সহিংসতায় ‘নিহতের’ দায় বিক্ষোভকারীদের: মিয়ানমার সেনাবাহিনী

সহিংসতায় ‘নিহতের’ দায় বিক্ষোভকারীদের: মিয়ানমার সেনাবাহিনী
জেনারেল জাও মিন তুন। ছবি: সংগৃহীত

গত পহেলা ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারে গণতান্তিকভাবে নির্বাচিত সরকারকে উৎখাত করে ক্ষমতা দখল করেছে দেশটির সামরিক বাহিনী। এ ঘটনাকে সামরিক অভ্যুত্থান হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে পুরো বিশ্বই এর নিন্দা জানিয়েছে। তবে এটিকে ‘অভ্যুত্থান’ নয় বলে দাবি করেছেন মিয়ানমার সামরিক বাহিনীর মুখপাত্র মেজর জেনারেল জাও মিন তুন। মার্কিন গণমাধ্যম সিএনএনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এ দাবি করেন।

জেনারেল জাও মিন তুন বলেন, গত বছর অনুষ্ঠিত হওয়া সাধারণ নির্বাচনে জালিয়াতির তদন্ত করতে তারা আপাতত দেশকে সুরক্ষা দিচ্ছেন। এ কারণেই ক্ষমতা দখল করা। আর এখন অবধি বিক্ষোভে যারা নিহত হয়েছেন, সেটির জন্য আন্দোলনকারীরা দায়ী। তারা বিক্ষোভ না করলে এত প্রাণহানীর ঘটনা ঘটতো না।

এর আগে ফেব্রুয়ারিতে ক্ষমতা দখল করার পর দেশজুড়ে এক বছরের জরুরি অবস্থা জারি করার ঘোষণা দেয় মিয়ানমার সেনাবাহিনী। একইসঙ্গে জানানো হয় যে, জরুরি অবস্থা শেষে একটি সুন্দর ও সুষ্ঠু সাধারণ নির্বাচনের আয়োজন করার মধ্য দিয়ে নির্বাচিত সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করা হবে।

এ প্রসঙ্গে সেনাবাহিনীর মুখপাত্র বলেন, যদি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে তদন্ত কার্যক্রম পুরোপুরি শেষ না হয় তাহলে জরুরি অবস্থার মেয়াদ আরো বাড়তে পারে। ছয় মাস কিংবা আরো বেশি বাড়ানো হবে। এক্ষেত্রে সাধারণ নির্বাচনও পেছানো হবে। মোটকথা, আগামী দুই বছরের মধ্যে আমাদের সবকিছু সম্পন্ন করতে হবে। এর মধ্যে নির্বাচনের আয়োজনও করতে হবে এবং এ ব্যাপারে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

মিয়ানমারে সব মিলে গত ১ ফেব্রুয়ারি থেকে নিহতের সংখ্যা প্রায় ৬০০। আটক করা হয়েছে কমপক্ষে ২৮৪৭ জনকে। শত শত মানুষের বিরুদ্ধে ইস্যু করা হয়েছে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা।

ইত্তেফাক/টিএ

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x