ঢাকা বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ২৯ কার্তিক ১৪২৬
৩২ °সে


জেলে আটকের ঘটনায় বিজিবি-বিএসএফ গোলাগুলি, বিএসএফ সদস্য নিহত

জেলে আটকের ঘটনায় বিজিবি-বিএসএফ গোলাগুলি, বিএসএফ সদস্য নিহত
পদ্মা নদীর রাজশাহীর অংশের ছবি। সংগৃহীত।

রাজশাহীর চারঘাটে পদ্মা নদীতে ভারতীয় জেলেদের নিষিদ্ধ মা ইলিশ শিকারের ঘটনায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও ভারতীয় বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্সের (বিএসএফ) সদস্যদের মধ্যে গোলাগুলি হয়েছে। এ ঘটনায় বিএসএফের হেড কনস্টেবল বিজয় ভান সিং নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ভারতের নৌকার মাঝি এক কনস্টেবল। বৃহস্পতিবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে চারঘাট উপজেলা সদরের বালুঘাট এলাকার পদ্মা ও বড়াল নদীর মোহনায় মাঝ নদীতে এ ঘটনা ঘটে।

ঘটনার পরপর বিএসএফ সদস্যরা মাঝ নদী থেকে আহতদের নিয়ে ভারতীয় সীমান্তের অভ্যন্তরে চলে যায়। তবে বিজিবি ভারতীয় জেলে চাই মণ্ডল ও তার নৌকা আটক করেছে।

সারাদেশে মা ইলিশ রক্ষায় গত ৯ অক্টোবর থেকে আগামী ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ করেছে সরকার। মা ইলিশ রক্ষার জন্য সারাদেশে ইলিশের প্রজনন এলাকায় বিজিবি, নৌ-পুলিশ, কোস্ট গার্ডের নদী ও উপকূলবর্তী এলাকায় টহল চলছে। এরই অংশ হিসাবে চারঘাট উপজেলা মৎস্য সহকারী মাঠ কর্মকর্তা আরিফুল ইসলামের নেতৃত্বে বিজিবির সদস্যদের নিয়ে পদ্মায় টহল চলছিল। এসময় বাংলাদেশের জলসীমায় ভারতীয় নৌকায় ইলিশ মাছ ধরতে দেখে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় বিজিবি ও বিএসএফের মধ্যে গোলাগুলির ঘটনা ঘটে।

এ ব্যাপারে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সাংবাদিকদের বলেন, রাজশাহীর চারঘাট সীমান্তে পদ্মায় মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে বিএসএফ সদস্যরা বাংলাদেশ সীমান্তের ৫০০ গজ ভিতরে এলে অনাকাঙ্ক্ষিত গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। তাতে এক বিএসএফ সদস্য নিহত হয়েছেন।

আরো পড়ুন: ফিরলেন সানি-আল আমিন, জায়গা হয়নি সাব্বিরের

এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ৯টায় রাজশাহীস্থ বিজিবি-১ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক ফেরদৌস জিয়াউদ্দিন মাহমুদ নিজ কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ের বলেন, বৃহস্পতিবার বেলা ১০টা ৪০ মিনিটের সময় ব্যাটালিয়নের অধীনস্থ চারঘাট বিওপি’র দায়িত্বপূর্ণ এলাকায় বিওপি হতে আনুমানিক এক কিলোমিটার পশ্চিমে এবং সীমান্ত পিলার ৭৫/৩ এস থেকে ৫০০ মিটার বাংলাদেশের অভ্যন্তরে চারঘাট থানার শারিয়ার খাল নামক স্থানে মা ইলিশ সংরক্ষণ কর্মসূচির আওতায় মৎস্য কর্মকর্তার উপস্থিতিতে পদ্মা নদীতে অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে মাছ ধরার সময় তিনজন জেলেকে আটকের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু দুইজন জেলে পালিয়ে যায় এবং একজন জেলেকে আটক করে নদীর এপাড়ে নিয়ে আসা হয়। তারা ভারতীয় নাগরিক বলে অভিযান দল নিশ্চিত হয়। এ ঘটনার কিছুক্ষণ পর ১১৭ বিএসএফ কোম্পানি ব্যাটালিয়নের কাগমারী ক্যাম্প থেকে চার সদস্যের একটি টহল দল স্পিডবোট যোগে অনুমতি ছাড়া শূন্য লাইন অতিক্রম করে অবৈধভাবে শূন্য রেখা থেকে ৬০০ থেকে ৬৫০ গজ বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে। বিএসএফ দলের সদস্যরা নদীর এপাড়ে বিজিবি টহল দলের নিকটে আসে এবং আটক ভারতীয় নাগরিক জেলেকে ছেড়ে দেয়ার জন্য বলে। বিজিবি টহল দল আটক ভারতীয় নাগরিককে পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর করা হবে বলে জানায়। কিন্তু তারা ভারতীয় নাগরিককে বিজিবির নিকট থেকে নিয়ে মারধোর করে এবং ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। এতে বিজিবি সদস্যরা বাধা প্রদান করে। এসময় বিএসএফ সদস্যরা বিজিবির ওপর ৬ থেকে ৮ রাউন্ড গুলি করে। আত্মরক্ষার্থে বিজিবি টহল দলও পাল্টা ফাঁকা ফায়ার করলে বিএসএফ সদস্যরা ফায়ার করতে করতে দ্রুত স্থান ত্যাগ করে। আটক ভারতীয় নাগরিক প্রণব মণ্ডল ভারতের মুর্শিদাবাদ জেলার জঙ্গলী থানার ছিড়াচর গ্রামের বসর মন্ডলের ছেলে। তাকে চারঘাট থানায় সোপর্দের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এ ঘটনার প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার বেলা ১৬ টা ৪৫ মিনিট থেকে ১৭ টা ৫০ মিনিট পর্যন্ত চর শাহরিয়ার বাঁধ নামক স্থানে বিজিবি ও বিএসএফের অধিনায়ক পর্যায়ে পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। পতাকা বৈঠকে বিএসএফ কমান্ড্যানন্ট দাবি করেন, তাদের একজন সদস্য নিহত এবং একজন সদস্য আহত হয়েছেন। এ ব্যাপারে উভয়পক্ষ তাদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়ে একমত হন। এছাড়া এ বিষয়ে আরও আলোচনার জন্য খুব শিগগির পতাকা বৈঠক করার বিষয়ে উভয়ে একমত হন। উভয়পক্ষের মধ্যে শান্তিপূর্ণভাবে পতাকা বৈঠক শেষ হয়েছে।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ১ বিজিবি অধিনায়ক বলেন, বিএসএফ তাদের দুইজন সদস্য হতাহতের দাবি উত্থাপন করলেও কোনো ছবি, অডিও, ভিডিও কিংবা নাম-পরিচয় বিজিবির কাছে প্রকাশ কিংবা হস্তান্তর করেনি। তদন্ত সাপেক্ষে ভবিষ্যতে এধরণের দুঃখজনক ঘটনা এড়িয়ে চলার জন্য উভয়পক্ষ একমত হয়েছেন।

আরো পড়ুন: ঝড়ের কবলে প্রিন্স উইলিয়াম ও কেট মিডলটনকে বহনকারী বিমান

এদিকে, ঘটনার পর গতকাল সন্ধ্যায় বাংলাদেশের ভারতীয় হাইকমিশন থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, আলোচনা শেষে বিএসএফ সদস্যরা যখন ফিরে যাচ্ছিলেন, তখনই বিজিবি পেছন থেকে গুলি চালায়। এতে মাথায় গুলিবিদ্ধ হন হেড কনস্টেবল বিজয় ভান সিং এবং হাতে গুলিবিদ্ধ হন নৌকার মাঝি আরেক কনস্টেবল। হাসপাতালে নেওয়ার পর বিজয় ভান সিংকে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন। এছাড়া গুলিবিদ্ধ অন্য কনস্টেবল মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজে চিকিৎসাধীন।

এদিকে, এ ঘটনায় বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল সাফিনুল ইসলাম বলেছেন, মৎস্য অধিদপ্তরের নেতৃত্বে মা ইলিশ রক্ষার অভিযান পরিচালিত হয়। বাংলাদেশের ৫০০ গজ ভিতরে ভারতীয় জেলেরা ইলিশ শিকার করছিল। এসময় তিন ভারতীয় জেলেকে আটক করে মৎস্য অধিদপ্তর। ভারতীয় বিএসএফ সদস্যরা গেঞ্জি ও হাফপ্যান্ট পরিহিত ছিলেন। এক ভারতীয় জেলে ও এক নৌকা মৎস্য অধিদপ্তরের কাছে আটক আছে। দুই জেলেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

ইত্তেফাক/এএএম

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৩ নভেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন