বিপাকে ইসরাইলের আরব বন্ধুরা

বিপাকে ইসরাইলের আরব বন্ধুরা
ছবি: সংগৃহীত।

ফিলিস্তিনিদের অধিকারের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন করা হচ্ছে উল্লেখ করে ইসরাইলের প্রতি নিন্দা জানিয়েছেন সৌদি আরবের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিন্স ফয়সাল বিন ফারহান আল সৌদ। সামরিক অভিযান বন্ধে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে জরুরি ভিত্তিতে উদ্যোগ নেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

এদিকে ইসরাইল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে সংঘাতে বিপাকে ইসরাইলের আরব বন্ধুরা, যারা সম্প্রতি সম্পর্ক স্বাভাবিক করেছে। গত আগস্টে ইসরাইলের সঙ্গে প্রথমে সংযুক্ত আরব আমিরাত ও তারপর একে একে বাহরাইন, মরক্কো, সুদান কূটনৈতিক সম্পর্ক চালু করে। এখন ইসরাইল ও হামাসের মধ্যে কার্যত যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর ঐ দেশগুলো চুপ করে থাকাই শ্রেয় মনে করছে।

ইউরোপিয়ান কাউন্সিল অন ফরেন রিলেশনস (ইসিএফআর) এর বিশ্লেষক ও ভিজিটং ফেলো সিনজিয়া বিয়ানকো ডয়চেভেলেকে বলেছেন, ‘ইরান ও তুরস্ক এই পরিস্থিতির সুযোগ নেবে ও ইসরাইলের বন্ধু দেশগুলোকে আক্রমণ করবে এটা স্বাভাবিক। আরব দেশগুলো সমালোচনায় মুখর হলে আমিরাত, বাহরাইন, মরক্কো, সুদানের ওপর ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক বজায় রাখা নিয়ে চাপ বাড়বে। এমনিতেই ঐ দেশের মানুষদের একাংশ ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। তাই ঐসব দেশের প্রধানদের বলতে হয়েছে, মধ্যপ্রাচ্যের সমস্যা সমাধানের জন্যই তারা ঐ পদক্ষেপ নিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, আমিরাত ও ইসরাইলের মধ্যে যখন চুক্তি হচ্ছে, তখন আবুধাবির যুবরাজ বলেছিলেন, ফিলিস্তিনের এলাকায় ইসরাইল আর আগ্রাসন চালাবে না। যদিও সংযুক্ত আরব আমিরাত দুই পক্ষকেই অস্ত্র সংবরণের আহ্বান জানিয়েছে। ফিলিস্তিনিদের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করেছে বাহরাইন। মরক্কো ঘোষণা করেছে তারা পশ্চিম তীর ও গাজায় ৪০ টন খাদ্য, ওষুধ ও কম্বল পাঠাবে। মিশর ইসরাইল ও হামাস নেতাদের সঙ্গে অস্ত্রবিরতির আলাপ শুরু করেছে, যদিও সমঝোতায় এখনো পৌঁছানো যায়নি।

ইত্তেফাক/টিআর

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x