ঢাকা শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬
২৯ °সে


মালাকররা রং তুলির আঁচড়ে ফুটিয়ে তুলছেন প্রতিমা

মালাকররা রং তুলির আঁচড়ে ফুটিয়ে তুলছেন প্রতিমা
রং তুলির আঁচড়ে জীবন্ত হচ্ছে দেবী। ছবি-ইত্তেফাক

সামনেই সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। আর কদিন পরই দেবী দুর্গা আসছেন মর্তলোকে। তার আগমনকে ঘিরে তাই এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন সিরাজগঞ্জের কামারখন্দের পাল পাড়ার প্রতিমা তৈরির মালাকররা।

দিনরাত পরিশ্রম করে নিপুণ হাতে তৈরি করছেন প্রতিমা। তবে প্রতিমা তৈরির উপকরণের মূল্য বৃদ্ধি পেলেও কাঙ্খিত মূল্য পাচ্ছে না বলে অভিযোগ মালাকরদের। উপজেলার ভদ্রঘাট পাল পাড়ার প্রতিমা তৈরির মালাকর ষাটোর্ধ্ব গুপিনাথ পাল। শারদীয় দুর্গোৎসবকে কেন্দ্র করে রাতদিন কাদামাটি দিয়ে প্রতিমা তৈরির প্রাথমিক কাজ শেষে এখন একটু একটু করে নিপুণ হাতে রং তুলির আঁচড়ে ফুটিয়ে তুলছেন দেবী দুর্গার প্রতিমা।

উপজেলার বাজার ভদ্রঘাট পালপাড়ার প্রতিমা শিল্পী দিলীপ পাল জানান, আমরা এই পালপাড়া থেকে উত্তরবঙ্গের ৪/৫টি জেলায় প্রতিমা সরবরাহ করে থাকি। আসন্ন দুর্গা পূজাকে সামনে রেখে বাজার ভদ্রঘাটের এই পালপাড়ায় আমরা প্রায় ১৫০টি প্রতিমা তৈরি করছি। প্রতিটি প্রতিমা ১০ হাজার থেকে শুরু করে ১ লাখ টাকায় বিক্রি করা হবে।

উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি শিশির কুমার সাহা জানান, আসন্ন দুর্গা পূজার সব ধরনের প্রস্তুতির কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। এ বছর কামারখন্দের ৪টি ইউনিয়নে ২১টি পূজা মণ্ডপে দুর্গাপূজার আয়োজন করা হচ্ছে।

কামারখন্দ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুল ইসলাম জানান, বর্তমানে বাজার ভদ্রঘাট পালপাড়া এলাকায় পুলিশ টহলে আছে। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে আমরা বাজার ভদ্রঘাট পালপাড়ায় ২৪ ঘণ্টার জন্য পুলিশ মোতায়েন করবো। সেই সঙ্গে পূজায় উপজেলার প্রত্যেক মন্ডপে সার্বিক নিরাপত্তা প্রদানের কথা জানালেন ওসি।

ইত্তেফাক/আরকেজি

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৮ অক্টোবর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন