'৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরি জনগণকে আশার আলো দেখিয়েছে'

'৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরি জনগণকে আশার আলো দেখিয়েছে'
ডা. আমজাদ আইয়ুব মির্জা। ছবি: সংগৃহীত

ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরি জনগণের জন্য প্রত্যাশার আলো জন্ম দিয়েছে।

জম্মু ও কাশ্মীরে ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের প্রথম বার্ষিকীতে এ কথা বলেন ডা. আমজাদ আইয়ুব মির্জা। তিনি পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরের মিরপুরের বাসিন্দা ও একজন রাজনৈতিক কর্মী।

ডা. আমজাদ আইয়ুব জানান, ১৯৪৭ সালে কাশ্মীরের গিলগিট-বালতিস্তানে পাকিস্তানী সামরিক বাহিনী তাদের জমি দখল করে নিয়েছিল।

তিনি বলেন, ১৯৪৭ সালের ২২ অক্টোবর যে সহিংসতা শুরু হয়েছিল সেটাকে ভেঙে দিয়েছে এই অনুচ্ছেদ বাতিল। এই সহিংসতা ২০১৯ পর্যন্ত চলেছিল।

ডা. আমজাদ আইয়ুব আরো বলেন, এতদিন স্বাধীনতার আন্দোলনের আড়ালে কাশ্মীরি পণ্ডিতদের বিরুদ্ধে সহিংসতা, টার্গেট হত্যাকাণ্ড, মাদক চোরাচালান চলে এসেছে। কিন্তু ২০১৯ সালে ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল হওয়ার ফলে এসব থেমে যায়।

৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল হওয়ায় কাশ্মীরে প্রথমবারের মতো মহিলারা সমান অধিকার ভোগ করছে। এছাড়া পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরের ৪ লাখ শরণার্থীকে ভারতীয় নাগরিক হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে বলে জানান ডা. আমজাদ আইয়ুব।

বাতিল হওয়া অনুচ্ছেদে ছিল-জম্মু ও কাশ্মীরের নারীরা বাইরের কোনো লোককে বিয়ে করলে তাদের সম্পত্তির মালিকানা থেকে বঞ্চিত করা হবে।

৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের ফলে এখন কাশ্মীরের বাইরের লোকেরাও উপত্যকায় স্থায়ী বাসিন্দা ও জমি কিনতে পারবেন। এ ছাড়া সরকারি চাকরি ও সেখানে বসবাসও করতে পারবেন বহিরাগতরা।

এএনআইয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়, পাকিস্তানের পৃষ্ঠপোষক করা কাশ্মীরের জিহাদি সহিংসতার অবসান ঘটিয়ে ৩৭০ অনুচ্ছেদ ভারতীয় সংসদে বাতিল করা হয়। তবে পাকিস্তান এখনও সীমান্ত পেরিয়ে সন্ত্রাসীদের ভারতে পাঠানো অব্যাহত রেখেছে।

২০১৯ সালের ৫ আগস্ট স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ৩৭০ এবং ৩৫এ অনুচ্ছেদ বাতিলের কথা ঘোষণা করেন। কাশ্মীরকে রাজ্য থেকে কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলে পরিণত করা হয়।

ইত্তেফাক/জেডএইচ

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত