বেটা ভার্সন
আজকের পত্রিকাই-পেপার ঢাকা শনিবার, ১৫ আগস্ট ২০২০, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৭
৩০ °সে

জেনেটিং নজরদারী চালাতে কোটি মানুষের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ!

জেনেটিং নজরদারী চালাতে কোটি মানুষের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ!
জেনেটিং নজরদারী চালাতে কোটি মানুষের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ!

বিষয়টি শুনতে সাইন্স ফিকশনের মত মনে হলেও বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন জেনেটিং নজরদারি চালাতে চীন কোটি কোটি মানুষের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করছে!

নিউ ইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত এক কলামে টরেন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ের পলিটিকাল সাইন্স বিভাগের পিএইচডি শিক্ষার্থী এমিল ড্রিকস এবং আধুনিক চীনের জাতিগত বিষয়ের বিশেষজ্ঞ জেমস লিবোল্ড এমনটাই দাবি করেন। তাদের মতে, ভিন্নমত পোষণ করা চীনে এক ধরণের অপরাধ। আর সেই অপরাধ (!) দমনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে পুলিশের অপারেশন।

তাদের ধারণা ৩৫ মিলিয়ন থেকে ৭০ মিলিয়ন চীনের পুরুষ নাগরিকের ডিএনএ স্যাম্পল সংগ্রহের পরিকল্পনা রয়েছে দেশটির সরকারের। তারা নিজেদের কলামে লেখেন, 'প্রয়োজন অনুসারে যেন তাদের ওপর নজরদারি করা যায় এবং তাদেরকে খুঁজে পাওয়া না গেলে এই ডিএনএ প্রোফাইল ব্যবহার করে তাদের নিকট আত্মীয়দের ওপর যেন নজরদারি চালানো যায় সেই জন্য এই কাজটি করছে দেশটির সরকার।'

অবশ্য এই দাবি একেবারেই ভিত্তিহীন বলে জানিয়েছে চীনের সরকার। উল্টো এ ধরণের কথা অনলাইনে প্রচার করে বিভিন্ন স্থানে যে তথ্য প্রমাণ দেয়া হয়েছে তা যাচাই করে যারা প্রচার করছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানায় চীনের কর্তৃপক্ষ।

এদিকে অস্ট্রেলিয়ান স্ট্রাটেজিক পলিসি ইন্সটিটিউট গতমাসে জানায়, চীনের সরকারের জেনেটিক নজরদারির বিষয়টি সামনে এসেছে। সেখানে বলা হয়, 'এখন শুধুমাত্র জিনজিয়াং, তিব্বত এবং ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর এলাকাগুলোতে সীমাবদ্ধ নেই এই নজরদারি কার্যক্রম। '

ইউনান, গুইজউ এবং হানান, স্যান্দোং, জিয়াংসু এবং মঙ্গোলিয়া অঞ্চলেও চলছে ডিএনএ সংগ্রহ কার্যক্রম। অস্ট্রেলিয়ার এই প্রতিষ্ঠানটি জানায়, 'চীনে শিশুদের আঙ্গুল থেকে রক্ত সংগ্রহের ফটোগ্রাফ আমাদের কাছে রয়েছে যা প্রমাণ করে তারা স্কুলে গিয়ে এই নমুনা সংগ্রহ করছ এবং এটি জাতিসংঘের শিশু অধিকার সনদের পরিপন্থী। এ ছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ শহর এলাকায় ডিএনএ নমুনা সংগ্রহের তথ্যও আমাদের কাছে রয়েছে।'

তাদের কাছে আরো তথ্য রয়েছে কিভাবে চেংডু প্রদেশের ৬ লাখ পুরুষের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে যা এই প্রদেশের মোট পুরুষ জনসংখ্যার ৭ ভাগ। সেখানে বলা হয়েছে, এই ডাটাবেজ পুলিশকে আইনের শাসন প্রয়োগে সহায়তা করবে। নিউ ইয়র্ক টাইমস এবং টাইমস অব ইন্ডিয়া।

ইত্তেফাক/আরএ

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত