রুশ বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষের পর যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক শক্তি বৃদ্ধি

রুশ বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষের পর যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক শক্তি বৃদ্ধি
সিরিয়ায় সামরিক উপস্থিতি বাড়িয়ে তুলেছে যুক্তরাষ্ট্র। ছবি: মিডেল ইস্ট আই

রাশিয়ার সেনাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষের পর সিরিয়ায় সামরিক উপস্থিতি বাড়িয়ে তুলেছে যুক্তরাষ্ট্র। এতে করে ওই অঞ্চলে উত্তেজনা বেড়েছে।

মার্কিন কর্মকর্তারা জানান, সিরিয়ার উত্তরপূর্বাঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্র বাড়তি ছয়টি অস্ত্র সজ্জিত ট্যাংক এবং শতাধিক সেনা পাঠিয়েছে।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্র এবং রাশিয়ার সেনাবাহিনী সিরিয়ার উত্তরপূর্বাঞ্চলে নিয়মিত টহল দেয়। এ বছর দুই বাহিনী বেশ কয়েকবার মুখোমুখি হয়।

সামরিক উপস্থিতি বাড়ানোর বিষয়ে ইউএস নেভির ক্যাপ্টেন বিল আরবান বলেন, ‘এই পদক্ষেপ কোয়ালিশন বাহিনীর সুরক্ষা নিশ্চিত করবে।’

তিনি আরও যোগ করেন, সাঁজোয়া যান বাড়ানোর পাশাপাশি কুয়েতে ‘সেন্টিনেল রাডার’ মোতায়েন করবে যুক্তরাষ্ট্র।

ইউএস সেন্ট্রাল কমান্ডের মুখপাত্র আরবান এক বিবৃতিতে বলেন, ‘আমেরিকা সিরিয়ায় অন্য কোনও জাতির সঙ্গে দ্বন্দ্ব চায় না। তবে প্রয়োজনে জোটবাহিনীকে রক্ষা করতে যা করার দরকার তারা তাই করবে।’

মার্কিন কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে এনবিসি নিউজ জানায়, উত্তরপূর্ব সিরিয়ায় যেখানে যুক্তরাষ্ট্র এবং কুর্দিরা কার্যক্রম পরিচালনা করে সেখানে রুশ বাহিনীর প্রবেশ ঠেকাতেই নতুন করে সেনা ও সাঁজোয়া যান পাঠানো হয়েছে।

আগস্টের শেষ দিকে মার্কিন সেনাদের একটি দল রাশিয়ার সাঁজোয়া যানের মুখোমুখি হয়ে গেলে খণ্ড যুদ্ধ হয়। এতে সাত মার্কিন সেনা আহত হয়। এ ঘটনার জন্য দুই দেশ পরস্পরকে দায়ী করেছে।

ইত্তেফাক/জেডএইচ

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত