মুম্বাই হামলা: পাকিস্তানের ভূমিকায় হতাশ ইউরোপীয় বিশেষজ্ঞরা

মুম্বাই হামলা: পাকিস্তানের ভূমিকায় হতাশ ইউরোপীয় বিশেষজ্ঞরা
মুম্বাই হামলা।

মুম্বাই হামলার বিচারের ইস্যুতে পাকিস্তানের ভূমিকা একেবারে অগ্রহণযোগ্য বলে মন্তব্য করেছেন ইউরোপীয় বিশেষজ্ঞরা। তাদের দাবি ২৬/১১-এর হামলায় পাকিস্তানি সামরিক বাহিনী জড়িতে ছিল এবং পাকিস্তানে এই হামলার বিচার সত্যিকার অর্থে এগোয়নি। শনিবার দ্য ইউরোপিয়ান ফাউন্ডেশন ফর সাউথ এশিয়ান স্টাডিজের(ইএফএসএএস) পক্ষ থেকে এমন মন্তব্য করা হয়।

ইএফএসএএস'র পক্ষ থেকে বলা হয়, মুম্বাই হামলার পেছনে পাকিস্তানের সামরিক বাহিনীর হাত ছিল। এ জন্যই এই হামলার বিচার সত্যিকার অর্থ এগোয়নি।

২০০৮ মুম্বই জঙ্গি হামলা যা সাধারণত ছাব্বিশে নভেম্বর বা ২৬/১১ নামে পরিচিত। পাকিস্তান থেকে জলপথে অনুপ্রবেশকারী কয়েকজন জঙ্গি ভারতের বৃহত্তম শহর মুম্বাইতে ২০০৮ সালের ২৬ নভেম্বর ১০টিরও বেশি ধারাবাহিক হামলা চালায়। এই হামলার জন্য যে সব জঙ্গিরা তথ্যসংগ্রহ করত, তারা পরে স্বীকার করেছে যে পাকিস্তানের গুপ্তচর সংস্থা ইন্টার-সার্ভিসেস ইন্টেলিগেন্স (আইএসআই) তাদের মদত জোগাত। ২০০৮ সালের ২৬ নভেম্বর থেকে ২৯ নভেম্বর পর্যন্ত এই হামলা চলে। ঘটনায় ১৬৪ জন নিহত ও কমপক্ষে ৩০৮ জন আহত হন। সারা বিশ্বে এই ঘটনা তীব্রভাবে নিন্দিত হয়। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে যে সব তথ্য প্রমাণ এসে সেগুলো বিশ্লেষণ করে দেখা যায় যে ২৬/১১ হামলার মূল পরিকল্পনাকারী ছিলেন নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন লস্কর-ই-তৈয়েবার মূল নেতা হাফিজ সাঈদ, লস্কর-ই-তাইয়েবার (এলইটি) দুই নেতা জাকিউর রহমান লাকভি, সাজিদ মির এবং পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংশা আইএসআই'র মেজর ইকবাল, মেজর সামির, কর্নেল হামজা এবং কর্নেল শাহ জড়িত ছিলেন। তবে এই ঘটনার পর পাকিস্তান সরকার হামলার সঙ্গে সংস্লিষ্টতার কথা অস্বীকার করে । হামলার ঘটনায় পাকিস্তানের সন্ত্রাসবিরোধী আদালতে সাতজন সন্দেহভাজনের বিচার কাজ প্রায় এক দশক ধরে চললেও তাদের বিরুদ্ধে তেমন কোনো প্রমাণ উত্থাপন করা যায়নি।

ইত্তেফাক/এআর

Nogod
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত