পাকিস্তানি অভিবাসীরা বসনিয়াকে ইইউ-এর প্রবেশদ্বার হিসাবে ব্যবহার করছে?

পাকিস্তানি অভিবাসীরা বসনিয়াকে ইইউ-এর প্রবেশদ্বার হিসাবে ব্যবহার করছে?
ছবি সংগৃহীত

পাকিস্তানি অভিবাসীরা বসনিয়া-হার্জেগোভিনাকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রবেশদ্বার হিসাবে ব্যবহার করছে কিনা এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সিনিয়র এক সদস্য।

বসনিয়ার বর্তমান পরিস্থিতির কথা তুলে ধরে ইইউ পার্লামেন্টের ন্যাশনাল ফ্রন্টের সদস্য ডোমিনিক বিল্ড লিখেছেন, দীর্ঘস্থায়ী রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতায় জর্জরিত দেশটিকে উগ্র ইসলামের ক্রমবর্ধমান প্রভাবের সঙ্গে লড়াই করতে হয়েছে।

পাকিস্তানের সঙ্গে সংযোগ সম্পর্কে কথা বলতে গিয়ে ডোমিনিক বিল্ড বলেন, এই পরিস্থিতি থেকে নিজেদের সদ্ব্যবহার করার প্রত্যাশীদের মধ্যে সবার আগে পাকিস্তানীরা। মে'তে বসনিয়া-হার্জেগোভিনার প্রেসিডেন্সির সার্বিয়ান সদস্য মিলোরাদ ডডিকের মতে, সুরক্ষা মন্ত্রণালয় একটি বিশাল জালিয়াতি ভিসা প্রকল্প উন্মোচন করে, যেখানে পাকিস্তানের বসনিয়া রাষ্ট্রদূত জড়িত। যিনি তিন হাজার সন্দেহজনক ভিসা ইস্যু করেছেন। একইভাবে ইরাকের বসনিয়া দূতাবাসের বিরুদ্ধেও একই অভিযোগ আনা হয়েছিল।

তিনি আরো বলেন, ২০১২ সালে ইসলামাবাদে ব্রিটিশ হাইকমিশনার অ্যাডাম থমসন পাকিস্তানকে ভিসা জালিয়াতিতে বিশ্বনেতা উল্লেখ করলে কূটনৈতিক সম্পর্কে দ্বন্দ্ব চরমে দেখা দেয়।

ডোমিনিক বিল্ড বলেন, এখনো খারাপ অবস্থা, মনে হচ্ছে পাকিস্তানের কিছু বিতর্কিত ব্যক্তি অভিবাসীদের সঙ্গে মিশে গেছে। এটি অবশ্যই কোনও দেশ থেকে খুব সম্ভবত অবাক হওয়ার মতো বিষয় নয় যার পরিচয় ধর্মীয় চরমপন্থার সবচেয়ে কঠোর ধরণের বলে মনে হয়। এর প্রমাণস্বরূপ দেশটির প্রধানমন্ত্রী ওসামা বিন লাদেনকে 'শহীদ' উল্লেখ করা অথবা শার্লি হেবদোর বিচার নিয়ে সাম্প্রতিক বিতর্ক।

তিনি আরও বলেন, বসনিয়াতে উগ্র ইসলামের হুমকি দীর্ঘকাল ধরে রয়েছে। ইন্ডিয়া ব্লুমস, ইইউ ক্রনিকল

ইত্তেফাক/এসআর

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত