ঢাকা মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২০, ১৫ মাঘ ১৪২৭
২১ °সে

যুক্তরাজ্যে ‘বহুল আকাঙ্ক্ষিত’ নির্বাচনের ভোট শুরু 

যুক্তরাজ্যে ‘বহুল আকাঙ্ক্ষিত’ নির্বাচনের ভোট শুরু 
নিজের পোষা কুকুরকে সঙ্গে নিয়ে ভোট কেন্দ্রে আসেন বরিস জনসন। ছবি- বিবিসি

যুক্তরাজ্যে বহুল আকাঙ্ক্ষিত নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় সকাল ৭টায় শুরু হওয়া ভোট চলবে রাত ১০টা পর্যন্ত। আজকের নির্বাচনের ফলাফলের মাধ্যমেই নিশ্চিত হওয়া যাবে দেশটির ভবিষ্যৎ। কেবল ইউরোপীয় ইউনিয়নে থাকা না থাকাই নয় বরং দেশটির অর্থনৈতিক অগ্রগতির ভাল-মন্দও জানা যাবে আজকের নির্বাচনের ফলাফলে। দেশটিতে ইউরোপীয় ইউনিয়নে থাকা না থাকা নিয়ে নানা মত রয়েছে। খবর দ্য টেলিগ্রাফ ও ডেইলি মেইল’র

ইংল্যান্ড, ওয়েলস, স্কটল্যান্ড ও উত্তর আয়ারল্যান্ডের ৬৫০টি সংসদীয় আসনে শুরু হয়েছে ভোটের লড়াই। একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় যেতে কোনো একটি দলের কমপক্ষে ৩২৬টি আসনে জয়লাভ করতে হবে। ২৬ নভেম্বর মধ্যরাত পর্যন্ত যারা নিবন্ধন করেছেন তারাই ভোট দিতে পারবেন আজ। আর যারা পোস্টাল ভোট দিতে চেয়েছেন তাদেরকেও ২৬ নভেম্বর বিকেল ৫টার মধ্যে নিবন্ধন করতে হয়েছে। যারা করেছেন তাদের ভোট আজ রাত ১০টার মধ্যে গ্রহণ করা হবে। আর যারা কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেবেন তাদেরকে সকাল ৭টা থেকে ১০ টার মধ্যে নির্দিষ্ট কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিতে হবে।

একজনের ভোট আরেকজন দেওয়ার জন্য ৪ ডিসেম্বর বিকেল ৫টার মধ্যে জানাতে হয়েছে। তবে জরুরি প্রক্সি ভোট দিতে আজও আবেদন করা যাবে। রাত ১০টায় বুথ ফেরত জরিপের ফল জানা যাবে। আর কাল শুক্রবার ভোটের ফলাফল জানা যাবে।

২০১৭ সালে তৎকালীন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে আগাম নির্বাচন দিয়েছিলেন। কিন্তু একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় জোট সরকার গঠনের প্রয়োজন হয়। কিন্তু ডিইউপি টোরি দলকে ব্রেক্সিটে পুরোপুরি সমর্থন দেয়নি। নির্বাচনে টোরি দল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেলে আগামী ৩১ জানুয়ারির মধ্যে ব্রিটেন ইইউ থেকে বেরিয়ে যাবে। আর না পেলে ব্রিটেনের ভবিষ্যৎ শঙ্কার মধ্যে পড়বে!

নির্বাচনে কোনো দল সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেলে ঝুলন্ত পার্লামেন্ট হবে। সেক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে হয় পদত্যাগ করতে হবে না হয় জোট সরকার গঠনের চেষ্টা চালাতে হবে। তবে এই সরকার গঠন বরিসের জন্য কঠিন হবে। কারণ ইতোমধ্যে লিবারেল ডেমোক্র্যাটস পার্টির নেতারা ঘোষণা দিয়েছেন, তারা টোরি কিংবা নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডের ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়নিস্ট পার্টির (ডিইউপি) সঙ্গে জোট করবেন না। এরপর হয়তো লেবার পার্টি সরকার গঠনের চেষ্টা চালাবে। সেক্ষেত্রেও সমস্যা আছে। লিব ডেম নেতা জো সুইনসন বলেছেন, তারা লেবার পার্টির সঙ্গে জোট করতে রাজি, তবে নেতা জেরেমি করবিনকে সরে দাঁড়াতে হবে। যদি তিনি পদত্যাগ না করেন তাহলে তিনি ছোটো দল প্লেইড সিমরু, দ্য গ্রিনস এবং স্কটিশ ন্যাশনাল পার্টির সঙ্গে জোট করতে পারেন। তবে এজন্য স্কটল্যান্ডে স্বাধীনতার জন্য দ্বিতীয় গণভোটের আয়োজনকে মেনে নিতে হবে করবিনকে। লেবার পার্টি সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেলে ইইউতেই থেকে যাবে ব্রিটেন। যদিও করবিন এই ইস্যুতে দ্বিতীয় গণভোট করবেন বলে জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন: নাইজারে জেহাদিদের হামলায় ৭১ সেনার প্রাণহানি

ইউগভ নামের জরিপ সংস্থা জানিয়েছে, টোরি দল ৩৩৯ আসনে জয় পাবে। সেখানে লেবার পার্টি ২৩১ এবং লিবারেল ডেমোক্র্যাটস পাবে ১৫টি আসন। সেক্ষেত্রে বরিস জনসনের দল লেবার পার্টির ২২টি আসন দখলে নিতে পারে। ভোটের ৪৩ শতাংশ টোরি ও ৩৪ শতাংশ পাবে লেবার পার্টি। তবে ইউগভ সতর্ক করেছে, টোরি দল ৩১১ আসনের কমও পেতে পারে। সেক্ষেত্রে ঝুলন্ত পার্লামেন্ট নিশ্চিত হয়ে যাবে। উচ্চকক্ষ হাউজ অব লর্ডস নির্বাচিত নয়। কিছু প্রধান দল এখানে প্রতিনিধি মনোনয়ন দেয়। কোনো দল সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেলে ঝুলন্ত পার্লামেন্ট হবে।

ইত্তেফাক/এসইউ

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
icmab
facebook-recent-activity
prayer-time
২৮ জানুয়ারি, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন