মঙ্গলবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
দৈনিক ইত্তেফাক

বিদেশগামী পর্যটকের ১৫ ভাগের বেশি যাচ্ছেন চিকিৎসা গ্রহণে

• জিডিপিতে অবদান ৩ দশমিক শূন্য ২ শতাংশ
• ৬০ ভাগ পর্যটকের গন্তব্য ভারতে
• কর্মসংস্থানের আট ভাগ পর্যটন খাতে

প্রকাশ : আপডেট : ২৬ নভেম্বর ২০২১, ০২:৩০

দেশের মোট কর্মসংস্থানের ৮ দশমিক শূন্য ৭ ভাগ হচ্ছে পর্যটন খাতে। এই খাতে মোট দেশজ উত্পাদনে (জিডিপি) অবদান দাঁড়িয়েছে ৩ দশমিক শূন্য ২ শতাংশ। পর্যটন খাত নিয়ে করা বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) জরিপে এ তথ্য উঠে এসেছে। বিবিএসের হিসাবে বহির্গামী পর্যটকদের সবচেয়ে বেশি ৪৫ শতাংশ পর্যটক তাদের আত্মীয়স্বজন এবং বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য বিদেশ ভ্রমণ করেছেন। বহির্গামী পর্যটকদের মধ্যে ১৫ দশমিক ৭৬ শতাংশ যাচ্ছেন চিকিৎসাসেবা নিতে। মাত্র ১২ দশমিক ৭৭ শতাংশ যাচ্ছেন ছুটি বা বিনোদন সময় কাটাতে।  বিদেশে যারা পর্যটনের জন্য যাচ্ছেন তাদের ২৫ ভাগ অর্থ ব্যয় হচ্ছে স্বাস্থ্য পরীক্ষা বা চিকিৎসাসেবা গ্রহণে। 

‘ট্যুরিজম স্যাটেলাইট একাউন্ট ২০২০’ শিরোনামে এই জরিপ প্রতিবেদনটি সম্প্রতি প্রকাশ করেছে বিবিএস। মূলত ২০১৮-১৯ অর্থবছরের তথ্য বিবেচনা করে এই জরিপটি করা হয়। দেশের অর্থনীতিতে পর্যটন শিল্পের অবদান, কর্মসংস্থান, ভোগ, উত্পাদন ইত্যাদি বিষয়ে ধারণা পেতে এই জরিপটি করা হয়েছে। জরিপ সংশ্লিষ্টরা জানান, চলতি বছর জুনে এই প্রতিবেদনটি চূড়ান্ত করা হয়েছে। করোনা পরিস্থিতিতে দেশের পর্যটন খাত সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সেই বিবেচনায় করোনা-পূর্ববর্তী অর্থবছরের তথ্য নিয়ে এই জরিপটি করা হয়েছে। দেশের অর্থনীতিতে পর্যটনের অবদান জানতে এই জরিপটি করা হয়েছে।

 জরিপে বলা হয়েছে, জাতীয় পর্যায়ে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে মোট খানার ৬৪ দশমিক ১৪ শতাংশ কমপক্ষে একটি রাত্রিযাপনসহ দেশে বা বিদেশে ভ্রমণ করেছে। দেশের মানুষ সবচেয়ে বেশি ভ্রমণ করেন ডিসেম্বর মাসে। তারপর আগস্টে এবং ফেব্রুয়ারি মাসে। 

বিদেশে ভ্রমণকারী পর্যটকের বিন্যাসে দেখা যায়, ঢাকা বিভাগের পর্যটক সবচেয়ে বেশি, ২৫ শতাংশ। এর পর খুলনা ১৯ দশমিক ৮৪ শতাংশ, সিলেটের ১৭ দশমিক ৬৬ শতাংশ। সবচেয়ে কম পর্যটক বিদেশে যাচ্ছে ময়মনসিংহ বিভাগ থেকে, মাত্র শূন্য দশমিক ৫৪ শতাংশ। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ২৯ লাখ ২১ হাজার পর্যটক বিদেশে ভ্রমণ করেছেন। বিদেশে ভ্রমণের গড় স্থিতিকাল ছিল ৫ দশমিক ৭৬ রাত।

এই সময়ে সর্বাধিক সংখ্যক প্রায় ৬০ দশমিক ৪১ শতাংশ ভারতকে বিদেশ ভ্রমণের জন্য প্রধান গন্তব্য হিসেবে বেছে নিয়েছেন। পরবর্তী অবস্থানে রয়েছে যথাক্রমে সৌদি আরব ৮ দশমিক ১২ শতাংশ ও মালয়েশিয়া ৪ দশমিক ৫৭ শতাংশ।

জরিপের তথ্যানুযায়ী, মোট বহির্গামী পর্যটন ব্যয় ৩৩ হাজার ৬৮৬ কোটি ৮০ লাখ টাকা। এর মধ্যে সর্বাধিক ২৯ দশমিক ৪৯ শতাংশ ব্যয় হয়েছে স্বাস্থ্য ও চিকিত্সা খাতে। পরিবহনে ব্যয় ২৫ ভাগ এবং কেনাকাটায় ব্যয় হয়েছে প্রায় ২৩ ভাগ অর্থ। আলোচিত সময়ে দেশের অভ্যন্তরে বিদেশিরা পর্যটনে এসে ব্যয় করেছেন ২৩ হাজার ৭৮০ কোটি টাকা। এর ৮২ ভাগ ব্যয় হয়েছে অনাবাসী বাংলাদেশিদের দ্বারা। অবশিষ্ট সাড়ে ১৭ ভাগ বিদেশি পর্যটকগণ ব্যয় করেছেন। পর্যটন খাতে প্রত্যক্ষ স্থুল মূল্য সংযোজন হয়েছে ৭৪ হাজার ৪২৯ কোটি টাকা যা দেশের মোট মূল্য সংযোজনের প্রায় ১২ শতাংশ। সবমিলিয়ে দেশের জিডিপিতে ৩ দশমিক শূন্য ২ শতাংশ অবদান পর্যটন খাতের।

 

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

বিজয়ের মাস

পরিস্থিতির দ্রুত অবনতি ঘটছে: নিয়াজির বার্তা

ঢাকায় মৈত্রী দিবস উদযাপন

সমুদ্রে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত বহাল

নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে ‘জাওয়াদ’

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ৫৮তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

বিজয়ের মাস

বাংলাদেশকে কেন্দ্র করে গোটা বিশ্ব দুটি শিবিরে বিভক্ত

বিশেষ সংবাদ

যেসব কারণে শহর ছাড়ছে মানুষ