দুর্বল কংগ্রেস মমতাই প্রধান বিরোধী মুখ!

দুর্বল কংগ্রেস মমতাই প্রধান বিরোধী মুখ!
মমতা ব্যানার্জি। ছবি: সংগৃহীত

ভারতের রাজনীতিতে জাতীয় কংগ্রেস দলের এমন দুরবস্থা হয়তো আগে কখনোই দেখা যায়নি। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে পরাজয়ের পর থেকে দলটির বিপর্যয় শুরু হয়! এই সাত বছরে দলটি ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি। এনডিটিভির এক নিবন্ধে বলা হয়েছে, আসলে ঘুরে দাঁড়ানোর মতো আগ্রহ কংগ্রেস দলে দেখা যায়নি।

ঐ নিবন্ধে বলা হয়েছে, অনেক কিছুই পরিবর্তিত হয়ে গেছে। কিন্তু কংগ্রেস পার্টি এখনো সেই আগের মতোই রয়েছে। সর্বশেষ পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে ভালো কিছু করতে পারেনি দলটি। গত ২ মে ফল ঘোষণার পর কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী এসব রাজ্যের কংগ্রেস নেতাদের বিপর্যয়ের ব্যাখ্যা দিতে বলেছেন।

তবে দলটির পক্ষ থেকে এ ধরনের ব্যাখ্যা চাওয়ার ঘটনা এই প্রথম নয়। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে ভরাডুবির পর তারা এ ধরনের ব্যাখ্যা চেয়েছিল। কিন্তু এরপর দলটির পক্ষ থেকে ভুল শোধরাতে কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, তা জানা যায়নি। ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের পরও একইভাবে ব্যাখ্যা চাওয়া হয় দলীয় নেতাদের কাছ থেকে।

নির্বাচনের এ ধরনের ফল বিপর্যয়ে দলটির অবশ্যই উদ্বিগ্ন হওয়ার কথা। গত সাত বছরে ৩৯ রাজ্যে বিধানসভার নির্বাচন হয়েছে। সেখানে মাত্র পাঁচটি বিধানসভায় জয়ী হয়েছে ভারতের সবচেয়ে বেশি সময় ক্ষমতায় থাকা দলটি। আসামে তারা এইউডিএফের সঙ্গে জোট করেও ক্ষমতায় আসতে পারেনি। পুদুচেরিতেও তারা ব্যর্থ হয়েছে। সর্বশেষ লোকসভা নির্বাচনে কেরালায় তারা ২০টির মধ্যে ১৫টি আসনে জয় পেলেও এবার বিধানসভায় তারা ভালো করতে পারেনি। রাহুল গান্ধীর ব্যাপক প্রচারণা সত্ত্বেও তারা কেরালার ১৪০ আসনের মধ্যে ২১টিতে জিতেছে।

পশ্চিমবঙ্গে তারা একটি আসনও পায়নি। শুধু তামিল নাড়ুতে তারা সান্ত্বনার জয় পেয়েছে। সেখানে তাদের জোট সরকার গড়েছে। নির্বাচনে দলের এসব বাজে ফল বলছে তারা অতীতের ভুল থেকে শিক্ষা নেয়নি। গত লোকসভা নির্বাচনের পর সভাপতি পদ থেকে পদত্যাগ করেন রাহুল গান্ধী। এরপর থেকে অন্তর্বর্তী সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে চলেছেন সোনিয়া গান্ধী। দলের দায়িত্ব নিতে এখনো রাহুল গান্ধীকে রাজি করানো যায়নি আবার তার বিকল্পও খুঁজে পায়নি। এই সংকটের সহসা কোনো সমাধান আছে বলেও মনে হচ্ছে না।

নিবন্ধে বলা হয়েছে, কংগ্রেসের পায়ের তলা থেকে দ্রুতই মাটি সরে যাচ্ছে। দেশজুড়ে দলটির রাজনৈতিক প্রভাব দিন দিন সংকুচিত হয়ে আসছে। বর্তমানে তিন রাজ্য পাঞ্জাব, রাজস্থান এবং ছত্তিশগড়েই তাদের সরকার রয়েছে। তামিল নাড়ুতে তাদের জোট ক্ষমতায় এলেও সেখানে প্রভাব খাটানোর মতো অবস্থায় তারা নেই।

কংগ্রেসের এই দুরবস্থায় আঞ্চলিক দলগুলোর যেমন উত্থান হয়েছে তেমনি মমতা ব্যানার্জির মতো নেতারা অনেক বেশি প্রভাবশালী হয়ে উঠেছেন। সবচেয়ে বেশি সময় ভারতের ক্ষমতায় থাকার পরও দলটি যেন নির্বাচনে জিততে ভুলে গেছে। কংগ্রেস আগামী ২০২৪ সালের নির্বাচনে নরেন্দ্র মোদিকে চ্যালেঞ্জ করবে এমন দাবিও আর করতে পারে না। বরং পশ্চিমবঙ্গের তিনবারের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিই এখন প্রভাবশালী বিরোধী নেতা হিসেবে নিজেকে দাবি করতে পারেন।

কারণ এবারের পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি মমতার তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে সর্বশক্তি দিয়ে লড়াই করেছে। নরেন্দ্র মোদি নিজে মমতার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অবতীর্ণ হয়েছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত গতবারের চেয়ে বেশি আসন পেয়ে আবারও ক্ষমতায় এসেছে মমতার তৃণমূল কংগ্রেস। নরেন্দ্র মোদির জয়ের রথ থেমেছে পশ্চিমবঙ্গে। তাই দুর্বল কংগ্রেসের কারণে ভারতে সবচেয়ে প্রভাবশালী বিরোধী মুখ এখন মমতা ব্যানার্জি।

ইত্তেফাক/টিআর

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x