চট্টগ্রাম বন্দর ও বিমানবন্দর সড়কে নজিরবিহীন যানজট

প্রকাশ : ১৭ জুলাই ২০১৯, ০২:১৬ | অনলাইন সংস্করণ

  চট্টগ্রাম অফিস

একদিকে গণপরিবহন, অন্যদিকে বন্দরে পণ্য আনা-নেওয়ায় নিয়োজিত যানবাহনের চাপে নৌবন্দর ও বিমানবন্দর সড়ক যানজটে স্থবির হয়ে পড়ে। ছবি: ইত্তেফাক

চট্টগ্রাম বন্দর ও বিমানবন্দর সড়কে গত কয়েকদিন ধরে নজিরবিহীন যানজট দেখা যাচ্ছে। তখন সম্পূর্ণ স্থবির হয়ে পড়ে সড়ক। ফলে বিমানবন্দরগামী বিভিন্ন ফ্লাইটের অনেক যাত্রী সময়মতো তাদের ফ্লাইট ধরতে পারে না। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে বিমানবন্দরে পৌঁছতে গিয়ে যাত্রীদের সীমাহীন দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে।

পতেঙ্গা, কাটগড়, দক্ষিণ হালিশহর এলাকার জনসাধারণ ভীষণ ভোগান্তি পোহাচ্ছেন। অন্যদিকে চট্টগ্রাম বন্দরের পণ্য পরিবহনকারী বিভিন্ন ধরনের যানবাহনও যানজটে আটকা পড়ছে। এতে পণ্য আনা নেওয়ার ক্ষেত্রে সময় মেনে চলা যাচ্ছে না।

ইদানিং বিপুলসংখ্যক গণপরিবহন যানজটে পড়ে থাকে। ঘর হতে বের হয়ে গন্তব্যে পৌঁছতে যাত্রীদের তখন ঘণ্টার পর ঘণ্টা রাস্তাতেই কাটাতে হচ্ছে।

এই যানজট পরিস্থিতিতে পণ্য পরিবহনে ব্যাঘাত সৃষ্টি হওয়ায় বিজিএমইএসহ চট্টগ্রামের শীর্ষস্থানীয় ব্যবসায়ীরা গত কয়েকদিন ধরে উদ্বেগ-উত্কণ্ঠা জানিয়ে আসছেন। বিজিএমইএর তৈরি পোশাক সময়মতো বন্দরে ঢুকতে না পারলে তাদের রপ্তানি আদেশ বাতিলসহ বিপুল আর্থিক ক্ষতির শিকার হওয়ার শঙ্কা থাকে। অন্যদিকে বন্দর থেকে খালাসকৃত বিভিন্ন আমদানি পণ্য এবং বিভিন্ন কারখানার কাঁচামাল সময়মতো গন্তব্যে না যাওয়ার পরিস্থিতি সৃষ্টি হওয়ায় সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা তাদের উত্পাদন ও বিপণন বিঘ্নিত হবে বলেও শঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে দেখা যায়, আগ্রাবাদ, বারিক বিল্ডিং, ফকিরহাট, নিমতলা, পিসি রোড, টোল রোড, বড়পুল, কাস্টমস মোড়, সল্টগোলা, ইপিজেডসহ অন্যান্য সংযোগ সড়কগুলো যানজটের কারণে স্থবির হয়ে পড়ছে ঘণ্টার পর ঘণ্টা। চরম ভোগান্তিতে পড়ছেন শিক্ষার্থী ও চাকরিজীবীরা।

ইত্তেফাক/অনি