পরিবেশ রক্ষায় ব্যর্থতার অভিযোগ ফ্রান্সে ম্যাক্রঁর বিরুদ্ধে বিশাল বিক্ষোভ

পরিবেশ রক্ষায় ব্যর্থতার অভিযোগ ফ্রান্সে ম্যাক্রঁর বিরুদ্ধে বিশাল বিক্ষোভ
ছবি: সংগৃহীত।

পরিবেশ রক্ষায় ব্যর্থতার অভিযোগ তুলে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রঁর বিরুদ্ধে বড় বিক্ষোভ হয়েছে। পরিবেশের পরিবর্তন রুখতে একটি বিল এনেছেন ম্যাক্রঁ। কিন্তু পরিবেশবিদ ও অধিকাররক্ষা কর্মীরা মনে করছেন, ম্যাক্রঁ বিলে যে ব্যবস্থার কথা বলেছেন, তা যথেষ্ট নয়। তাই রবিবার ফ্রান্স জুড়ে তারা বিক্ষোভ দেখান।

ফ্রান্স জুড়ে ১৬০টা প্রতিবাদ মিছিল হয়েছে। সংগঠকদের দাবি, তাতে ১ লাখ ১৫ হাজার মানুষ যোগ দিয়েছেন। বেশ কিছু এনজিও ও ট্রেড ইউনিয়ন বিক্ষোভে যোগ দেয়। যোগ দেয় ছাত্ররাও। পুলিশ অবশ্য বলছে, সব মিলিয়ে বিক্ষোভকারীর সংখ্যা ৪৭ হাজারের মতো। প্যারিসে বিক্ষোভে অংশ নেওয়া প্যাট্রিশিয়া বলেছেন, তিনি প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁকে নিয়ে হতাশ। পরিবেশ রক্ষায় তিনি উপযুক্ত ব্যবস্থা নেননি।

ম্যাক্রঁর বিল ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে পাশ হয়েছে। সেই বিলে বলা হয়েছে, ফ্রান্সের ভেতরে যেখানে প্লেনে যেতে খুব বেশি হলে আড়াই ঘণ্টার মতো লাগে এবং যেখানে ট্রেনে যাওয়া যায়, সেখানে ট্রেনে যেতে হবে। ইলেকট্রিক গাড়ির ব্যবহার বাড়ানো হবে। যেসব বহুতল ভবনে প্রচুর বিদ্যুত্ ব্যবহার করা হয়, তার নবীকরণ হয়।

২০১৭ সালে ম্যাক্রঁ প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তিনি পরিবেশ নিয়ে গণভোট করবেন। কিন্তু ফ্রান্সের একটি সাপ্তাহিক রবিবার জানিয়েছে, সেই পরিকল্পনা আপাতত স্থগিত রাখা হয়েছে। ফ্রান্সের সংবিধান অনুসারে এই গণভোট নিতে হলে পার্লামন্টের উভয় কক্ষে তা অনুমোদন করাতে হয়। কিন্তু উচ্চকক্ষ সিনেটে ম্যাক্রঁবিরোধী রিপাবলিকান পার্টির সংখ্যাগরিষ্ঠতা আছে। তাদের সঙ্গে পরিবেশসংক্রান্ত গণভোট নিয়ে মতৈক্যে পৌঁছাতে পারেননি ম্যাক্রঁ। তিনি অবশ্য বলেছেন, গণভোটের সিদ্ধান্ত বাতিল করা হচ্ছে না।

ফ্রান্স ১০ হাজার কোটি টাকার করোনা-প্যাকেজ হাতে নিয়েছে। তাতেও যানবাহন থেকে নির্গত ধোঁয়া কমানোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়া ২০৩০ সালের মধ্যে গ্রিনহাউজ গ্যাসের পরিমাণ ১৯৯০ সালের তুলনায় ৫৫ শতাংশ করা হবে। গত মাসে ইইউ সিদ্ধান্ত নিয়েছে, ২০৫০ সালের মধ্যে ‘ক্লাইমেট নিউট্রাল’-এর লক্ষ্য নিয়ে চলবে তারা। —ডয়েচেভেলে

ইত্তেফাক/এসএ

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x