‘ড্র্যাকোনিয়ান’ সেন্সরশিপ আইনকে নিন্দা করছেন শেরী রেহমান

‘ড্র্যাকোনিয়ান’ সেন্সরশিপ আইনকে নিন্দা করছেন শেরী রেহমান
পিপিপি সংসদীয় নেতা সিনেটর শেরি রেহমান। ফাইল ছবি।

পিপিপি সংসদীয় নেতা সিনেটর শেরি রেহমান ‘ড্র্যাকোনিয়ান’ সেন্সরশিপ আইন নিয়ে নিন্দা প্রকাশ করে বলেন, সত্যকে বিভ্রান্ত করা এবং তা নিয়ন্ত্রণ করা গণতান্ত্রিক সমাজে মোটেও গ্রহণযোগ্য নয়।

দি ইন্টারন্যাশনাল নিউজের বরাতে জানা যায় সোমবার (২৩ নভেম্বর) তিনি এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, "নতুন এ আইনটি মানুষের গোপনীয়তা লঙ্ঘন ও নজরদারি বাড়ানর জন্য বর্তমান সরকারের চেষ্টা।" পিটিএ'র এই বিশৃংখলা নিয়ে শেরী রেহমান আরো বলেন, এই আইন গুলোর আড়ালে সরকার তাদের শক্তিকে বর্ধিত করেছে। এখন পিটিএ কোন কিছু সমন্বয় ও ব্যাখ্যা করা ছাড়াই বিষয়বস্তুগুলো বেআইনি কিনা তার সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন।

তিনি আরও বলেন, কর্তৃপক্ষই অনলাইনে যে কোন কিছুর নিষিদ্ধকরণ ও রোধের ক্ষেত্রে উচ্চ আদালতের জড়িত হবার পূর্বেই তা পর্যালোচনা করতে পারবেন। পাশাপাশি, পিটিএ একদিনের মধ্যেই যে কোন অনাকাঙ্ক্ষিত বিষয়বস্তু অনলাইন থেকে সরিয়ে ফেলতে পারবে।

বেআইনি বিষয়বস্তু অপসারণ এবং অবরুদ্ধকরণ আইন ২০২০ এর আওতায় সরকার সকল অনলাইন কার্যক্রম নিরীক্ষণের মাধ্যমে ডিজিটাল বিষয়বস্তু পর্যালোচনা করবে এবং যদি কোন মিডিয়া প্রতিষ্ঠান সরকারের এই আইনের বিপরীতে যায় তবে প্রয়োজনে শাস্তির বিধানও থাকবে।

মিডিয়া প্রতিষ্ঠান গুলো ছাড়াও এই আইন টেলিকম অপারেটর এবং ব্রডব্যান্ড অপারেটরদের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য।সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান গুলোকে আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, সকল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্রতিষ্ঠান গুলো যেন তাদের ব্যাবহারিক ডেটা সার্ভার পাকিস্তানের অভ্যন্তরে স্থাপন করেন।

ইত্তেফাক/এএইচপি

Nogod
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত