মিয়ানমারের শতকোটি ডলার সরানোর চেষ্টা আটকালো যুক্তরাষ্ট্র

বিক্ষোভে ফের গুলি, নিহত ১
মিয়ানমারের শতকোটি ডলার সরানোর চেষ্টা আটকালো যুক্তরাষ্ট্র
ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক, নিউ ইয়র্ক। ছবি: সংগৃহীত

নিউ ইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক থেকে মিয়ানমারের সামরিক জান্তার ১০০ কোটি ডলার সরানোর একটি চেষ্টা আটকে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন সরকারের কর্মকর্তাসহ অন্তত তিনটি সূত্র এই তথ্য নিশ্চিত করেছে। এদিকে মিয়ানমারে একদিনে গুলিতে ৩৮ জন নিহত হওয়ার পরও বিক্ষোভ অব্যাহত আছে এবং গতকালও বিক্ষোভে গুলিতে এক গণতন্ত্রপন্থির প্রাণ গেছে।

সূত্র জানায়, গত ৪ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নামে ১০০ কোটি ডলার সরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করা হয়। তখনই ফেডারেল সেফগার্ড বাধা দেয়। মার্কিন কর্মকর্তারা তহবিল স্থানান্তরের প্রক্রিয়া আটকে দেন। এরপর প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এক নির্বাহী আদেশে এই অর্থ স্থানান্তর আটকাতে কর্মকর্তাদের বৈধতা দেন। নিউ ইয়র্কের ফেড এবং মার্কিন অর্থমন্ত্রণালয় এ বিষয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে।

মিয়ানমারের টাকা স্থানান্তরের চেষ্টা আটকে দেওয়ার ঐ ঘটনা আগে জানাজানি না হলেও সম্প্রতি দেশটির সামরিক কর্তৃপক্ষ কেন্দ্রীয় ব্যাংকে নতুন একজন গভর্নর নিয়োগ দিয়ে গণতন্ত্রপন্থি কর্মকর্তাদের আটক করলে নিউ ইয়র্ক ফেডের ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসে। মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চিসহ নির্বাচিত সরকারের প্রতিনিধিদের গ্রেপ্তার করে সেনাবাহিনী রাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞার ঝুঁকি কমিয়ে আনতেই নিউ ইয়র্ক ফেড থেকে টাকা সরিয়ে ফেলার চেষ্টা করে দেশটির সামরিক শাসকরা। তবে এ বিষয়ে মিয়ানমারের সামরিক কর্তৃপক্ষ বা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কারো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

মিয়ানমারের ওপর গত বৃহস্পতিবার বাণিজ্যিক নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্টসহ বেশ কয়েক জন সেনা কর্মকর্তা ও প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এবার দেশটির একাধিক মন্ত্রণালয়ের ওপর বাণিজ্যিক নিষেধাজ্ঞা জারির ঘোষণা দিয়েছে বাইডেন প্রশাসন। মিয়ানমারের প্রতিরক্ষা ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিরুদ্ধে বাণিজ্যিক নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য দপ্তর। শুধু তাই নয়, ‘মিয়ানমার ইকোনমিক করপোরেশন’ ও ‘মিয়ানমার ইকোনমিক হোল্ডিংস পাবলিক কোম্পানি’ নামে দুটি সরকারি সংস্থাকেও বাণিজ্যের ক্ষেত্রে কালো তালিকাভুক্ত করেছে বাইডেন প্রশাসন। হোয়াইট হাউজ সূত্রে জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার তালিকায় রয়েছে ‘টাটমাডাও’ বা মিয়ানমার সেনার একাধিক কর্মকর্তা ও তাদের পরিবারের সদস্যরা। এর ফলে যুক্তরাষ্ট্রে তাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ করা হবে। একই সঙ্গে মিয়ানমারে স্বাস্থ্য ও জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত সরঞ্জাম ছাড়া অন্য পণ্যের রফতানি বন্ধ করতে পারে ওয়াশিংটন।

মিয়ানমারে সারা দেশের অধিকাংশ অঞ্চলে বিদ্যুত্ সরবারহ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। তবে সরকারি সংস্থাগুলো বলছে, ব্যবস্থাপনায় বিপর্যয় ঘটার কারণে এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। গতকাল শুক্রবার স্থানীয় সময় দুপুর দেড়টার দিকে লোকজন টুইটার ও ফেসবুকে পোস্ট দিতে থাকে যে বাণিজ্যিক কেন্দ্র ইয়াংগুনের সব জায়গা বিদ্যুত্হীন হয়ে পড়েছে।

বিক্ষোভে ফের গুলি, নিহত ১

দেশটিতে গতকাল বিক্ষোভে আবার গুলি করা হয়েছে এবং এতে একজন নিহত হয়েছে। গতকাল ইয়াংগুনসহ বিভিন্ন শহরে বিক্ষোভ হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, শুক্রবার বিক্ষোভে প্রকাশ্যে গুলি চালিয়েছে পুলিশ। এতে একজন মারা গেছে। গত পহেলা ফেব্রুয়ারি অভ্যুত্থানের পর এ নিয়ে ৫৫ জনের প্রাণ গেল নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে। মিয়ানমার নিয়ে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ জরুরি বৈঠকে বসছে।

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x