আমি না জিতলে অন্য কেউ মুখ্যমন্ত্রী হবেন: মমতা

আমি না জিতলে অন্য কেউ মুখ্যমন্ত্রী হবেন: মমতা
ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি [ছবি: সংগৃহীত]

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বলেছেন, ভবানীপুর আসনের উপনির্বাচনে তিনি না জিতলে অন্য কেউ মুখ্যমন্ত্রী হবেন। তাই মুখ্যমন্ত্রী পদে রাখতে তাকেই ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

গতকাল বুধবার ভবানীপুরে প্রচারণাকালে তিনি এ কথা বলেন। তৃণমূল নেত্রী বলেন, আমি না জিতলে অন্য কেউ মুখ্যমন্ত্রী হবেন। আমাকে মুখ্যমন্ত্রী রাখতে ভোট দিন। আমার কাছে প্রতিটি ভোট দামি।

পশ্চিমবঙ্গের ভোটে এগিয়ে মমতার তৃণমূল!

আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়েছে, ভবানীপুরে চেনা মেজাজেই ছিলেন মমতা। ঠিক যেমনটা দেখা গিয়েছিল বিধানসভা নির্বাচনের সময়। ভবানীপুরের জনসভায় তিনি বলেন, ২০২১ সালের নির্বাচনে কৃষক আন্দোলনের জায়গা নন্দীগ্রাম থেকে দাঁড়ানোর অনুরোধ করা হয়েছিল। তাই দাঁড়িয়েছিলাম। কিন্তু সেখানে কীভাবে হারানো হয়েছে তা প্রকাশ্যে আসবে। আদালতে মামলা চলছে। জানা যাবে, আমার বিরুদ্ধে সেখানে কী করা হয়নি!

তিনি বলেন, মমতা ব্যানার্জি মুখ্যমন্ত্রী হলে ভবানীপুর থেকেই হবে। এটা ভাগ্যের খেলা। আপনাদের ছেড়ে যাওয়া আমার পক্ষে সম্ভব নয়। তিনি বলেন, অনেকে ভাবছেন আমি এমনিতেই জিতে যাব। কিন্তু প্রতিটা ভোট দামি। একটা ভোট না দিলে আমার ক্ষতি হবে।

জনসভা থেকে বিজেপিকে আক্রমণ করে মমতা বলেন, আমি মোদি-শাহকে দাদা-ভাই বলতে পারি। এটা সৌজন্য। কিন্তু তাই বলে ভারতে তালেবানি শাসন মেনে নেব না। এ দেশে সবাই থাকবে। দেশকে টুকরো করতে দেব না। রাজ্যকেও টুকরো করতে দেব না। সাধারণ মানুষের মধ্যেও বিভাজন আসতে দেব না। বিজেপিকে সতর্ক করে বলেন, আপনারা যদি নিজেরে বুনো ওল মনে করেন, তা হলে আমরা কিন্তু বাঘা তেঁতুল।

ত্রিপুরায় ১৪৪ ধারা জারি নিয়েও প্রশ্ন তোলেন মমতা। তিনি বলেন, প্রয়োজনে ত্রিপুরা, আসাম, গোয়া এবং উত্তর প্রদেশে খেলা হবে। মমতা বলেন, আপনাদের এক একটি ভোট আগামী দিনে দিল্লির পথে পা বাড়াতে সাহায্য করবে। আপনাদের ভোট দাঙ্গাবাজদের রুখে দিতে সাহায্য করবে।

এদিকে গতকাল ভবানীপুরে প্রচারণা চালান বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। এ সময় তিনি পুলিশের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন। আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়েছে, সুকান্ত মজুমদারকে প্রচারণার জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে যে রুট ঠিক করে দেওয়া হয়েছিল হঠাৎ তা ভঙ্গ করেন তিনি।

ইত্তেফাক/এমআর

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x