হিজাবের প্রতি ফ্রান্সের বৈরিতা নিয়ে এক মুসলিম নারীর অভিজ্ঞতা

হিজাবের প্রতি ফ্রান্সের বৈরিতা নিয়ে এক মুসলিম নারীর অভিজ্ঞতা
ফ্রান্সের দুই মুসলিম নারী। ছবি: সংগৃহীত

ফ্রান্স সরকার নতুন একটি আইন পাশ করেছে। যা জনসম্মুখে নারীদের স্কার্ফ ও হিজাব পরার অধিকারকে গুরুতরভাবে সীমিত করতে পারে। আশঙ্কা রয়েছে যে, এটি ইসলামোফোবিয়াকে আরও ছড়িয়ে দিতে পারে। খবর প্রকাশ করেছে ব্রিটিশ গণমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সমালোচকরা বলছেন, নতুন আইন মসজিদ নির্মাণকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করবে এবং স্থানীয় সরকার কর্তৃপক্ষকে "রিপাবলিকান নীতির" বিরোধী হিসেবে বিবেচিত স্থানীয় সংস্থাগুলো বন্ধ করতে আরও বিচক্ষণতা দেবে। এই শব্দটি বিশেষত মুসলমানদের বিরুদ্ধে কার্যকরভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। তবে সবচেয়ে বিতর্কিত বিষয়গুলোর মধ্যে অন্যতম হলো, সরকারি ক্ষেত্রগুলোতে স্কার্ফ পরা নারীদের ওপর নিষেধাজ্ঞা বাড়ানো।

আইনটির আরও সংশোধনীতে ১৮ বছরের কম বয়সী মেয়েদের সর্বজনীনভাবে হিজাব পরা নিষিদ্ধ এবং বাচ্চাদের স্কুল ভ্রমণে মায়েদের হিজাব পরা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। অবশ্য এগুলো পরবর্তীতে বাদ দেওয়া হয়।

ফরাসি আইনজীবি রিম-সারা আলাউনে বলেন, আমরা নিরাপত্তার নামে স্বাধীনতা এবং মৌলিক অধিকার লঙ্ঘনের ন্যায্যতা দেখতে পাচ্ছি। যেখানে ধর্মনিরপেক্ষতা কেবল একটি অস্ত্র। এটি একটি বিকৃত আইন। যার লক্ষ্য কেবল মুসলমানদের ধারণ করা নয়, বরং জনসাধারণের ক্ষেত্র থেকে তাদের মুছে ফেলা।

নওরা নামের এক ফরাসি মুসলিম নারী তার জীবনে ঘটে যাওয়া প্রাতিষ্ঠানিক ইসলামফোবিয়ার অভিজ্ঞতা এবং ভবিষ্যতের ভয় সম্পর্কে কথা বলেছেন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন গবেষক এবং তিন সন্তানের মা। প্যারিসের একটি মধ্যবিত্ত পাড়ায় বসবাস করেন।

নওরা বলেন, ২০১৯ সালে যখন আমার ছেলের আট বছর বয়স তখন আমি তার স্কুলে একজন নিয়মিত স্বেচ্ছাসেবক ছিলাম। শিক্ষকরাও এতে রাজি ছিলেন। কিন্তু পরদিন সকালে স্কুলে পৌঁছানোর পর দেখলাম প্রধানশিক্ষক অন্যান্য শিক্ষকদের সঙ্গে আমার সম্পর্কে কথা বলছেন। এক শিক্ষক আসেন এবং আমাকে চলে যেতে বলেন। বাসে জায়গা না থাকার বিষয়ে একটি অজুহাত দেখানো হয় কেবল। আমি তাকে চ্যালেঞ্জ জানালাম, কেনো আমাকে অভিভাবক হিসেবে চলে যেতে বলা হচ্ছে।

প্রধানশিক্ষক এসে বললেন: ‘আপনার বুঝতে হবে, আমরা এখানে একটি প্রজাতন্ত্রের, এখানে ধর্মনিরপেক্ষতার নীতি আছে, এবং যদি আপনি এটি পছন্দ না করেন তবে বাড়িতে যান।' তথ্যের জন্য আমি তাকে ধন্যবাদ জানালাম। বললাম, ফ্রান্সের একটি শীর্ষ বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে আমি একাডেমিক গবেষক হিসেবে রয়েছি। যোগ করেন তিনি।

বলেন, যেহেতু আমি জানতাম আইন আমাকে সেখানে থাকতে বাধা দেয়নি, তাই আমাকে কেনো স্কুল ত্যাগ করতে বলা হচ্ছে তা উল্লেখ করে আমি একটি লিখিত চিঠি চেয়েছি। সে (প্রধানশিক্ষক) তখনই পুলিশকে ফোন করলেন। তিনি নিশ্চয়ই বলেছিলেন যে, আমি তাকে হুমকি দিচ্ছি। কারণ, তারা অবিলম্বে এসে উপস্থিত হয়েছিল। স্কুল বাস, পিতা-মাতা, সমস্ত শিক্ষার্থী এবং আমার ছেলের সামনে দু'জন অফিসার পূর্ণ বক্তৃতা দিতে শুরু করলো যে ‘এটি একটি ধর্মনিরপেক্ষ দেশ, আপনাকে চলে যেতে হবে।’

এই মুসলিম নারী আরও বলেন, এই বিষয়টি আমাকে খুবই অপমানিত করেছে, আমি সবার সামনে কাঁদতে শুরু করেছিলাম; আমার ছেলে পুরো দৃশ্যটি প্রত্যক্ষ করেছে। আমি তাদের বলেছি যে, তারা যা করছে সেটা প্রাতিষ্ঠানিক বর্ণবাদ এবং আইন সম্পর্কে জানে না। তারা নিজেরাই বিভ্রান্ত হয়েছিল।

ওই দিনটির পর আমার ছেলে আর স্কুলে যেতে চায়নি। আমি তাকে আশ্বস্ত করতে পারিনি। বেশ কয়েকটি মানবাধিকার গোষ্ঠীর কাছে একটি আনুষ্ঠানিক অভিযোগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। কিন্তু তারা আমাকে এবং শিক্ষামূলক লোককে রক্ষা করতে অস্বীকার করে। প্রধানশিক্ষক ক্ষমা চাইতে অস্বীকার করেন। আমি মামলা না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। কারণ, এটি আমার এবং ছেলের জন্য আবেগের কারণ ছিল। যোগ করেন তিনি।

‘নতুন আইনটির কারণে আমি এই দেশের ভবিষ্যত সম্পর্কে চরম হতাশাবোধ করছি। আমি এখানে আর ভবিষ্যত দেখতে পাচ্ছি না। আমরা অনাকাঙ্ক্ষিত, অযৌক্তিক এবং আমাদের প্রতীকী সহিংসতার গুরুতর মানসিক ক্ষত রয়েছে। আমরা প্রায়শই শুনি, ফ্রান্সে একীকরণের সমস্যা আছে, তবে যা আছে তা বর্ণবাদ সমস্যা।’

ইত্তেফাক/টিএ

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x