শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

প্লাস্টিক সার্জারির পর ৩ বছর নির্যাতনের শিকার অভিনেত্রী!

আপডেট : ০৯ জানুয়ারি ২০২২, ১৫:৩০

বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে পুরোদমে স্বজনপোষণ বহাল তবিয়তে আছে, সে কথা খোলা গলায় জানালেন বলি অভিনেত্রী কোয়েনা মিত্র। উল্লেখ করেছেন বলিউডের দলবাজির শিকার হওয়ার ব্যাপারেও। পাশাপাশি আরও জানালেন প্লাস্টিক সার্জারি করানোর সুবাদে তাকে রীতিমতো একঘরে করে দিয়েছিল ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি।

কোয়েনা বলেন, ‘বলিউডে স্বজনপোষণ আছে ভীষণভাবে। রয়েছে দলবাজি। সেসবের শিকারও হয়েছি। সবরকমের আচরণ পেয়েছি। এক সময় সম্পূর্ণ বহিরাগত হয়েও বি-টাউনে দারুণ সব ছবির প্রস্তাব পেয়েছি, কাজ করেছি আবার যখন সবচেয়ে বেশি কাজের দরকার ছিল আমার তখন পাইনি। কোনও সহকর্মী সমর্থন করেননি আমাকে। সোচ্চারে আমার হয়েও গলা ফাটায়নি। এই অভিযোগ আমার আজও রয়েছে। থেকে যাবেও।’

কোয়েনার কথায়, ‘সেটা সম্পূর্ণ আমার সিদ্ধান্ত ছিল। দিনের শেষে এটা তো আমার মুখ, আমার জীবন। লোকের এত সমস্যা কেন?’

কোয়েনা মিত্র। ছবি: সংগৃহীত

এই অভিনেত্রী বলেন, ‘আমি জানতাম না বলিপাড়ায় সার্জারি করিয়ে সে ব্যাপারে মুখ খোলা নিষেধ। প্লাস্টিক সার্জারি নতুন কিছু নয়। তবে তা করে যে খোলাখুলি কথা বলা যায় না সেসব ব্যাপার একেবারেই জানা ছিল না। তাই তো একজন জিজ্ঞেস করামাত্রই স্বীকার করে নিয়েছিলাম প্লাস্টিক সার্জারি করানোর কথা। ব্যাস! মনে হলো পুরো পৃথিবী আমার পিছনে পড়ে গেছে। সার্জারি করার পর তিন বছর ধরে ক্রমাগত মানসিক যন্ত্রণা সহ্য করতে হয়েছিল আমাকে। দেখলাম বলিপাড়ার অনেকেই আমার থেকে দূরত্ব রাখা শুরু করে দিলেন। আমাকে ঘিরে রাজ্যের নেতিবাচক খবর চলতে লাগল।’

একেবারে শেষে কোয়েনা মিত্রের বক্তব্য থেকে জানা গেল যারা তাকে সেই কঠিন সময়ে শক্ত থাকার উপদেশ দিয়েছিলেন তারাই নাকি সংবাদমাধ্যমের সামনে তার সমর্থনে একটু কথাও বলেন নি।

ইত্তেফাক/বিএএফ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন