ধর্ষককে সৌদি আরব থেকে ধরে আনলেন পুলিশ কর্মকর্তা

প্রকাশ : ২১ জুলাই ২০১৯, ০৯:৫৮ | অনলাইন সংস্করণ

  অনলাইন ডেস্ক

ভারতের সবচেয়ে কমবয়সী নারী পুলিশ কমিশনার মেরিন জোসেফ।ছবি: সংগৃহীত

ধর্ষণে অভিযুক্তকে সুদূর সৌদি আরব থেকে ধরে আনলেন ভারতের সবচেয়ে কমবয়সী নারী পুলিশ কমিশনার মেরিন জোসেফ। আর এই সাহসিকতার কারণে সংবাদ শিরোনামে উঠে এসেছে ২৯ বছর বয়সী কেরালার এই পুলিশ কর্মকর্তার নাম। ​

২০১৭ সালে কেরালার কল্লামে ১৩ বছরের কিশোরীকে ধর্ষণ করে ৩৮ বছরের অভিযুক্ত সুনীল কুমার বর্ধন। নির্যাতিতা সুনীলের বন্ধুরই ভাইঝি। চকোলেটের লোভ দেখিয়ে নিজের বাড়িতে ডেকে নিয়ে এসে কিশোরীর উপর যৌন নির্যাতন চালাত সুনীল। লাগাতার তিন মাস ধরে চলে এই নির্যাতন। হুমকি দিয়ে মেয়েটির মুখ বন্ধ রেখেছিল সে। পরে ওই কিশোরী পুরো ব্যাপারটি তার পরিবারের লোকজনকে জানায়। তখন সুযোগ বুঝে সৌদি আরবে পালিয়েছে সুনীল। সেখানে গিয়ে টাইলস মিস্ত্রীর কাজও শুরু করে সে। পরে ওই নাবালিকা কেরালার কল্লামের কারিকোড মহিলা মন্দিরম রেসকিউ হোম নামে একটি সরকারি হোমে আত্মহত্যার করে। 

এরপর কেটে গিয়েছে দু’দুটো বছর। কিন্তু এই কেসের সুরাহা হয়নি। তবে মেরিন যখন এই কেসের দায়িত্ব পেলেন তখন তিনি ওই নাবালিকার পরিবারকে সুবিচার পাইয়ে দেওয়ার চেষ্টা শুরু করেন। শিশু ধর্ষণে অভিযুক্তকে ধরতে সৌদি আরব রওনা দেওয়ার পরিকল্পনা করেন তিনি। কিন্তু তখনও বুঝে উঠতে পারেননি, রিয়াদে পৌঁছনোর পরিকল্পনা কতটা বাস্তবায়িত হবে!

কিন্তু অপরাধ দমনের মরিয়া চেষ্টায় অবশেষে সফল কেরালার পুলিশ কমিশনার মেরিন জোসেফ। অপরাধীকে ধরে ফিরে এসে সংবাদ সংস্থা ইন্ডিয়া টুডে-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মেরিন জানিয়েছেন, এই কেসের ব্যাপারে উৎসাহী ছিলেন তিনি। মহিলা সংক্রান্ত কেসে তার উৎসাহ আছে।

আরও পড়ুনঃ ইঞ্জিনে ডিম-সহ পাখির বাসা, দেড় মাস গাড়ি চালালেন না চালক

মেরিনের কথায়, “লাগাতার দু’বছর ধরে অপরাধীকে খুঁজছিলাম আমরা। আমার গোটা টিম ও সিবিআই কর্তারাও তদন্তের চালাচ্ছিলেন। কেরল পুলিশের আন্তর্জাতিক তদন্তকারী শাখা সৌদি পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে। তারপরই আমরা একটা পরিকল্পনা করি। গোটা দল সমেত পৌঁছে যাই রিয়াধে। সৌদি পুলিশের সাহায্যে খুঁজে বার করা হয় অভিযুক্ত সুনীলকে।”

ইত্তেফাক/টিএস