নাইজেরিয়ার বিক্ষোভে সেনাবাহিনীর গুলি, নিহত ২০

নাইজেরিয়ার বিক্ষোভে সেনাবাহিনীর গুলি, নিহত ২০
নাইজেরিয়ায় পুলিশের সহিংসতার প্রতিবাদে বিক্ষোভ।

পুলিশের সহিংসতার প্রতিবাদে গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই নাইজেরিয়ায় বিক্ষোভ করছে কয়েক হাজার মানুষ। মঙ্গলবার নাইজেরিয়ার সবচেয়ে বড় শহর লাগোসে বিক্ষোভকারীদেরকে লক্ষ্য করে গুলি চালিয়েছে দেশটির সেনা সদস্যরা। এই ঘটনায় বেশ কয়েকজন আন্দোলনকারী নিহত এবং আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

একজন প্রত্যক্ষদর্শী ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসিকে জানান, সেনাদের গুলিতে কমপক্ষে ২০ জন নিহত হয়েছেন এবং ৫০ জন আহত হয়েছেন। আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামেনেস্টি ইন্টারন্যাশনালও বেশ কয়েকজন আন্দোলনকারীর মৃত্যুর কথা নিশ্চিত করেছে। এদিকে নাইজেরিয়া সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে যে তারা আন্দোলনকারীদের ওপর গুলি চালানোর ঘটনা তদন্ত করবে।

ইতোমধ্যে বিক্ষোভ ঠেকাতে নাইজেরিয়ার লাগোস শহর এবং অন্যান্য প্রদেশেও অনির্দিষ্টকালের জন্য ২৪ ঘণ্টার কারফিউ জারি করা হয়েছে।

নাইজেরিয়ায় জাতীয় পুলিশের বিশেষ একটি বাহিনী বা ইউনিটের নাম স্পেশাল এন্টি-রবারি স্কোয়াড। সংক্ষেপে সার্স। দেশটিতে সশস্ত্র ডাকাতি ও অপহরণের ঘটনা বন্ধ করার জন্য ১৯৯২ সালে এই বাহিনীটি গঠিত হয় । গত ৮ অক্টোবর পুলিশের স্পেশাল অ্যান্টি রবারি স্কোয়াডের (সার্স) বিরুদ্ধে হয়রানি, অত্যাচার ও বিচারবহির্ভূত হত্যার অভিযোগ এনে বিক্ষোভ শুরু করে নাইজেরিয়ার তরুণেরা।

নাইজেরিয়ায় তোলপাড় ফেলে দেওয়া এই আন্দোলনের মুখে প্রেসিডেন্ট মুহাম্মদ বুহারি পুলিশের এই সার্সি বাহিনী ভেঙে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন। একই সাথে যেসব পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে, বিচারের মাধ্যমে তাদেরকে কঠোর শাস্তি দেওয়ারও প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি। কিন্তু তারপরেও এই বিক্ষোভ থামেনি। বিক্ষোভকারীরা বলছেন, এই বাহিনীকে বিলুপ্ত করলেই নির্যাতনের ঘটনা বন্ধ হবে না। এজন্য তারা অভিযুক্ত কর্মকর্তাদের বিচার, নির্যাতনের শিকার পরিবারগুলোকে ক্ষতিপূরণ প্রদান এবং পুলিশের পুরো বাহিনীতে সংস্কারের দাবি জানাচ্ছেন।

ইত্তেফাক/এআর

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত