স্ত্রীকে হত্যা করে লাশ জঙ্গলে পুঁতে রাখে কাদের

প্রকাশ : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২৩:০৬ | অনলাইন সংস্করণ

  রামগড় (খাগড়াছড়ি) সংবাদদাতা

স্ত্রী হত্যাকারী আব্দুল কাদের। ছবি: ইত্তেফাক

চট্টগ্রাম থেকে বেড়ানোর কথা বলে খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় স্ত্রীকে এনে কুপিয়ে হত্যার পর লাশ জঙ্গলে পুঁতে রাখে আব্দুল কাদের (৪২)। হত্যার পর লাশ গুমের প্রায় তিন মাস পর পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়ে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিযেছে সে।

গত বৃহষ্পতিবার জেলার পানছড়ি থেকে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। শুক্রবার খাগড়াছড়ি চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিেস্ট্রেট মো. মোরশেদুল আলমের আদালতে আব্দুল কাদের স্ত্রী হত্যার দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

গত ১ আগস্ট মাটিরাঙ্গার বেলছড়ির চোংরাকাপা নামক দূর্গম এলাকার পাহাড়ের লোংগা থেকে কংকাল উদ্ধার হয়। সে সূত্র ধরে লাশের পরিচয় শনাক্ত করা হয়। এরপর খুনিকে গ্রেফতারের মাধ্যমে পুলিশ এ হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন  করলো।

পুলিশ জানায়, গত  ১ আগস্ট  বেলছড়ির চোংরাকাপা এলাকার দুর্গম পাহাড় থেকে কঙ্কাল উদ্ধারের ঘটনায়। অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন মাটিরাঙ্গা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. মোজাম্মেল হোসেন। মামলা নং ০১, তারিখ- ০১/৮/১৯ ইং।

মামলার আইও মাটিরাঙ্গা থানার ওসি (তদন্ত) মো. শাহানুর আলম উদ্ধার হওয়া কঙ্কাল উপজেলার গোমতির বান্দরছড়ার মৃত আবু খাঁর ছেলে আব্দুল কাদেরের স্ত্রী মাইনুর বেগমের  বলে শনাক্ত করেন। পরিচয় শনাক্ত হওয়ার পর শুরু হয় হত্যার রহস্য উদঘাটন ও খুনি গ্রেফতারে জোর পুলিশি তৎপরতা। পলাতক স্বামি আব্দুল কাদেরকে ধরতে চট্টগ্রামের পতেঙ্গা, ইপিজেড ও খাগড়াছড়ির সম্ভাব্য বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায় পুলিশ। 

অবশেষে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে অবস্থান নিশ্চিত হওয়ার পর গত বৃহষ্পতিবার সকালে পানছড়ি বাজার থেকে গ্রেফতার করা হয় আব্দুল কাদেরকে। পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হত্যার কথা স্বীকার করেন মো. আব্দুল কাদের। পরে শুক্রবার খাগড়াছড়ির চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. মোরশেদুল আলমের আদালতে হাজির করা হলে হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয় আব্দুল কাদের।

জানা যায়, লক্ষীপুর জেলার কমলনগর উপজেলার তোরাবগঞ্জ গ্রামের মোস্তফা সর্দারের মেয়ে মাইনুর বেগম (২৩) চট্টগ্রামের একটি গার্মেন্টে চাকরি করতো। গার্মেন্টে চাকুরির সুবাদে প্রথমে পরিচয়, অতপর প্রেম ও পরে বিয়ে হয় মো. আব্দুল কাদেরের সঙ্গে। বিয়ের পর থেকেই চট্টগ্রামের ফ্রি-পোর্ট এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতো তারা। গত রমজানের ঈদ উপলক্ষে  ৮ জুন স্ত্রী মাইনুর বেগমকে নিয়ে গোমতির বান্দরছড়ায় বোনের বাড়িতে বেড়াতে আসে আব্দুল কাদের।

আরও পড়ুন: গড়াই নদীর ওপর শহীদ গোলাম কিবরিয়া সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

দুই দিন পর ১০ জুন সকাল ১১টার দিকে পাহাড় দেখানোর  কথা বলে স্ত্রী মাইনুরকে দুর্গম চোংরাকাপা নামক স্থানে নিয়ে ধারালো দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে সে। পরে লাশ গুম করার উদ্দেশ্যে আব্দুল কাদের স্ত্রীর মরদেহ চোংরাকাপার গভীর জঙ্গলে পুঁতে রেখে পালিয়ে যায়।

ইত্তেফাক/নূহু