সৈয়দপুরে গরম মসলার বাজারে অস্থিরতা

প্রকাশ : ২০ জুলাই ২০১৯, ০৫:৫২ | অনলাইন সংস্করণ

  সৈয়দপুর (নীলফামারী) সংবাদদাতা

সৈয়দপুর (নীলফামারী) : কোরবানির আগেই মসলার বাজার অস্থির হয়ে উঠেছে —ইত্তেফাক

কোরবানির ঈদ সামনে রেখে সরগরম হয়ে উঠেছে সৈয়দপুরের পাইকারি গরম মসলার বাজার। কয়েক মাস ধরে ক্রমে বেড়েছে এলাচি, দারুচিনি, চিকন জিরাসহ বেশ কিছু মসলার দাম। প্রতিকেজি মসলায় দাম বেড়েছে কেজিতে ৫০ থেকে ১০০ টাকা। আমদানিকারক ও পাইকারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বর্তমানে ছোট এলাচ প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ২ হাজার ২৪০ টাকায় যা কয়েকদিন আগে দাম ছিল ১ হাজার ৮০০ টাকা। ৬২০ টাকার বড়ো এলাচ বিক্রি হচ্ছে ৭০০ টাকায়। দারুচিনি ২৭০ টাকা থেকে বেড়ে ৩৫০ টাকা, লং ৮২০ টাকা, গুল মরিচ ৩৮০ টাকা, জিরা ৩২০ টাকা ও ধনিয়া ১১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

শহরের কমল বিশ্বাস স্টোরের মালিক কমল বিশ্বাস জানান, উল্লেখিত দামে পাইকারি হিসাবে খুচরা প্রতিকেজি ৫০/১০০ টাকা বাড়িয়ে বিক্রি করছেন। ব্যবসায়ী আব্বাস আলী জানান, গরম মসলা লাক্সারি আইটেম। কোরবানিতে চাহিদা বাড়লেও বিয়ে, হোটেল-রেস্টুরেন্টসহ সারা বছরই ঘরে ঘরে চাহিদা থাকে। আগস্টের দ্বিতীয় সপ্তাহে কোরবানি হলে চলতি জুলাই মাস জুড়ে গরম মসলার পাইকারি বাজার সরগরম থাকবে। আড়তে দেশি গোটা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ১৩৫-১৪৫ টাকা, ভারত থেকে আমদানি করা এলসি মরিচ ২০০-২১০ টাকা।

আরও পড়ুন: মানুষের মস্তিষ্কের সঙ্গে যুক্ত করা যাবে কম্পিউটার

এদিকে, কোরবানির অত্যাবশ্যকীয় উপকরণ পেঁয়াজ, রসুন ও আদার বাজারে ঊর্ধ্বগতি দেখা গেছে। গত সপ্তাহের চেয়ে ৫-৭ টাকা বেড়ে ভারতের প্রতিকেজি পেঁয়াজ ৩০ থেকে ৩২ টাকা, পাবনা ও তাহেরপুরের পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৩৫ টাকায়। রমজানের ঈদের সময় পাইকারিতে ২৮ টাকা পর্যন্ত উঠেছিল পেঁয়াজ। দেশি রসুন ১০০ টাকা আর আদা বিক্রি হচ্ছে ২০০ টাকা কেজি।

ইত্তেফাক/কেকে