শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

জুমার দিনের আমল ও ফজিলত

আপডেট : ১৭ ডিসেম্বর ২০২১, ১০:৩৮

মুসলিম উম্মাহর সাপ্তাহিক উৎসবের দিন শুক্রবার। জুমার নামাজের ফজিলত অপরিসীম।  দিনটি আল্লাহর কাছে অতি মর্যাদাসম্পন্ন। এই দিনের বিশেষ কিছু আমল ও ফজিলত রয়েছে।  

পবিত্র কুরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘হে মুমিনরা! জুমার দিন যখন নামাজের আজান দেওয়া হয়, তখন তোমরা আল্লাহর স্মরণের দিকে এসো এবং বেচাকেনা বন্ধ করো, এটা তোমাদের জন্য উত্তম, যদি তোমরা বুঝ। এরপর নামাজ শেষ হলে জমিনে ছড়িয়ে পড়ো, আল্লাহর অনুগ্রহ (জীবিকা) তালাশ করো এবং আল্লাহকে অধিক স্মরণ করো যাতে তোমরা সফলকাম হও।’ (সুরা জুমা : ৯-১০) 

জুমার দিন জুমার নামাজের জন্য যে যত তাড়াতাড়ি মসজিদে আসবে সে তত বেশি সওয়াব পাবে। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যখন জুমার দিন আসে ফেরেশতারা মসজিদের দরজায় দাঁড়িয়ে প্রথম থেকে পর্যায়ক্রমে আগন্তুকদের নাম লিখতে থাকে। যে সবার আগে আসে সে ওই ব্যক্তির মতো যে একটি উট সদকা করে। তারপর যে আসে সে ওই ব্যক্তির মতো যে একটি গাভী সদকা করে। তারপর আগমনকারী মুরগি সদকাকারীর মতো। তারপর আগমনকারী একটি ডিম সদকাকারীর মতো। এরপর যখন ইমাম খুতবা দিতে বের হন, তখন ফেরেশতারা তাদের দফতর বন্ধ করে দেন এবং মনোযোগ  দিয়ে খুতবা শুনতে থাকেন। (বুখারি : ৮৮২) 

জুমার দিনে হাদিসে বর্ণিত গুরুত্বপূর্ণ আমলগুলো
১. গোসল করা
২. ফজরের ফরজ নামাজে সূরা সাজদা ও সূরা দাহর/ইনসান তিলাওয়াত করা
৩. উত্তম পোশাক পরা
৪. সুগন্ধি ব্যবহার করা
৫. আগেভাগে মসজিদে যাওয়া
৬. সূরা কাহফ তেলাওয়াত করা
৭. মসজিদে গিয়ে কমপক্ষে দুই রাকাত সুন্নত আদায় করা
৮. ইমামের কাছাকাছি গিয়ে বসা
৯. মনযোগ দিয়ে খুৎবা শোনা। খুৎবা চলাকালে কোনো কথা না বলা
১০. দুই খুৎবার মাঝের সময়ে বেশি বেশি দুয়া করা
১১. অন্য সময়ে দুয়া করা। কারণ এদিন দোয়া কবুল হয়
১৩. রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ওপর সারাদিন যথাসম্ভব বেশি দরূদ পাঠ করা

ইত্তেফাক/কেকে

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

ভ্রমণ একটি আনন্দময় ইবাদত 

মৌমাছি আল্লাহর বিস্ময়কর সৃষ্টি

হজের খরচ বাড়লো আরও ৫৯ হাজার টাকা

৫ জুন থেকে হজ ফ্লাইট শুরু করতে চায় ধর্ম মন্ত্রণালয়

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় শেষ আজ 

জাকাত বোর্ড ও দারিদ্র্য দূরীকরণ

বৃষ্টির সময় মুমিনের করণীয় 

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ৮ জুলাই পবিত্র হজ