প্লাটুন বিজিবি এবং ৪ প্লাটুন র‌্যাবসহ আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিপুলসংখ্যক সদস্য মোতায়েন করা হয়। মোট ৯৪টি কেন্দ্রে  ২ লাখ ৪৪ হাজার ৫৭৬জন ভোটার ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত ৩১ মার্চ ডুমুরিয়া উপজেলায় নির্বাচনের দিন নির্ধারণ করা ছিল। কিন্তু আওয়ামী লীগ মনোনীত দুই প্রার্থীর মধ্যে ‘নৌকা’ প্রতীক বরাদ্দ দেয়ার জেরে রীটের প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট নির্বাচন স্থগিত করেন। বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ গত ২৭ মার্চ এই আদেশ দেন। এর আগে ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাচনে মোস্তফা সরোয়ার এবং শাহনেওয়াজ হোসাইন জোয়ার্দারকে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে প্রাথমিকভাবে মনোনয়ন দেয় আওয়ামী লীগ। এরপর শাহনেওয়াজ হোসাইন জোয়ার্দারকে চূড়ান্ত মনোনয়ন দেয়া হয়। কিন্তু পরে রিটার্নিং অফিস থেকে মোস্তফা সরোয়ারকে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়। এরপর রিটার্নিং অফিসের প্রতীক বরাদ্ধের ওই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে গত ৭ মার্চ আপিল আবেদন জানান শাহনেওয়াজ হোসাইন জোয়ার্দার। সে আপিল আবেদন নিষ্পত্তি না হওয়া সত্তে¡ও নির্বাচন প্রক্রিয়া চলমান থাকায় হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন প্রার্থী শাহনেওয়াজ হোসাইন। সে রিটের শুনানি নিয়ে আদালত নির্বাচন স্থগিত করাসহ রুল জারি করেন।

ইত্তেফাক/আরকেজি