তালেবানদের নিয়ে শঙ্কায় চীন!

তালেবানদের নিয়ে শঙ্কায় চীন!
প্রতীকী ছবি।

তালেবানরা আফগানিস্তানের ক্ষমতায় এলে জিনজিয়াং প্রদেশে উইঘুর মুসলিম অধ্যুষিত অঞ্চলে নিরাপত্তা বিঘ্ন হওয়ার শঙ্কা করছে চীন । চীন চাইছে তালেবান সরকার ক্ষমতায় আসলেও তা যাতে পাকিস্তান দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। একটি সংবাদ সংস্থায় লেখা মতামতে এমনটি বলেছেন আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক হাবিবা আশনা।

মতামতে আশনা লেখেন, চীনের কাছে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো উগ্র ইসলামপন্থীদের বিরুদ্ধে লড়াই। তালেবানরা ক্ষমতায় গেলে উইঘুর মুসলিম অধুষ্যিত জিনজিয়াংসহ আফগানিস্তানের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে শঙ্কা করছে চীন। আর এ জন্য তালেবান সরকারকে ক্ষমতায় চাইছে না তারা। এছাড়া চীনের জিনজিয়াং প্রদেশের নিরাপত্তা বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ (বিআরআই) এবং মধ্য এশিয়ার এ সম্পর্কিত অনেক প্রজেক্টের সঙ্গে সরাসরি জড়িত। অন্যদিকে পাকিস্তান জঙ্গিদেরকে সমর্থন দিছে। আফগানিস্তান, উজবেকিস্তান, তাজিকিস্তানের মতো বিদেশী যোদ্ধাদের নিয়ে গড়া ওই জঙ্গি গোষ্ঠীদের আবার জিনজিয়াং প্রদেশে নিরাপত্তার নিশ্চিত করার বিষয়ে চীনকে সাহায্য করতে রাজি হওয়ার সম্ভাবনা কম।

আশনার মতে চীনের পাকিস্তান এবং আফগানিস্তানের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়ন করছে যাতে পাকিস্তানের জঙ্গিরা বেইজিংয়ে হামলা না করে এবং বিআরআই প্রজেক্ট যাতে সুরক্ষিত থাকে।

আশনা মতামতে লেখেন, তালেবান এখনো পর্যন্ত চীন বিরোধী কোনো কর্মকাণ্ড ঘটায়নি। ১৯৯০ সালে তালেবানরা ক্ষমতায় আসার পর চীন তালেবানদের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ রক্ষা করেছিল। তবে তালেবানদের ওপর চীনের নিয়ন্ত্রণ নেই । কিন্তু পাকিস্তানের তালেবানে ওপর বেশ নিয়ন্ত্রণ রয়েছে বলে মনে করেন আশনা।

আশনা বলেন, তালেবান-যুক্তরাষ্ট্র শান্তি আলোচনা চীনের উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য ভালো লক্ষণ নয়। অপরদিকে পাকিস্তানও বিশ্বাস করে করে যে তালেবান সরকার ক্ষমতায় আসলে তাদের পশ্চিম সীমান্ত সুরক্ষিত থাকবে। তাই পাকিস্তান তালেবান সরকারকে ক্ষমতা আনার‍ প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবে।

আশনার মতে এমন পরিস্থিতিতে আফগানিস্তান এবং পাকিস্তানের সঙ্গে সম্পর্ক কোন উল্লেখযোগ্য ফলাফল বয়ে আনবে না চীনের জন্য।

ইত্তেফাক/এআর

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত