বেটা ভার্সন
আজকের পত্রিকাই-পেপার ঢাকা বুধবার, ০৫ আগস্ট ২০২০, ২১ শ্রাবণ ১৪২৭
৩০ °সে

রোমে করোনায়  নতুন শনাক্ত ১৪ জন, যারমধ্যে ১২ জনই বাংলাদেশী

রোমে করোনায়  নতুন শনাক্ত ১৪ জন, যারমধ্যে ১২ জনই বাংলাদেশী
করোনা আক্রান্ত রোগীকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। ছবি: সংগৃহীত

ইতালির রাজধানী রোমে গত চব্বিশ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৪ জন। এরমধ্যে ১২ জনেই বাংলাদেশী বলে জানাগেছে। এদের সবাই ঢাকা থেকে বিশেষ ফ্লাইটে রোমে এসেছেন বলে সংবাদ প্রকাশ করেছে দেশটির বেশ কয়েকটি গণমাধ্যম।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ থেকে বিশেষ ফ্লাইটে ইতালি ফেরা প্রতিটি ফ্লাইটেই করোনায় আক্রান্ত যাত্রী পাওয়া যাচ্ছে। এরমধ্যে সোমবার সবচেয়ে বেশি শনাক্ত হয়েছে। এতে প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে বাংলাদেশের হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন ব্যবস্থা।

এবিষয়ে লাতসিওর কাউন্সিলর আলেসসিও দি আমাতো স্থানীয় সাংবাদিকদের বলেন, গতকাল রোমে তিন বাংলাদেশির শরীরে করোনা ভাইরাস ধরা পড়ে। আজ আবারো ১২ জনের শরীরে এ ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এরা সবাই সম্প্রতি বাংলাদেশ থেকে ইতালি ফিরেছে। কিভাবে এরা করোনায় আক্রান্ত হয়ে বাংলাদেশ বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন পাড় হচ্ছে। এছাড়াও বাংলাদেশীরা ইতালি ফিরে হোমকোয়ারেন্টাইন মানছেন না। এতে আবারো ইতালি হুমকির মুখে পড়তে পারে’।

এবিষয়ে দেশটির সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বাংলাদেশ সমিতি ইতালির সাবেক সভাপতি নূরে আলম সিদ্দিকি বাচ্চু বলেন, ‘হয়তো বাংলাদেশের বিমানবন্দরে পর্যাপ্ত পরিমাণে টেকনিক্যাল সরঞ্জাম নেই তাই সেখানে সঠিকভাবে পরীক্ষা করা যাচ্ছেনা। তাছাড়া বাংলাদেশ অনেক গরিব দেশ । সেখানে অনেক মানুষই না খেয়ে জীবন-যাপন করছে’।

এছাড়াও আরেক প্রবাসী বাংলাদেশী ব্যবসায়ী ও ইতালী-বাংলার সাবেক সভাপতি তাইফুর রহমান ছোটন দেশটির সাংবাদিকদের জানান, ‘বর্তমান বাংলাদেশের অবস্থা অনেক বিপদজনক। গত মার্চ মাসে ইতালি যে পরিস্থিতি পাড় করেছে বাংলাদেশ বর্তমানে সেই পরিস্থিতি পাড় করছে’।

তবে নূরে আলম সিদ্দিকি বাচ্চু ও তাইফুর রহমান ছোটনের এ বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানায় ইতালিস্থ বাংলাদেশী বিভিন্ন কমিউনিটির নেতা কর্মীরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কমিউনিটি নেতা বলেন, তাইফুর রহমান ছোটন ইতালির সাংবাদিকদের যে তথ্য দিয়েছেন সেটা সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং তার মনগড়া কথা। ইতালিতে গত মার্চ মাসে প্রতিদিন ৬ থেকে ৭ হাজার মানুষ করোনায় আক্রান্ত হত । এছাড়াও মৃত্যুবরন করছেন ৬’শ থেকে ৭’শ মানুষ। কিন্তু বাংলাদেশে বর্তমানে প্রতিদিন ৩ থেকে সাড়ে ৩ হাজার মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে আর মৃতের সংখ্যা ইতালির তুলনায় খুবই কম প্রতিদিন ৪০ থেকে ৫০ জন। সুতরাং দেশটির সাংবাদিকদের কাছে দেয়া এসব তথ্যগুলা ছিল সম্পূর্ণ মিথ্যা। আর এগুলা বাংলাদেশের আইনানুযায়ী অপরাধ হিসেবে গন্য।

এছাড়াও দেশটির করোনাভাইরাস নিয়ে নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান ডঃ এঞ্জেলা বেরল্লি বলেন, সোমবার সারাদেশে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ২০৮ জন। আর মৃত্যুবরণ করেছেন ৮ জন। এছাড়াও সুস্থ হয়েছেন ১৩৩ জন। আর বর্তমানে এ রোগে আক্রান্ত হয়ে দেশটিতে চিকিৎসা নিচ্ছেন ১৪ হাজার ৭০৯ জন। এদেরমধ্যে ৭২ জনের অবস্থা আশংকাজনক।

উল্লেখ্য, বর্তমানে দেশটিতে বাংলাদেশ ফেরত ও তাদের দ্বারা সংক্রমিত করোনারোগীর সংখ্যা ৩৯ জন।

ইত্তেফাক/এসআই

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত