মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২২, ১১ মাঘ ১৪২৮
দৈনিক ইত্তেফাক

নবজাতকের কপালে ৯ সেলাই 

আপডেট : ১৫ জানুয়ারি ২০২২, ১৫:৫২

ফরিদপুরে সিজার করাতে গিয়ে নবজাতকের কপাল কেটে ফেলেছে নার্স ও আয়া। শনিবার সকালে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সামনের আল-মদিনা প্রাইভেট হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। ওই শিশুর কপালে ৯টি সেলাই দেওয়া হয়েছে।

পরে রোগীর স্বজনরা থানায় অভিযোগ দিলে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পুলিশ গিয়ে চায়না বেগম নামের ওই হাসপাতালের  নার্স, হাসপাতালের পরিচালক পলাশ ও এক দালালকে আটক করে।  

জানা গেছে, রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার মইজুদ্দিন মাতব্বর পাড়ার শফিক খানের স্ত্রী রুপা বেগমকে শনিবার ভোরে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিব মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আনা হয়। সকালে হাসপাতালের সামনে অপেক্ষা করছিল তারা। পরে দালালদের কথায় আল-মদিনা প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি করে তারা। সেখানে সিজার করার সময় নবজাতকের কপালের একটি অংশ কেটে ফেলে নার্স ও আয়ারা।

ফরিদপুর সদরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাসুদুল আলম জানান, এ জাতীয় ঘটনা কাম্য নয়। আমরা ইতিমধ্যে হাসপাতাল থেকে তিনজনকে আটক করেছি। এ ব্যাপারে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ফরিদপুর সদর উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. ফাতেমা করিম বলেন, বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের এ ধরনের উদাসীনতা মেনে নেওয়া হবে না। আমরা একটি তদন্ত কমিটি গঠন করবো। দোষীদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ফরিদপুর সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুমন রঞ্জন কর জানান, প্রাথমিক তদন্তে সত্যতা পেয়ে প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক, আয়া ও এক দালালকে আটক করেছি। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। 

 

ইত্তেফাক/ইউবি 

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

জনপ্রিয় ফুল জারবেরার সফল চাষ

আপন মানুষের ঘরে ফেরার আকুতি

ফরিদপুরে পাসপোর্ট অফিসের ৫ দালাল আটক

ফরিদপুরের ১৩ ইউনিয়নে বিজয়ী হলেন যারা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

প্রকল্প বাস্তবায়নে অনিয়ম-দুর্নীতি সহ্য করা হবে না: নিক্সন চৌধুরী

দিনাজপুরে হাসপাতাল থেকে নবজাতক শিশু চুরি

‘মাঠে ফিরছে ১০০ প্রজাতির ধান’

তরুণীর পেটে কাঁচি রেখে সেলাই, ‘ঘটনায় কেউ দায়ী নয়’